Hindusthan Samachar
Banner 2 गुरुवार, मार्च 21, 2019 | समय 15:09 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় উত্তেজনা ঝাড়গ্রামে

By HindusthanSamachar | Publish Date: Jan 10 2019 7:49PM
গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় উত্তেজনা ঝাড়গ্রামে
ঝাড়্গ্রাম, ১০ জানুয়ারি ( হি. স.) : গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্রে করে ব্যাপক উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। উত্তেজিত জনতা বাড়ি ঘড় ভাঙ্গচুরের পাশাপাশি একটি বাইকে আগুন ধরিয়ে দেয়। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছালে পুলিশ ঘিরেও বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন বাসিন্দারা। পরে ঝাড়্গ্রামের এসডিপিও দীপক সরকারের নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে গিয়ে উত্তেজিত জনিতার সাথে কথা বলে সমস্যার সমাধান করে মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় গৃহবধূর স্বামী, শ্বশুর ও শ্বাশুড়িকে গ্রেপ্তার করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়্গ্রাম জেলার সাঁকরাইল ব্লকের বন্যা গ্রামে। পুলিশ জানিয়েছে মৃত ওই গৃহবধুর নাম ঝুম্পা দে (২৮)। পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গিয়েছে এদিন সকালে ঝুম্পা দেবীর নিজের বাড়িতে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে তার পরিবারের লোকজনেরা। যদিও স্থানীয় মানুষজন ও তার বাপের বাড়ির লোকজনদের অভিযোগ ঝুম্পাদেবীকে আগে খুন করে পরে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। বিয়ের পর থেকেই নানা কারণে, অকারণে মানষিক ও শারীরিক ভাবে অত্যাচার চালাতো তাঁর শ্বশুর ও শ্বাশুড়ি। যার ফলে মাঝে মধ্যেই বাপের বাড়ি পালিয়ে যেতেন তিনি। ঝুম্পা দেবীর বাপের বাড়ির অভিযোগ এর আগে একাধিকবার পারিবারিক অশান্তির জন্য শ্বশুরবাড়ি থেকে পালিয়ে এসেছিল। এর আগে গত কয়েক বছর আবার একবার অশান্তি চরমে উঠেছিল ওই সময় ঝুম্পাদেবী নিজেই গলায় ফাঁস লাগানো চেষ্টা করছিলেন যদিও ওই সময় গ্রামবাসীদের চেষ্টায় রক্ষা করা গিয়েছিল। ওই সময় থানায় অভিযোগ জানানো হয়েছিল। পরে তা আলোচনার মাধ্যমে সমাস্যার সমাধান করা হয়েছিল। পরে এদিন সকালে বাড়িতে ঝুম্পা দেবীর গলায় ফাঁস লাগানোর খবর চাউর হতেই খুনের অভিযোগ তুলে উত্তেজিত জনতা ভাঙ্গচুর শুরু করেন তাঁর স্বামী গৌতম দের বাড়িতে। স্থানীয় সুত্রে জানা গিয়েছে গত এগারো থেকে বারো বছর আগে পাশের গ্রামের নিশ্চিন্তা গ্রামের বাসিন্দা স্বপন মাইতির মেয়ে ঝুম্পা মাইতির সাথে বিয়ে হয়। তাদের একটি বছর আটের কন্যা সন্তানও রয়েছে। এদিকে পুলিশ ঝুম্পা দেবীর বাবা স্বপন মাইতির অভিযোগের ভিত্তিতে তাঁর স্বামী গৌতম দে, শ্বশুর মৃত্যুঞ্জয় দে ও শ্বাশুড়ি কাজল দে কে গ্রেফতার করেছে। এবং এদিন দুপুর নাগাদ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঝাড়্গ্রাম জেলা হাসপাতালে পাঠিয়েছে। এবিষিয়ে ঝাড়্গ্রামের পুলিশ সুপার অরিজিৎ সিনহা বলেন, মেয়ের বাবার অভিযোগের ভিত্তিতে তার স্বামী, শ্বশুর ও শ্বাশুড়িকে গ্রেফতার করছে পুলিশ।হিন্দুস্থান সমাচার / গোপেশ
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image