Hindusthan Samachar
Banner 2 शनिवार, नवम्बर 17, 2018 | समय 10:28 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

চেলাই কারবারী সন্দেহে আদিবাসী মহিলার বাড়িতে হামলা, প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ

By HindusthanSamachar | Publish Date: Nov 9 2018 5:24PM
চেলাই কারবারী সন্দেহে আদিবাসী মহিলার বাড়িতে হামলা, প্রতিবাদে রাস্তা              অবরোধ
চন্দ্রকোনা, ৯ নভেম্বর (হি.স.) : এলাকায় চোলাই তৈরী করে কেউ বা কারা বিক্রি করছিল কয়েকদিন ধরে ৷ চোলাই কারোবারী ও মাতালদের তান্ডবে অতিষ্ট হয়ে পড়ছিল এলাকার বাসিন্দারাও ৷ তাই চোলাই প্রস্তুত কারী সন্দেহে এক আদিবাসী মহিলার বাড়িতে চড়াও হয়ে ভাঙ্গচুর চালাল অপর একদল স্থানীয় মাহিলা ৷ বাড়ির মালিক ওই আদিবাসী মহিলা ও তাঁর মেয়েকে মারধর করে ভাঙ্গচুর করার অভিযোগ উঠেছে স্বসহায়ক দলের ওই প্রমীলা বাহিনীর বিরুদ্ধে ৷ বাড়িতে রাখা হাঁড়িয়া ও প্রস্তুত করার সামগ্রীও নষ্ট করা হয়েছে বলে অভিযোগ ৷ এরই প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখালেন একদল আদিবাসী ৷ পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে পুলিশ ৷ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুরের শীর্ষা গ্রামের ৷ এলাকায় চোলাই কারোবারের দাপটে অতিষ্ট হয়ে উঠেছিল শীর্ষা গ্রামের গ্রামবাসীরা ৷ দিনের পর দিন মাতালের সংখ্যা বাড়ছিল ৷ তাই চোলাই কারোবারীদের বিরুদ্ধে অভিযানে নেমেছিল স্থানীয় শীর্ষা সারোদা নামক স্বসহায়ক দলের মহিলারা ৷ শুক্রবার সকাল থেকে একের পর এক সন্দেহজনক চোলাই ঠেক ভাঙ্গতে ভাঙ্গতে চন্ডী মান্ডী নামের এক আদিবাসী মহিলার বাড়িতে হাজির হয়েছিল তারা ৷ তার বাড়িতে চোলাই মদ তৈরী হয় এই সন্দেহে মহিলার বাড়িতে ঢুকে হাঁড়িতে রাখা হাঁড়িয়া নষ্ট করে বিভিন্ন পাত্র ভেঙ্গে ফেলা হয় বলে অভিযোগ।ওই সময় বাধা দিতে গেলে বাড়ির গৃহকর্তী চন্ডী মান্ডী সহ তার মেয়ে মধূমিতা মান্ডী কেও মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। পরে আহত দুজনকেই স্থানীয় চিকিৎসা কেন্দ্রে চিকিৎসা করানো হয়।চন্ডী মাণ্ডি বলেন “গ্রুপের নয়জন মহিলার নেতৃত্বে চোলাই ঠেক ভাঙ্গার নামে এই ধরনের ঘটনা ঘটায়। আমার বাড়িতে মদ নাই বললেও শোনেনি৷ প্রতিবাদ করতে আমার মেয়ে ও আমাকে মেরেছে ওরা ৷” এই ঘটনায় গ্রামের আদিবাসী পাড়ায় উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।খবর যায় ভারত জাকাত মাঝি পরগনা সংগঠনের ঘাটাল পরগনা শাখায়।খবর চাউর হতেই ওই গ্রামে জমায়েত হয় ওই সংগঠনের নেতৃত্ব থেকে প্রচুর সদস্য।প্রতিবাদে ঝাঁকরা থেকে কেচকাপুর গ্রামীন সড়ক অবরোধ হয়। রাস্তা আটকে বসে পড়ে সংগঠনের সদস্যরা।অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবীতে চলে অবরোধ।পরে চন্দ্রকোনা থানার ওসির নেতৃত্বে গ্রামে পৌঁছয় বিশাল পুলিশ বাহিনী।নয় জন এর নামে চন্দ্রকোনা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়।পুলিশের আশ্বাসে কয়েক ঘন্টা পরে দুপুর নাগাদ অবরোধ ওঠে।সংগঠনের তরফে পুলিশকে জানানো হয় দ্রুত অভিযুক্তরা ধরা না পড়লে কয়েকদিনের মধ্যে ঝাঁকরা সড়ক অবরুদ্ধ করা হবে। এবিষয়ে ওই সংগঠনের নেতা মনোরঞ্জন মর্ম্মূ বলেন “চোলাইয়ের বিরুদ্ধে আমরাও, কিন্তু বাঁধনা পরবের ভোগ হিসাবে হাঁড়িয়া ব্যবহার করা হয় ৷ এটা বলা সত্বেও কেনো ভাঙ্গচুর এবং মারধোর ৷ আমরা এর প্রতিবাদ জানাচ্ছি।” এই কান্ডের জেরে এলাকা থমথমে রয়েছে ৷ আদিবাসীদের সামাল দিলেও উত্তেজনা থাকায় পুলিশি টহল রাখতে হয়েছে। হিন্দুস্থান সমাচার/হেনা/সোনালী
image