Hindusthan Samachar
Banner 2 मंगलवार, नवम्बर 20, 2018 | समय 13:35 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

কালীপুজোয় ভূতেদের গল্প টলি অভিনেত্রীদের

By HindusthanSamachar | Publish Date: Nov 6 2018 6:27PM
কালীপুজোয় ভূতেদের গল্প টলি অভিনেত্রীদের
কলকাতা, ৬ নভেম্বর (হি.স.): কালীপুজো মানেই আলোর রোশনাই,বাজির ফোয়ারা । তবে, এত আলো বাজির মধ্যেও কালী পুজোর রাতে দেখা মেলে তেনাদের । কিন্তু, তাঁদের সঙ্গে বাঙালির প্রেম নেহাত কম নয় । আসলে ঠিক তাঁরা নয়, তেনারা । সেই তেনাদের কেউ চোখে দেখেছেন আবার কেউ তেনাদের গল্প শুনেছেন । কালীপুজোর রাতে সেরকমই বেশ কিছু গল্প শোনালেন টলি অভিনেত্রীরা । হাড়হিম করা ভূতুড়ে অভিজ্ঞতাই শুধু নয়, ভূতের রাজার থেকে বরও চেয়ে নিলেন ইন্দ্রাণী হালদার, নুসরত জাহান, অপরাজিতা আঢ্যরা । এনাদের মতোই ভূতুড়ে কাণ্ড নিয়ে মুখ খুললেন টেলিভিশনের তিন কন্যা ঐন্দ্রিলা, দিতিপ্রিয়া ও ঊষসী রায়। শুটিং করতে গিয়ে গা ছমছমে পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছিলেন ইন্দ্রাণী হালদার । এমন পরিস্থিতি হয়েছিল যে তল্পিতল্পা গুটিয়ে পালাতে বাধ্য হয়েছিলেন তিনি । ‘অংশুমানের ছবি’ শুটিং করতে বর্ধমান রাজবাড়িতে গিয়েছিলেন অভিনেত্রী । ওখানেই রাত কাটতে হয়েছিল তাঁকে । অভিনেত্রী জানান, ''ঘুমোচ্ছি আচমকাই মনে হচ্ছে কেউ একজন পাশে দাঁড়িয়ে আছে । সাংঘাতিক ভয় পেয়েছিলাম । তারপর আর নয় তল্পিতল্পা গুটিয়ে পালিয়েছিলাম সেখান থেকে''। ভূতের রাজার থেকে বর চান, ইন্দ্রাণী । বললেন, ''ভূতেরা বর দিতে চাইলে ভালবাসতে শুরু করব ভূতেদের । তবে চাইব যে পৃথিবীটা যেন আরও সুন্দর হয়''। দেখতে সাহসী হলেও ভূতে মারাত্মক ভয় পান ঐন্দ্রিলা । অর্থাৎ ''ফাগুন বউ''-র মহুল । তিনি জানান, ''তখন অনেক ছোটো ছিলাম । আমার পাড়ায় একজন আত্মহত্যা করেছিলেন । প্রথম দিকে ওঁনার শ্রাদ্ধশান্তি করা হয় নি । সে সময় সন্ধের পর ওঁনার বাড়ির পাশ থেকে একটা গন্ধ পেতাম । একবার বন্ধুদের সঙ্গে সাইকেল চালিয়ে ফিরছিলাম । হঠাৎ যেন মনে হল পিছন থেকে সাইকেলটা কেউ চেপে ধরেছে, চালাতে পারছি না । ৫-৭ সেকেন্ডের জন্য এটা মনে হয়েছিল । তারপর জ্বর জ্বর হয়েছিল'' । অভিনেত্রীর ধারনা সেটা ভূতই ছিল । ঐন্দ্রিলার মতো ভূতের কথা শুনলেই ভয় পায় এরকম আরও একজন আছেন । তিনি হলেন টেলিভিশনের ‘রানি রাসমণি’। অর্থাৎ দ্বিতিপ্রিয়া রায় । শান্তিনিকেতনে গিয়ে গতবছর এক হাড়হিম করা ঘটনার মুখোমুখি হতে হয়েছিল তাঁকে । এ প্রসঙ্গে দ্বিতিপ্রিয়া জানান, ''গত বছর রানি রাসমণি-র প্রোমো শুটের জন্য শান্তিনিকেতন গিয়েছিলাম । হোটেলের ৮নং ঘরে উঠেছিলাম । হোটেলের ঘর কেমন তা দেখার জন্য আমিই একা আগে ঢুকেছিলাম । ঘর লাগোয়া একটা ব্যালকনি ছিল । সেই ব্যালকনির দরজা বন্ধ করা ছিল । ব্যালকনির দরজায় পর্দায় হাত দিতেই কে যেন বলে উঠল, দরজায় কেউ হাত দেবে না’। ছোটপর্দার ''রানি আবার বলেন, ''প্রথমে মনে হয়েছিল, হয়তো অন্য কোথাও কেউ কথা বলছেন । তাই পাত্তা দিই নি। এরপর আমরা কাছাকাছি এক আত্মীয়ের বাড়িতে যাই । সেখান থেকে রাত ১০টার সময় ফিরে আসি । তখনও ওই দরজায় হাত দিতে ওই একই কথা শুনতে পাই'' । সেখানে উপস্থিত ছিলেন তাঁর মা, মেক-আপ আর্টিস্ট, হেয়ার ড্রেসারও । ওঁরাও শুনতে পান সেই শব্দ । আলো জ্বালাতেই বন্ধ হয়ে যায় সেই আওয়াজ বলেন তিনি । ব্যাখ্যার বাইরেও জীবনে অনেক কিছু হয় । একথা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন টলিপাড়ার অভিনেত্রী অপরাজিতা আঢ্য । ভূতের কথা বলতেই অভিনেত্রী বলেন ''আমি মাধ্যমিক দেব। রাতে বাড়িতে একা পড়ছি । হঠাৎ যেন মনে হল, দরজা খুলে কেউ ঘরের মধ্যে ঢুকল, তারপর বাথরুমে জল ঢালল । ভাবলাম বাবাকে হাসপাতাল থেকে দেখে মা বাড়ি ফিরল । কিন্তু বেরিয়ে দেখলাম কেউ নেই । হঠাৎ হঠাৎ মনে হত, কেউ যেন পাশে দাঁড়িয়ে আছে । তাছাড়া আমাদের ওপরের ঘরে প্রচুর বাসনপত্র রাখা ছিল । আওয়াজ পেতাম, কেউ যেন বাসন টেনে টেনে বার করছে । এটা প্রচন্ড হত, বাবা মারা যাওয়ার পর এসব বন্ধ হল'' । ভূত আছে কিনা, তা নিয়ে সংশয় টলিপাড়ার এই মুহূর্তের প্রথম সারির নায়িকা নুসরত জাহান । তাঁর বক্তব্য, ''আমি লাকি যে কখনও এরকম কিছু বুঝিনি''। ভূতের অস্তিত্ব আছে কিনা সেটাই জানেন না তিনি । নুসরতের সঙ্গে একমত ছোটপর্দার বকুল, মানে ঊষসী রায় । তিনি জানান ''সত্যি কথা বলতে কী, আমার সঙ্গে এখনও ভয়ের কিছু ঘটেনি'' । এই টেলিকন্যাকে নাকি ভূত সাহায্য করে ! ঊষসী বললেন, ''আমার জন্য ভূত ভাল হয়, ওরা সবসময় আমায় সাহায্য করে । যদিও ভূতের সিনেমা দেখতে বা গল্প পড়লে ভয় লাগে । তবে আগে যখন নাইট শুট হত, তখন অনেক সময় একা থাকতাম ফ্লোরে, কোনও কিছু ফিল করিনি । বরং মনে হয়েছে কেউ যেন আমায় সাহায্য করছে''। বলা ভাল, এখনও তেনাদের নিয়ে কথা হলে ‘রাম রাম’ করতে করতেই বাঙালি কান খাড়া করে । ভূতে ভয় পান না, এমন বাঙালির সংখ্যাও নেহাতই কম । আবার অনেকেই গুপি-বাঘার ভূতের রাজার থেকে বর পাওয়ার স্বপ্ন দেখেন । কালী পুজোর রাতে তেনাদের নিয়েই নানান কাহিনী শোনালেন টলিপাড়ার অভিনেত্রীরা । হিন্দুস্থান সমাচার / পায়েল / হীরক
image