Hindusthan Samachar
Banner 2 शुक्रवार, नवम्बर 16, 2018 | समय 10:38 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

বিজেপির নির্বাচিত পঞ্চায়েত সদস্যার বাড়িতে বোমাবাজি, অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

By HindusthanSamachar | Publish Date: Nov 5 2018 7:09PM
বিজেপির নির্বাচিত পঞ্চায়েত সদস্যার বাড়িতে বোমাবাজি,  অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে
ঝাড়্গ্রাম, ৫ নভেম্বর ( হি. স.) : রাতের অন্ধকারে বিজেপির নির্বাচিত পঞ্চায়েত সদস্যার বাড়িতে বোমাবাজি করে আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে অপহরণের অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এই ঘটনার পর এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার রাতে ঝাড়্গ্রাম জেলার নেদাবহড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের জারুলিয়া গ্রামে। বিজেপির অভিযোগ রাতে বিজেপি পঞ্চায়েত সদস্যার বাড়িতে চড়াও হয়ে পিস্তল দেখিয়ে,বাড়ির সামনে বোমবাজি করে বিজেপির মহিলা প্রার্থীকে অপহরনের চেষ্টা করেন। উল্লেখ্য নেদাবহড়া গ্রামপঞ্চায়েতের মোট ৬ টি আসনের মধ্যে ৬টি আসনেই জয়লাভ করেছে বিজেপি প্রার্থীরা। এই গ্রামপঞ্চায়েতটিতে এখনো বোর্ড গঠন হয়নি। নেদাবহড়া অঞ্চলের জারুলিয়া বুথের এবং জারুলিয়া গ্রামের বিজেপির মহিলা পঞ্চায়েত সদস্য বিষ্টু সিং অভিযোগ করেছেন এদিন রাত সাড়ে আটটা নাগাদ একটি চারচাকা গাড়িতে করে দশ– বারো জন দুষ্কৃতী মুখে কাপড় বেঁধে বাড়ির সামনে বোমাবাজি করতে করতে তার বাড়িতে গিয়ে ঢুকে পড়ে।তাকে পিস্তল দেখিয়ে অপহরন করার চেষ্টা করা হয়। চিৎকার চেঁচামেচিতে গ্রামের প্রচুর মানুষ জড় হলে গেলে ওই দুষ্কৃতীরা ফের বোমবাজি করে পালিয়ে যায়।বিষ্টু সিং এদিন সংবাদ মাধ্যমকে জানান তিনি এলাকার পাঁচজন তৃণমূল কর্মীর বিরুদ্ধে আদালতে লিখিত অভিযোগ করেছেন। অন্যদিকে তৃণমূলের পক্ষ থেকে পাল্টা অভিযোগ বিষ্টু সিং গত ২১ জুলাই কলকাতায় তৃণমূলে যোগ দিয়েছিল। পুজোর আগে তাকে বিজেপির লোক জন তুলে নিয়ে গিয়েছিল যাতে সে তৃণমূল না করে।পুজার সময় গ্রাম ফিরেছিল। রবিবারের ঘটনার সাথে বিজেপির লোকেরাই জড়িত।অন্য দিকে বিজেপির পঞ্চায়েত সদস্য বিষ্টু সিং জানান “ আমি বিজেপি থেকে দাঁড়িয়ে জিতেছি।আমি বিজেপিতেই আছি।তৃণমূলের লোকজন আমাকে ক্রমাগত হুমকি দিচ্ছিল। আমি যাই নি।আমার স্বামীকে জোর করে কলকাতায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। রবিবার রাতে দশ বারো জন লোক গাড়িতে করে এসেছিল।বোম ফাটিয়ে আমাদের ঘরে ঢুকে যায়।আমাকে পিস্তল দেখিয়ে ভয় দেখায়।আমি ভয়ে পাড়ার অন্য একজনের বাড়িতে পালাই।ততক্ষনে চিৎকারে গ্রামের অনেক মানুষ জমে যায়। তখন ওই দুষ্কৃতীরা বোম ফাটিয়ে গাড়িতে করে পালায়।আমাকে অপহরনের চেষ্টা করা হয়েছিল।আর এর সাথে জড়িত স্থানীয় তৃণমূলের লোকজন।আমি এলাকার পাঁচজন তৃণমূল কর্মীর বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ জানিয়েছি।” অন্যদিকে নেদাবহড়া অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি গুরুপদ মাহাতো বলেন“ এই ঘটনার সঙ্গে অঞ্চল তৃণমূলের কোন সম্পর্ক নেই।এটা বিজেপির নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্ব।ওই সদস্য তো তৃণমূলে যোগ দিয়েছিল।এটা পুরোপুরি বিজেপির নিজেদের মধ্যে গন্ডগোল।” এবিষয়ে বিজেপির জেলা সভাপতি সুখময় শতপথী বলেন " শাসক দল এখনো পর্যন্ত বোর্ড গঠন করছে না। তারা ভয় দেখিয়ে প্রার্থীদের ভাঙ্গানোর চেষ্টা করছে তৃণমূল। প্রশাসন এবিষয় গুলি নিয়ে সঠিক ভাবে তদন্ত করুক"।হিন্দুস্থান সমাচার / গোপেশ
image