क्षेत्रीय

Blog single photo

শিলচর : মিজোরামে করোনা আক্রান্তের সহ-বিমানযাত্রীদের চারটি আবাসন সিল

25/03/2020

শিলচর (অসম), ২৫ মার্চ (হি.স.) : কাছাড় জেলা সদর শিলচরের চারটি আবাসনকে (অ্যাপার্টমেন্ট) পুরো কোয়রান্টাইন করেছে কাছাড় জেলা প্রশাসন৷ বরাক উপত্যকায় এই প্রথম এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। আগামী ৭ এপ্রিল পর্যন্ত অ্যাপার্টমেন্টগুলি বন্ধ থাকবে। ২৪ ঘণ্টা এই অ্যাপার্টমেন্টগুলির পাহারায় থাকবে পুলিশ। 

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, এনএন দত্ত রোড, অম্বিকাপট্টি, জানিগঞ্জ ও প্রেমতলায় অবস্থিত চারটি আবাসনের প্রত্যেক আবাসিককে আগামী ৭ এপ্রিল পর্যন্ত ঘরবন্দি থাকতে বলা হয়েছে। এক এনএন দত্ত রোডের আবাসনে মোট ১২টি পরিবার রয়েছে৷

মিজোরামে বুধবার যে যাজক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বলে শনাক্ত হয়েছেন, তাঁর সঙ্গে পরিচয় না থাকলেও এই আবাসনের দুই ব্যক্তি একই বিমানে গুয়াহাটি থেকে আইজলে গিয়েছিলেন৷ দুজনের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য শিলচর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে৷ তাঁদের শিলচর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক পরীক্ষা হবে। এর পর প্রয়োজনীয় স্যাম্পল গুয়াহাটি ও পুণেতে পাঠানো হবে বলে প্রশাসন সূত্রের খবর। 

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে সুমন চৌধুরী জানিয়েছেন, যেহেতু কাছাড় জেলা-ঘেঁষা মিজোরামে প্রথম করোনা ভাইরাস আক্রান্তের ঘটনা ধরা পড়েছে। তাই এই দুই ব্যক্তি সন্দেহের আবর্তে রয়েছেন। তাঁদের ট্রাভেল হিস্ট্রির ওপর ভিত্তি করে বুধবার সম্পূর্ণ অ্যাপার্টমেন্ট সিল করেছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। শিলচরের মোট পাঁচ জন গত ১৬ মার্চ এই বিমানে গুয়াহাটি থেকে আইজলে গিয়েছিলেন৷ বাকি তিন জনের বাড়ি অন্যত্র৷ তাঁদেরও স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে৷ যে ট্র্যাভেলর গাড়িতে হয়ে শিলচর এসেছিলেন তাঁরা, তার চালককেও পরীক্ষা করে কোয়রান্টাইনে নেওয়ার ব্যবস্থা হবে, জানান সুমন চৌধুরী। 

এদিকে কাছাড়ের জেলাশাসক বর্ণালী শর্মা জানান, মিজোরামের করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির সঙ্গে যাঁরা বিমান সফর করেছিলেন তাদের কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে। জেলা প্রশাসন সচেষ্ট রয়েছে তাই এ থেকে সাধারণ মানুষের চিন্তার কোনও কারণ নেই। মেডিক্যাল রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানান তিনি। 

স্বাস্থ্য বিভাগের এক সূত্রে জানা গেছে, এই দুই ব্যক্তি আইজল থেকে শিলচরে ফেরার পর আরও দুটি জায়গায় গিয়েছেন। সেই দুই বাড়ির সদস্যদের ওপর স্বাস্থ্যকর্মীরা নজর রাখছেন। কোনও কিছু সন্দেহজনক মনে করা হলে সেই বাড়িগুলোকেও সিল করা হবে। সব মিলে জেলা প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য বিভাগ করোনা নিয়ে কোনও রকম ঝুঁকি নিতে চাইছে না, স্পষ্ট করে দেওয়া হয়েছে। 

হিন্দুস্থান সমাচার / পুলক / এসকেডি


 
Top