अंतरराष्ट्रीय

Blog single photo

বাড়ল বাংলাদেশের লকডাউনের সময়সীমা, সংক্রমণ এড়াতে এই পদক্ষেপ হাসিনা সরকারের

31/03/2020

ঢাকা, ৩১ মার্চ (হি. স.) : করোনোভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে বাড়ল বাংলাদেশের লকডাউনের সময়সীমা। মঙ্গলবার জানিয়ে দেওয়া হল, ৯ এপ্রিল পর্যন্ত থাকবে লকডাউন। নোবেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে সারা বিশ্বে ৩৮,০০০ প্রাণহানি হয়েছে। বাংলাদেশে এখনও পর্যন্ত ৫০ জনের শরীরে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। মৃত ৫। ২৬ মার্চ ১০ দিনের লকডাউনের ঘোষণা করা হয়। সেই হিসেবে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত থাকার কথা ছিল লকডাউন, কিন্তু মঙ্গলবার জানিয়ে দেওয়া হল আরও কয়েকদিন লকডাউন থাকবে বাংলাদেশে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানিয়েছেন, ‘‘লকডাউন ৯ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হল। কিন্তু অফিস ও কারখানায় স্বল্প মাত্রায় কাজ চলবে।'' 
এদিন শেখ হাসিনা তাঁর সরকারি বাসভবন ‘গণ ভবন'-এ এক ভিডিও কনফারেন্স করেন সিনিয়র সরকারি পদাধিকারীদের সঙ্গে। জানা যাচ্ছে, ওই কনফারেন্সে স্বাস্থ্য দফতরের কর্মী ও বিশেষজ্ঞরা গোষ্ঠী সংক্রমণের ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করলে লকডাউনের সময়সীমা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন হাসিনা। স্বাস্থ্য পরিষেবার এক ডিরেক্টর জানিয়েছেন, শুক্রবার লকডাউন ঘোষণার পর বহু মানুষ ভিড় বাস, ফেরি ও ট্রেনে করে বাড়ি ফেরার চেষ্টা করেন। সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার সব সতর্কতা সত্ত্বেও তাঁরা ওই ভাবে চলাফেরা করেন বলে তিনি জানান। একই ভাবে ৪ এপ্রিল লকডাউন তোলার পর যদি ওই ভাবে তাঁরা ফের আসেন তাহলে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে।তিনি জানাচ্ছেন, ‘‘লকডাউন ৪ এপ্রিল থেকে বাড়িয়ে ৯ এপ্রিল করে দিলে পরীক্ষা ও সুস্থতার ১৪ দিনের একটি বৃত্ত পূর্ণ হবে।''
আগামী ১৪ এপ্রিল বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে যাতে কোনও সামাজিক অনুষ্ঠান আয়োজিত না হয়, সে ব্যাপারে নির্দেশ জারি করেছেন শেখ হাসিনা। সকলকে জন সমাবেশ এড়ানোর অনুরোধ করেছেন তিনি। বরং ডিজিটাল মাধ্যমে নববর্ষ পালনের আর্জি জানান তিনি। তিনি মেনে নিচ্ছেন, এই ঐতিহ্যবাহী প্রথা বন্ধ রাখাটা কষ্টকর। কিন্তু জনস্বার্থে তা করতেই হবে বলে জানান তিনি। পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর দাম যেন কোনও ভাবেই বেশি না নেওয়া হয় বলে সতর্ক করেন তিনি। হিন্দুস্থান সমাচার / সোনালি


 
Top