Hindusthan Samachar
Banner 2 सोमवार, नवम्बर 19, 2018 | समय 20:49 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

জঙ্গলমহলের ঘরে ঘরে পালিত হচ্ছে বাঁদনা পরব উৎসব

By HindusthanSamachar | Publish Date: Nov 7 2018 7:00PM
জঙ্গলমহলের ঘরে ঘরে পালিত হচ্ছে বাঁদনা পরব উৎসব
ঝাড়্গ্রাম, ৭ নভেম্বর ( হি. স.) : পরম্পরা গত ভাবে প্রাগঐতিহাসিক যুগের স্বাক্ষ্য আজও বহন করে চলেছে বাংলা বিহার ঝাড়খন্ড প্রদেশের আপামর জনসাধারণের ইতিহাসের সাক্ষি বাঁধনা পরব। এই পরবকে ঘরেই উদবেলিত জনতার ভিড় উপচে পড়ে গাঁ গঞ্জে এলাকায়। কয়েক শতাব্দী ধরে সীমান্তভূমের রাঢ ভূমের সাধারন মানুষের কাছে এ এক চিরাচরিত প্রথা। ফি বছর প্রথা অনুযায়ী গোরুর সিং এ তেল দিয়ে, গরুর শরীরের নানা রং এর আলপনা এঁকে, পিঠে, পুলি, পায়েস সহযোগে পুজো করার রেওয়াজ অনন্তকাল ধরে চলে আসছে। এই পুজো করার রেওয়াজকে বলা হয় বাঁধনা পরব। এই উৎসবকে ঘিরে গোটা জঙ্গলমহল জুড়ে আনন্দ উদ্দীপনার কোনও খামতি থাকে না। গোরুকে গো মাতা রুপে পুজন করা হয়। দীপাবলীর পূর্ণক্ষনে জঙ্গলমহলে। কালীপূজোর রাত থেকেই জঙ্গলমহলের গ্রামে গ্রামে ঢোল, ধমসা সহ বাদ্যযন্ত্র নিয়ে ঘরে ঘরে গোরু জাগানোর উৎসবে মেতে উঠেন এলাকার আমজনতা। কালীপূজোর পরের দিন প্রত্যেক ঘরে গো মাতাকে গোয়ালঘরে পুজিত করা হয়। এবং তারপরের দিন বিভিন্ন খেলার মাঠে গোরুরি খেলানো হয়। যার পোষাকি নাম গরু খুটান। এই উৎসবকে ঘিরে মেতে থাকন আদিবাসী ও কুর্মী, মাহাত সমাজের মানুষজনেরা। এবিষয়ে লোক সংস্কৃতির গবেষক সুব্রত মুখ্যোপাধ্যায় বলেন, বাঁধনা পরব শব্দটা এসেছে বাঁধন থেকে যেহেতু গোরুকে বাঁধে করে খুটানো হয় তার জন্য বলা হয় বাঁধনা পরব। এছাড়াও আর্যারা গোরুকে গো মাতা বলতেন, এবং প্রাচীন রোম ও গ্রীসেও গোরুকে সন্মান জানানো হয়। এছাড়াও আমরা গরুকে ভগবান রূপে পুজো করে থাকি। তাই এক কথাই বলা যায় গরুকে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে পুজো করা হয়। কারণ ফসল তোলার আগে গরুকে এই বিশেষ সন্মান জানানো হয়।হিন্দুস্থান সমাচার / গোপেশ
image