क्षेत्रीय

Blog single photo

স্ট্যান স্বামীর মুক্তির দাবিতে কলকাতায় সমাবেশ

17/10/2020

কলকাতা, ১৭ অক্টোবর (হি. স.) : ৮৩ বছরের ফাদার স্ট্যান স্বামীর অবিলম্বে মুক্তির দাবিতে শনিবার বিকেলে কলকাতায় একটি পদযাত্রা বার হয়। মহারাষ্ট্রের ভীমা কোরেগাঁও হিংসা মামলায় স্ট্যান স্বামী-সহ আট অভিযুক্তের বিরুদ্ধে সম্প্রতি চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে। 
২০১8 সালের মামলায় ফাদার স্ট্যান স্বামীকে গত ৮ অক্টোবর রাতে ঝাড়খণ্ডের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গ্রেফতার করে এনআইএ। আদিবাসী অধিকার নিয়ে লড়াই করা এই সমাজসেবীকে এর আগেও বহুবার ওই মামলায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল। 
শনিবার সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের সামনে থেকে মিছিল বার হয়ে যায় পার্ক স্ট্রিট ও ক্যামাক স্ট্রিটের সংযোগস্থলে মাদার টেরিজার মূর্তির পাদদেশে তৈরি অস্থায়ী মঞ্চে। এর মূল উদ্যোক্তা ছিলেন সেন্ট জেভিয়ার্স বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য রেভারেন্ড ডঃ ফেলিক্স রাজ এবং মাদার টেরিজা ইন্টারন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড কমিটির চেয়ারম্যান অ্যান্টনি অরুণ বিশ্বাস। ওঁরা ছাড়াও পদযাত্রায় ছিলেন কলকাতার আর্চ বিশপ টমাস ডিসুজা, ‘ভাইকার জেনারেল অফ ক্যালকাটা’ ডমিনিক গোমেস, নাখোদা মসজিদের ইমাম মহম্মদ সাতিক প্রমুখ। 

স্টেন স্বামীকে ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত বিচারবিভাগীয় হেফাজতে পাঠানো হয়েছে। মাদার টেরিজা ইন্টারন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড কমিটির সাধারণ সম্পাদক ডেভিড পাত্র ‘হিন্দুস্থান সমাচার’-কে বলেন, এ দিনের পদযাত্রায় কোনও শ্লোগান-প্ল্যাকার্ড ছিল না। তবে, তাঁদের বুকে ছিল মাদার টেরিজার ছবি-সহ ব্যাজ। বেশ কিছু ছাত্রছাত্রী সিস্টারদের দুটি সংগঠনের কিছু প্রতিনিধি  অংশ নেন মিছিলে। মঞ্চে বক্তারা অবিলম্বে স্টেন স্বামীর মুক্তির দাবি করেন। 
প্রসঙ্গত ঝাড়খন্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন ফাদার স্টেন স্বামীকে ফেতারের জন্য বিজেপি সরকারের বিরোধিতা করেছেন। তিনি বলেন, যিনি দরিদ্র, সুবিধাবঞ্চিত এবং আদিবাসীদের কণ্ঠস্বর তুলে ধরেছেন, কেন্দ্রের সরকার তাঁকে গ্রেফতার করে কি বার্তা দিতে চায়? বিশিষ্ট লেখক ও ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহ জানিয়েছেন, 'আদিবাসীদের অধিকারের দাবিতে স্ট্যান স্বামী আজীবন লড়াই করেছেন। এই ঘটনার পিছনে মোদী সরকারের নিঃশব্দ দমন করার প্রচেষ্টা রয়েছে। কারণ তাঁর শাসনকালেই ওই এলাকার খনি সংস্থাগুলি আদিবাসীদের জীবন ও জীবিকার কেড়ে নিয়ে তাদের মুনাফার দিকেই বেশি প্রাধান্য দিয়ে এসেছে।' অন্যদিকে, এনআইএ স্টেন স্বামীকে শহুরে নকশাল অপারেটর হিসেবে চিহ্নিত করে বলেছে যে তিনি মাওবাদীদের কাছ থেকে টাকা নেন। তাঁর বাসভবন থেকে নকশাল সাহিত্য উদ্ধার হয়েছে।  হিন্দুস্থান সমাচার/ অশোক


 
Top