Hindusthan Samachar
Banner 2 गुरुवार, नवम्बर 22, 2018 | समय 15:56 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

প্রতিবাদটা ছিল শব্দের দাপটের, দীপকের মৃত্যু এখনও ভুলতে পারেনি পরিবার

By HindusthanSamachar | Publish Date: Nov 6 2018 2:18PM
প্রতিবাদটা ছিল শব্দের দাপটের, দীপকের মৃত্যু এখনও ভুলতে পারেনি পরিবার
হুগলী, ৬ নভেম্বর (হি.স.): প্রতিবাদটা ছিল শব্দের দাপটের, অার সেই শব্দের দাপট থামাতে গিয়েই প্রাণ দিতে হয়েছিল তাঁকে। কালীপুজোর দিনই শব্দ বাজির প্রতিবাদ করে শহিদ হয়েছিলেন দীপক দাস। শ্রীরামপুরের পিয়ারাপুর গ্রামের যুবক দীপকের পরিবার সেই কথা আজও ভুলতে পারেনি। ১৯৯৭ সালে এমনই এক কালীপুজোর রাতে শব্দ বাজি পোড়ানোর প্রতিবাদ করেছিল দীপক। কিন্তু, সেই প্রতিবাদটাই যে তার প্রাণ কেড়ে নেবে তা কেই ভাবেনি। কালীপুজোর পরদিন সকালে প্রতিদিনের মতো দুধ নিয়ে যাওয়ার সময় বাড়িরই অদূরে তাকে বেশ কয়েকজন মিলে পিটিয়ে হত্যা করে। সে দিনের এই ঘটনা এখনও নাড়া দেয় পিয়ারাপুর গ্রামের মানুষকে।দীপকের বৃদ্ধা মা এখন অসুস্থ। তাই ছেলের কথা বললেই সে বাকরুদ্ধ হয়ে যায়। সে দিনের ঘটনা ভুলে যেতে যান তারা, তাই তার নিকট আত্মীয়রা এ ব্যাপরে কিছুই বলতে চাননা। দীপকের মৃত্যুতে যারা অভিযুক্ত ছিল বেশ কয়েকদিন পুলিশি হেফাজতে থাকার পর তারা বেকসুর খালাস হয়ে যায়। তাই তাদের শাস্তি অার হয়নি। তবে, দীপক দাসের এক আত্মীয় সে দিনের ঘটনায় আজও আতঙ্কিত। হিন্দুস্থান সমাচারের প্রতিনিধিকে তিনি বলেন, ওরা গরিব তাই অাদালতে গিয়ে এতো টাকা খরচ করার সামর্থ ওদের ছিল না। তাই যা হওয়ার তাই হয়েছিল। এখনও ওরা দিব্যি ঘুরে বেরাচ্ছে। সেই কারণে পরিবারের কিছুটা অভিমান হয়ত আছে এখনও। এখনও রাত হলে এলাকার যুবকরা বাইরে থাকতে ভয় পায়। এবার শব্দ বিধি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন শব্দ শহিদের আত্মীয় থেকে প্রতিবেশীরা। সেই সময় শব্দ বাজি নিয়ে কড়াকড়ি থাকলে আর প্রশাসন সক্রিয় থাকলে হয়ত এ ধরনের ঘটনা ঘটত না। বাজি পোড়ানোয় পরিবেশ দূষন আর মানুষের অসুবিধার কথা মাথায় রেখে উৎসব আনন্দ করা উচিত বলেও মনে করেন তারা। এর মধ্যেও তাদের অার্জি শব্দ বাজি থাক নিজের সিমাবদ্ধে। অার যেন ভবিষ্যতে কোনও দীপককে এই ভাবে প্রাণ না দিতে হয়। হিন্দুস্থান সমাচার/ শমিত/ রাকেশ
image