ट्रेंडिंग

Blog single photo

হায়দরাবাদ ধর্ষণ-খুন কাণ্ডের তীব্র নিন্দা সংসদে, কঠোর আইন আনতে প্রস্তুত সরকার

02/12/2019

নয়াদিল্লি, ২ ডিসেম্বর (হি.স.): জনসমক্ষে নিয়ে আসা উচিত দোষীদের, তারপর সমস্ত কিছু জনগণের উপর ছেড়ে দেওয়া উচিত| তেলেঙ্গানায় তরুণী পশু চিকিত্সককে গণধর্ষণ ও খুনের ঘটনার তীব্র নিন্দা করে এমনই মন্তব্য করেছেন রাজ্যসভার সাংসদ জয়া বচ্চন| তেলেঙ্গানা ধর্ষণকাণ্ডে সোমবার লোকসভা ও রাজ্যসভায় সরকার ও বিরোধী সব পক্ষের সাংসদরাই তীব্র নিন্দায় সরব হন| প্রয়োজনে আরও কঠোর আইন আনতেও প্রস্তুত রয়েছে সরকার, লোকসভায় জানান প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং| আবার রাজ্যসভার সাংসদ জয়া বচ্চন দাবি তোলেন, জনসমক্ষে নিয়ে আসা উচিত দোষীদের| 
সোমবার অধিবেশন শুরু হওয়ার পরই তেলেঙ্গানায় ধর্ষণ ও খুনের ঘটনার তীব্র নিন্দা করেন লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা| উদ্বেগ প্রকাশ করে স্পিকার বলেছেন, ‘দেশে যে ধরনের ঘটনা ঘটে চলেছে, তাতে সংসদও চিন্তিত|’ তরুণী পশু চিকিত্সককে ধর্ষণ ও খুনের ঘটনার নিন্দা করে লোকসভায় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেছেন, ‘ঘৃণ্য অপরাধ গোটা দেশকে লজ্জিত করেছে| প্রত্যেকের মনকে আঘাত করেছে| ঘৃণ্য অপরাধের জন্য অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তি হওয়া উচিত|’ রাজনাথ সিং আরও বলেছেন, ‘ধর্ষণ আইন আরও কঠোর করতে সরকার আলোচনার জন্য প্রস্তুত| আরও কঠিন আইনের জন্য যদি সহমত হয়, সরকার সেটা প্রণয়ন এবং প্রয়োগ করতে প্রস্তুত|’ তেলেঙ্গানার নালগোণ্ডার কংগ্রেস সাংসদ ইউ কে এন রেড্ডি জানিয়েছেন, ‘একজন মহিলা চিকিত্সককে অপহরণ, গণধর্ষণ ও খুন করা হল এবং পুড়িয়ে মারা হল| নির্বিচারে মদ বিক্রিই এই ধরনের ঘৃণ্য অপরাধের জন্য অন্যতম কারণ| দ্রুত ফাস্ট ট্র্যাক আদালত গঠনের অনুরোধ করছি এবং অভিযুক্তদের ফাঁসির সাজা দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি|’ 
লোকসভার পাশাপাশি রাজ্যসভাতেও ধর্ষণ-খুন কাণ্ড নিয়ে সরব হন সাংসদরা| রাজ্যসভার চেয়ারম্যান এম বেঙ্কাইয়া নাইডু ধর্ষণ-খুনের তীব্র নিন্দা করে বলেছেন, ‘যেটা প্রয়োজন সেটা শুধু আইন প্রণয়ন নয়| দরকার রাজনৈতিক সদিচ্ছা, প্রশাসনিক দক্ষতা এবং মানসিকতার পরিবর্তন|’ রাজ্যসভায় আলোচনা চলাকালীন সমাজবাদী পার্টির সাংসদ জয়া বচ্চন বলেছেন, ‘এই ধরনের লোকদের জনসমক্ষে নিয়ে আসা উচিত এবং উচিত শিক্ষা দেওয়া দরকার|’ সংসদের বাইরেও জয়া বচ্চন বলেছেন, ‘সরকার নিরাপত্তা দিতে না পারলে, সাধারণ মানুষের হাতেই ছেড়ে দিক|’ রাজ্যসভায় কংগ্রেস সাংসদ গুলাম নবি আজাদ বলেছেন, ‘কোনও সরকার অথবা নেতা চাইবেন না, তাদের রাজ্যে এই ধরনের ঘৃণ্য ঘটনা ঘটুক| শুধুমাত্র আইন তৈরি করলেই এই সমস্যার সমাধান হবে না| এই ধরনের অপরাধকে নির্মূল করার জন্য আমাদের একসঙ্গে অবস্থান নিতে হবে|’ 

হিন্দুস্থান সমাচার| রাকেশ|


 
Top