राज्य

Blog single photo

সংকটজনক অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ভূমিধর বর্মণের শারীরিক অবস্থা, আশু আরোগ্য কামনা মুখ্যমন্ত্রী, এপিসিসি সভাপতি প্রমুখের

07/04/2021

07/04/2021
গুয়াহাটি, ৭ এপ্রিল (হি.স.) : অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ডা. ভূমিধর বর্মণের শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি ঘটেছে। ৯০ বছরের ডা. ভূমিধর বর্মণ বেশ কয়েকবছর যাবৎ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। অতি সম্প্রতি তাঁর স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটলে গুয়াহাটির দিশপুর হাসপাতালে নিয়ে ভরতি করা হয়েছিল। ডা. শহিদুল আলম চৌধুরীর তত্ত্বাবধানে হাসপাতালের আইসিইউতে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর চিকিৎসা চলছে। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ডা. ভূমিধর বর্মণের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়াল এবং প্ৰদেশ কংগ্ৰেস সভপতি রিপুন বরা সহ অনেকে। 

অসম প্রদেশ কংগ্রেসের মিডিয়া সেলের চেয়ারপার্সন ববিতা শর্মা জানান, আজ বিকেলের দিকে এপিসিসি সভাপতি রিপুন বরা সহ অন্যদের নিয়ে তিনি দিশপুর হাসপাতালে গিয়ে প্রবীণ নেতাকে গিয়ে দেখে এসেছেন। তাঁর চিকিৎসায় যাতে কোনও ধরনের খামতি না থাকে সে ব্যাপারে ডাক্তারদের কাছে আর্জি জানিয়েছেন তাঁরা। 

এদিকে তাঁর অফিশিয়াল ট্যুইটে প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি রিপুন বরা লিখেছেন, “ডা. ভূমিধর বর্মণের চিকিৎসায় নিয়োজিত ডাক্তাররা আশ্বাস দিয়েছেন, রোগীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। আমরা তাঁর আশু আরোগ্য কামনা করছি।” প্রসঙ্গত রাজ্যে তৃতীয় তথা শেষ দফার নির্বাচনে বরক্ষেত্রী আসনে কংগ্রেস মনোনীত প্রার্থী ছেলে দিগন্ত বর্মণকে নিজের ভোটও দিতে পারেননি বাবা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ডা. ভূমিধর।

১৯৩১ সালের ১২ অক্টোবর নলবাড়ি জেলার বেলশরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন ডা. ভূমিধর বর্মণ। পরবর্তীতে ১৯৫১ সালে টিহু হাইস্কুল থেকে মাধ্যমিক পাশ করে চলে যান কলিকাতায়। ক্যালকাটা ইউনিভার্সিটি থেকে স্নাতক ভূমিধর বর্মণ পরবর্তীতে ১৯৫৮ সালে ডিব্রুগড়ে অবস্থিত আসাম মেডিক্যাল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি প্রাপ্ত হয়েছিলেন। বেশ কিছুদিন চিকিৎসা পরিষেবার সঙ্গে জড়িত থেকে পরবর্তীতে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসে যোগ দিয়ে তিনি রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হয়ে পড়েন। 

এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে, ১৯৬৭ সালে ৬০ নম্বর বরক্ষেত্রী বিধানসভা আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিধায়ক নির্বাচিত হন। এর পর ধারাবাহিকভাবে সাতবার রাজ্য বিধানসভায় একই আসনে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। ১৯৭৩-৭৮ পর্যন্ত তিনি শিক্ষা ও রাজস্ব দফতরের প্রতিমন্ত্রী, ১৯৮৩-৮৫ পর্যন্ত স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দফতরের মন্ত্রী, ১৯৯১-৯৬ সালে শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও পঞ্চায়েত দফতরের মন্ত্রীর পদ সামলেছেন ডা. ভূমিধর বর্মণ।

১৯৯৬ সালে তদানীন্তন মুখ্যমন্ত্রী হিতেশ্বর শইকিয়ার আকস্মিক মৃত্যুর পর ওই সালের ২২ এপ্রিল হিতেশ্বর শইকিয়ার স্থলাভিষিক্ত হয়েছিলেন ডা. ভূমিধর বর্মণ। পৰ্যন্ত নতুন সরকার গঠন পর্যন্ত ওই পদে ছিলেন ১৪ মে পর্যন্ত। এর পর ২০২১ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত তদানীন্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ যখন স্বাস্থ্যজনিত কারণে ছুটিতে ছিলেন, তখনও তিনি ভারপ্রাপ্ত মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে নিয়োজিত হয়েছিলেন। তরুণ গগৈ মন্ত্রিসভায় ২০০১-২০০৬ পৰ্যন্ত স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ, অসম চুক্তি রূপায়ণ এবং পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন দফতর; ২০০৬-২০১১ পর্যন্ত রাজস্ব ও দুর্যোগ মোকাবিলা, অসম চুক্তি রূপায়ণ, এআরটি, উচ্চশিক্ষা, পিপিজি দফতরের মন্ত্রী ছিলেন ডা. বর্মণ। এছাড়া ২০১১ সালে বিধায়ক ও মুখ্যমন্ত্রীর উপদেষ্টা হিসেবে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করে গেছেন তিনি।

হিন্দুস্থান সমাচার / সমীপ / অরবিন্দ


 
Top