Hindusthan Samachar
Banner 2 बुधवार, मार्च 27, 2019 | समय 02:06 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

তৃণমূল জোর করে ধর্মঘট বানচাল করেছে: সুজন

By HindusthanSamachar | Publish Date: Jan 9 2019 6:43PM
তৃণমূল জোর করে ধর্মঘট বানচাল  করেছে: সুজন
কলকাতা, ৯ জানুয়ারি (হি.স) : তৃণমূলের লোকজন জোর করে ধর্মঘট বানচালের চেষ্টা করেছে বলে বুধবার অভিযোগ করেন বাম পরিষদীয় দলের নেতা সুজন চক্রবর্তী। দ্বিতীয় দিনে ধর্মঘটের প্রভাব কলকাতায় পড়েনি, সে কথা স্বীকার করে নেন তিনি। বলেন, ‘কলকাতায় যানচলাচল স্বাভাবিক। মানুষ আর পাঁচটা দিনের মতোই পথে নেমেছে। তাঁদের তরফে যানবাহন আটকানোর কোনওরকম চেষ্টা করা হয়নি। অনেকে ভয়ে রাস্তায় নেমেছে। তবে অনেক মানুষ আজও ধর্মঘটের কারণে পথে নামেনি। কিন্তু, দক্ষিণ ও উত্তরবঙ্গে ধর্মঘট সফল। গতকাল থেকেই সেখানে বন্ধ যানবাহন। মানুষ ধর্মঘট সমর্থন করেছে। চাবাগান বন্ধ। শ্রমিকরা কাজে যায়নি’। এরপরেই গতকালের মতই ফের যাদবপুর ৮বি বাস স্ট্যান্ডের কাছে পুলিশের সঙ্গে ধ্বস্তাধ্বস্তি বেঁধে যায় বনধ সমর্থকদের। গ্রেফতার হন সিপিআইএম নেতা সুজন চক্রবর্তী সমেত বেশ কিছু বাম কর্মী। ধর্মঘটের সমর্থনে তিনি মিছিল করতে যান। বাধা দেয় পুলিশ। পুলিশের তরফে বলা হয়, মিছিল করতে দেওয়া হবে না। পুলিশের এই বাধা মানতে চাননি উপস্থিত বাম কর্মী-সমর্থকরা। তাঁরা পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে মিছিল করতে যান। তখন দু''পক্ষের মধ্যে ধস্তাধস্তি শুরু হয়। আটক করা হয় সুজন চক্রবর্তী ও তাঁর অনুগামীদের। সুজন চক্রবর্তী সহ প্রায় ২০ জনকে আটক করা হয়েছে । তাঁদের লালবাজার নিয়ে যাওয়া হয়। গতকাল যাদবপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছিল সুজন চক্রবর্তীকে। গ্রেফতার হবার আগে সুজন চক্রবর্তী জানান, যারা এই ধর্মঘট সফল করছে না তারা কেন্দ্রীয় সরকারের হাত শক্ত করছে । তাঁর কথায়, ‘কেন্দ্রের জনবিরোধী নীতির বিরুদ্ধে এই ধর্মঘট । সাধারণ মানুষ ধর্মঘটকে সমর্থন করছে । কিন্তু. তৃণমূল তার বিরোধিতা করছে । আসলে তারা বিজেপির সঙ্গে রয়েছে । বিজেপির হয়ে রাস্তায় নেমেছে প্রশাসন ও তৃণমূল। না হলে ধর্মঘট বানচাল করার চেষ্টা করত না’। গতকাল মৌলালিতে, নীলরতন সরকার হাসপাতালের কাছ থেকে গ্রেফতার করা হয়েছিল সিটু নেতা অনাদি সাহু-সহ ১৬ জন বনধ সমর্থক । বেলা বাড়তেই গ্রেফতারের সংখ্যা বাড়তে থাকে। তাই খুব কৌশলেই আজ সকাল থেকে মিছিল শুরু করে বামেরা । গ্রেফতারি এড়াতে প্রধান সড়কে নয় বরং শহরের অলি-গলিতে বামেদের মিছিল বেরোয় । এর ফলে, পুলিশের মুখোমুখি হতে হয়নি মিছিলে অংশগ্রহণকারী বাম সমর্থকদের । মিছিলে অংশগ্রহণকারী এক সমর্থক জানান, গ্রেফতার হওয়া ধর্মঘটের লক্ষ্য নয় । এই বনধ সাধারণ মানুষের, খেটে খাওয়া শ্রমিকের জন্য । সকালে ট্রেন চলাচল কিছুটা ব্যাহত হলেও, ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনে মোটের উপর সচল শহর । সকাল থেকেই সজাগ কলকাতা পুলিশ । শহরজুড়ে কমপক্ষে তিন হাজার পুলিশের নজরদারি চলছে । সবচেয়ে বেশি পুলিশ মোতায়েন করা হয় শ্যামবাজার মোড়ে। কারণ, সেখানেই বাম সংগঠনগুলি মিছিল করবে বলে খবর । বাড়ানো হয় মহিলা পুলিশও । আজ সকালে ধর্মঘটের প্রভাবে কিছুক্ষণের জন্য শিয়ালদহ-লক্ষ্মীকান্তপুর শাখার ট্রেন চলাচল ব্যাহত হয় । একটু পরেই স্বাভাবিক হয় ট্রেন চলাচল । সকাল থেকে হাওড়ায় সমস্ত লাইনে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক । হিন্দুস্থান সমাচার / হীরক/ সঞ্জয়
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image