क्षेत्रीय

Blog single photo

করোনা সতর্কতায় বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘ফিভার ক্লিনিক’

05/04/2020


কলকাতা, ৫ এপ্রিল (হি স)। করোনা ভাইরাসের প্রাথমিক পরীক্ষার জন্য বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে তৈরি হচ্ছে ‘ফিভার ক্লিনিক’। রবিবার ছুটির দিনে বিষয়টি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে একটি বৈঠকে বসেন পিয়ার্সন মেমোরিয়াল হাসপাতালের চিকিৎসকরা।  
বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন এই হাসপাতালে ইউজিসি-র বরাদ্দ অর্থে তৈরি হয়েছে আধুনিক একটি দোতলা ভবন। কিন্তু চিকিৎসকের অভাবে এখনও এটি চালু করা সম্ভব হয়নি। ঠিক হয়েছে এই হাসপাতালে দুটো ঘরে দশটি করে শয্যা অর্থাৎ মোট ১০টি শয্যা রাখা হবে কোয়ারেন্টাইন হিসাবে।  এ ছাড়া নিচে পাঁচটি ঘরে হবে ফিভার ক্লিনিক। 
বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী ‘হিন্দুস্থান সমাচার’-কে একান্ত সাক্ষাৎকারে এ খবর জানিয়ে বলেন, “বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের কর্তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। কিছু থার্মাল যন্ত্র, এক্সরে মেশিন, ব্লাড কাউন্টিং মেশিন এখানে বরাদ্দ করা হচ্ছে। এর জন্য প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো এবং নার্স এই হাসপাতালে রয়েছে। 
উল্লেখ করা যেতে পারে, বীরভূমে জয়দেবভিটের কাছে একটি বেসরকারি হাসপাতাল রাজ্য সরকার করোনা চিকিৎসার জন্য ইতিমধ্যে চিহ্নিত করেছে। বিদ্যুৎবাবু বলেন, টাইফয়েড সর্দি-কাশি বা নানা রকম শরীর খারাপ হয়। যে কোনোও অসুখ হলেই লোকের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিচ্ছে। কিন্তু জ্বর, কাশি হাঁচি, পেট খারাপ প্রভৃতি জিনিস খতিয়ে যদি রোগীর করোনার প্রকৃত উপসর্গ থাকে তবেই আইসোলেশন বা কোয়ারান্টিনে পাঠানোর প্রশ্ন আসবে। সেই ব্যাপারে এই ‘ফিভার ক্লিনিক’ যথেষ্ট কাজে দেবে। মঙ্গলবার থেকেই চালু এটি চালু হয়ে যাবে। 
বিশ্বভারতীর এই পিয়ার্সন হাসপাতালে ৯ জন চিকিৎসক, ৩০ জন নার্স এবং ৩০ শয্যার অস্ত্রোপচার বিভাগ (ওটি) আছে। কিন্তু তিন বছর ধরে চিকিৎসকের অভাবে এই ওটি কাজ করছে না। হাসপাতালটিকে পূর্ণ কার্যকরী করতে পাঁচটি নামী হাসপাতালের সঙ্গে কথা হয়েছে। তাদের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে পিপিপি-তে বিশ্বভারতীর হাসপাতালের মানোন্নয়ন করবে লাগাবে কর্তৃপক্ষ। 

হিন্দুস্থান সমাচার/ অশোক 
 


 
Top