क्षेत्रीय

Blog single photo

লকডাউন অমান্যকারী ও অসাধু ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ মুখ্যমন্ত্ৰী সর্বার

06/04/2020

হোজাই (অসম), ৬ এপ্ৰিল (হি.স.) : সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে, লকডাউন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়াল। পাশাপাশি অত্যাবশ্যক সামগ্ৰীর মূল্য বৃদ্ধিকারী সংশ্লিষ্ট অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে যেন তাৎক্ষণিক অ্যাকশন নেওয়া হয় তা সুনিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। মহামারি করোনা ভাইরাসের সংক্ৰমণ ঠেকাতে সোমবার মুখ্যমন্ত্ৰী সৰ্বানন্দ সনোয়াল মধ্য অসমের হোজাই, নগাঁও এবং মরিগাঁও জেলা প্ৰশাসনের প্ৰস্তুতি খতিয়ে দেখেছেন। আজ হোজাইয়ে তিনি ‘কোভিড কিউচেক’ (COVID QCheck) নামের একটি নতুন ওয়েবসাইটেরও উদ্বোধন করেছেন। 

এদিন হোজাই জেলাশাসকের কার্যালয় সভাকক্ষে বিধায়ক শিলাদিত্য দেব, বিধায়ক বিমল বরা, লামডিঙের বিধায়ক শিবু মিশ্ৰ, জেলাশাসক ড. সাদনেক সিং, পুলিশ সুপার অঙ্কুর জৈন, অতিরিক্ত জেলাশাসক প্ৰশান্ত বরুয়া, পঙ্কজ ডেকা, গৌরীশংকর দাস সহ বিভিন্ন বিভাগের পদস্থ আধিকারিকদের নিয়ে পৰ্যালোচনা-বৈঠক করেছেন মুখ্যমন্ত্ৰী। বৈঠকে করোনা মোকাবিলায় প্রশাসন কী কী পদক্ষেপ নিয়েছে তার খতিয়ান নেন তিনি। 

সব শুনে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, প্ৰধানমন্ত্ৰীর প্ৰস্তাবিত ২১ দিনের লকডাউন কাৰ্যসূচি সফলভাবে রূপায়ণ করতে জেলা প্ৰশাসনের নানা স্তরের কর্মচারী নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে চলেছেন। তাঁদের সম্মিলিত পদক্ষেপে অসমে কোভিড-১৯ তেমন হামলা করতে পারে নি। তবে সতর্কতামূলক সামাজিক দূরত্ব সর্বাবস্থায় বজায় রাখার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

এছাড়া জরুরি পরিষেবা এবং অত্যাবশ্যক পণ্যসামগ্ৰী যাতে সাধারণ মানুষের সহজলভ্য হয় সেদিকে নজর রাখতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্ৰী সর্বানন্দ সনোয়াল। বলেন, মহামারি কোভিড-১৯-এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অসমবাসী ঐক্যবদ্ধভাবে সহযোগিতা করেছেন। ২১ দিনের লকডাউনের সময় এখন পৰ্যন্ত বরাক-ব্ৰহ্মপুত্ৰ, পাহাড়-সমতলে বসবাসকারী সাধারণ মানুষ নিয়ম মেনে ঘরের ভেতরে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নভাবে অবস্থান করছেন। এর ফলে আমাদের সমাজে করোনা ভাইরাসের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াইয়ের একটি পরিবেশ তৈরি হয়েছে। 

প্ৰধানমন্ত্ৰী নরেন্দ্ৰ মোদী আহূত ২১ দিনের লকডাউন কাৰ্যসূচিতে দেশের মানুষ সহযোগিতা করছেন, তাই আজ কোটি কোটি মানুষ সুরক্ষিত। আগামী ১৪ এপ্ৰিল পৰ্যন্ত লকডাউন কাৰ্যসূচি সফলভাবে পালন করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

হোজাই সফরের পর মুখ্যমন্ত্ৰী নগাঁওয়ের ভোগেশ্বরী ফুকননী সিভিল হাসপাতালে যান। সেখানে আইসোলেনশন কক্ষ ছাড়াও করোনা ঠেকাতে স্বাস্থ্য বিভাগের বিভিন্ন প্ৰস্তুতি খতিয়ে দেখেছেন তিনি। নগাঁওয়ের আবৰ্ত ভবনে জেলা প্ৰশাসনের উচ্চপদস্থ অফিসারদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন তিনি। অত্যাবশ্যক, উন্নতমানের সামগ্ৰী যাতে সাধারণ মানুষের মধ্যে ঠিকমতো সরবরাহ করা হয় সে নিৰ্দেশ দিয়েছেন তিনি। কোনও অবস্থায় যাতে মূল্যবৃদ্ধি না হয় সেদিকে তীক্ষ্ণ নজর রাখতে জেলা প্রশাসনকে বলেছেন সর্বানন্দ। এছাড়া বিদ্যুৎ সরবরাহ যাতে নিয়মিত থাকে তার জন্য এপিডিসিএল-এর অফিসার কৰ্মচারীদের নিৰ্দেশ দিয়েছেন। নগাঁওয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে রাজ্যের জলসম্পদ মন্ত্ৰী কেশব মহন্ত, বিধায়ক রূপক শৰ্মা, বিধায়ক বিমল বরা, জেলাশাসক, পুলিশ সুপার এবং অন্যান্য বিভাগের জেলাস্তরের পদস্থ অফিসাররা উপস্থিত ছিলেন। 

বৈঠকের পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলে মুখ্যমন্ত্ৰী বলেন, লকডাউনের সময়কালে বিভিন্ন প্ৰান্তের খবর প্ৰকাশ করে সাংবাদিকরা রাজ্য সরকারকে যথেষ্ট সাহায্য করেছেন। সমাজে সচেতনতা, সতৰ্কতা বাড়ানোর কাজে সাংবাদিকদের ভূয়সী প্ৰশংসা করেছেন মুখ্যমন্ত্ৰী। তিনি বলেন, লক ডাউন কাৰ্যসূচি সফলভাবে পালন করতে সকলকে দৃঢ়প্ৰতিজ্ঞ হতে হবে। করোনা ভাইরাসের অন্ধকার থেকে আলোর পথে এগিয়ে যেতে প্ৰধানমন্ত্ৰীর দেখানো পথকে অনুসরণ করতে হবে সকলকে।

পাশাপাশি রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগের সৰ্বস্তরের সৈনিক যেমন ডাক্তার, নাৰ্স, আশাকৰ্মী, এমপিডব্লিউ কৰ্মকৰ্তা, ল্যাবরেটরির টেকনিশিয়ান, ওয়াৰ্ডবয়, সাফাই কৰ্মী, অ্যাম্বুলেন্স চালকগণ যাঁরা করোনা-আক্ৰান্ত রোগীদের সুস্থ করে তুলতে দিন রাত এক করে দিচ্ছেন তাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ব্যক্ত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এছাড়া সমাজে বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে পুলিশ প্ৰশাসন, সরবরাহ বিভাগ, বিদ্যুৎ বিভাগ, জনস্বাস্থ্য ও কারিগরি বিভাগ, পরিবহণ বিভাগের কৰ্মচারীদের প্রসঙ্গও টেনে এনেছেন মুখ্যমন্ত্রী সনোয়াল। 

রাজ্যে যে কয়জন করোনায় আক্ৰান্ত হয়েছেন তাদের আতঙ্কিত না হতে বলে মুখ্যমন্ত্রী জানান, স্বাস্থ্যকৰ্মী তথা চিকিৎসকরা ইতিমধ্যেই উন্নতমানের চিকিৎসার মাধ্যমে তাঁদের সুস্থ করে তুলতে যাবতীয় ব্যবস্থা নিচ্ছেন। তবে সর্বাবস্থায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ঘরের ভেতরে থাকতে পারলেই আমরা করোনা সংক্ৰমণ ঠেকাতে পারব, এই বাৰ্তা এদিন মুখ্যমন্ত্ৰীর কথায় বার বার উঠে আসে। 

মুখ্যমন্ত্ৰী সর্বানন্দ সনোয়াল হোজাইয়ে আজ করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত অসমের প্ৰথম ওয়েবসাইট ‘কোভিড কিউচেক’ (COVID QCheck)-এর উদ্বোধন করেছেন। এই অ্যাপসে আশাকৰ্মীরা জেলার করোনা সম্পর্কে বা কোয়ারেন্টানে অবস্থানকারীদের ঘরে ঘরে গিয়ে আপডেট দেবেন। ওই আপডেট জেলা প্ৰশাসন নিয়মিত পৰ্যবেক্ষণ করবে৷ 

হিন্দুস্থান সমাচার / রিংকি / এসকেডি


 
Top