Hindusthan Samachar
Banner 2 शनिवार, जनवरी 19, 2019 | समय 16:16 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

(লিড)কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তোপ মমতার, আয়ুষ্মান প্রকল্প থেকে সরে দাঁড়ানো ঘোষণা, সমালোচনায় সরব রাহুল-দিলীপ

By HindusthanSamachar | Publish Date: Jan 10 2019 9:52PM
(লিড)কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তোপ মমতার, আয়ুষ্মান প্রকল্প থেকে সরে দাঁড়ানো ঘোষণা,  সমালোচনায় সরব রাহুল-দিলীপ
কৃষ্ণনগর, ১০ জানুয়ারি (হি.স.) : প্রতি রাজ্যে সমান্তরাল সরকার চালাচ্ছে কেন্দ্র। বৃহস্পতিবার নদিয়ার প্রশাসনিক মঞ্চের সভা থেকে কড়া ভাষায় কেন্দ্র সরকারকে সমালোচনা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুধু তাই নয়, এই অভিযোগ তুলে কেন্দ্রীয় সরকারের আয়ুষ্মান প্রকল্প থেকে রাজ্যের সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্তও নিলেন তিনি। এদিন রাগে প্রধানমন্ত্রী মোদীর তুলনা টানলেন হিটলার, মুসোলিনির সঙ্গে। মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, "হিটলার, মুসোলিনি, চেঙ্গিস খানের থেকেও খারাপ মোদী।" মোদীর মুখ আর পদ্মফুলের লোগো লাগানো চিঠি ভোটের আগে পৌঁছে যাচ্ছে বাড়ি বাড়ি। আর যা দেখে এদিন একের পর এক তোপ ছুঁড়লেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা। তিনি অভিযোগ করেন, সরকারি টাকায় দেদার প্রচার চলছে দলের। এদিন নদিয়ার প্রশাসনিক জনসভা থেকে মোদী সরকারের সমালোচনা করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, "নোংরা রাজনীতি চলছে। সরকারি টাকায় চলছে কেন্দ্রের উন্নয়ন প্রকল্প। অথচ, দলের লোগো লাগানো চিঠি দিয়ে নিজেদের ঢাক পেটাচ্ছে বিজেপি।" তিনি আরও অভিযোগ করেন, রাজ্যগুলিকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দেওয়া হচ্ছে না। মোদী সরকারের লক্ষ্য দেশের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় আঘাত হানা। যার প্রতিবাদে এদিন কেন্দ্রের স্বাস্থ্য প্রকল্প আয়ুষ্মান থেকে সরে দাঁড়ানোর কথা ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন নদিয়ায় প্রশাসনিক সভায় উপলক্ষ্যে কন্যাশ্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন তিনি। রাজ্য সরকারের প্রকল্পের কেন্দ্রের হস্তক্ষেপে তীব্র প্রতিবাদ করে মমতা বলেছেন, রাজ্যের টাকা নিয়ে দালালি করছেন মোদী। একাধিক সরকারি প্রকল্পে টাকা দিচ্ছে রাজ্য সরকার, আর কৃতিত্ব নিয়ে যাচ্ছে কেন্দ্র। প্রচার করা হচ্ছে কেন্দ্র সরকার টাকা দিচ্ছে। প্রতিবাদে তাই আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পে রাজ্য সরকার টাকা দেবে না বলে ঘোষণা করেছেন তিনি। মমতা অভিযোগ করেন, চাষিদের বিমা দিচ্ছে রাজ্য সরকার। আর কেন্দ্র তার কৃতিত্ব দাবি করছে। এমনকী রাজ্যের আইনশৃঙ্খলাচতেও হস্তক্ষেপ করছে কেন্দ্র সরকার। যা কোনও ভাবেই বরদাস্ত করা হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। সংরক্ষণ নিয়েও মোদী সরকার রাজনীতি করছে বলে অভিযোগও করেন তিনি। ৫০ শতাংশ সংরক্ষণকে ৬০ শতাংশে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এতে ক্ষতি হয়েছে উচ্চবর্ণের মানুষেরই। এতদিন ৫০ শতাংশ জায়গা সাধারণদের জন্য বরাদ্দ ছিল। তাতে ১০ শতাংশ কমে যাওযায় আরও বেশি চাকরির সংকট তৈরি হবে। যাঁদের সত্যি চাকরির প্রয়োজন তাঁরা চাকরি পাবেন না। এমনই অভিযোগ করেছেন তিনি। অভিযোগ করে মমতা বলেন, ভোটের আগে ভাঁওতা, প্রহসন আর লুটের রাজনীতি চালাচ্ছে কেন্দ্রের মোদী সরকার। রাজ্য থেকে টাকা কেটে নিয়ে গেলে তার ভাগ রাজ্য সরকারকে দিতে হবে বলে দাবি তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিন নদিয়ার প্রশাসনিক মঞ্চের সভা থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর মন্তব্যকে কড়া ভাষায় সমালোচনা করলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা রাহুল সিনহা। এদিন নদিয়ার প্রশাসনিক মঞ্চের সভা থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে রাজ্যে সমান্তরাল সরকার চালানোর অভিযোগকে নস্যাৎ করে তিনি পালটা অভিযোগ করেন, “মমতা সরকার কি কেন্দ্রীয় সরকারকে উপেক্ষা করে সমান্তরাল রাষ্ট্র চালাচ্ছেন? দেশের যুক্ত রাষ্ট্রীয় কাঠামোর মধ্যে থেকে কেন্দ্রীয় সরকারকে উপেক্ষা করা দেশের সংবিধানকে অমান্য করা।” তিনি আরও অভিযোগ করে বলেন, “রাজ্যেবাসী তাঁকে নির্বাচিত করে মুখ্যমন্ত্রী করেছেন।তিনি ভুলে গেছেন, কেন্দ্রীয় জনমুখী প্রকল্পগুলো অস্বীকার করে তিনি রাজ্যেবাসীর ক্ষতি করেছেন। আর তার মাশুল দিতে হচ্ছে রাজ্যেবাসীকেই।” মুখ্যমন্ত্রী জেদের কারণে ক্ষতির মুখে রাজ্যেবাসীই পড়ছেন বলে তিনি অভিযোগ করেন। এদিকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের বিজেপির বিরোধিতা ও কেন্দ্রীয় সরকারের ‘আয়ুষ্মান প্রকল্প’এরও বিরোধিতা প্রসঙ্গে বৃহস্পতিবার রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, এই প্রকল্প থেকে রাজ্য সরে দাঁড়াবে | এদিন মুখ্যমন্ত্রীর এই সিদ্ধান্তের তুমুল সমালোচনা করেন তিনি | মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘নিজের রাজনৈতিক স্বার্থে, আয়ুষ্মান প্রকল্প থেকে সরে দাড়িয়ে, রাজ্যবাসীকে স্বাস্থ্যবিমা থেকে বঞ্চিত করছে মুখ্যমন্ত্রী’ | এই বিমা সম্পর্কে তিনি উল্লেখ করে বলেন, এই স্বাস্থ্যবিমার ৬০ শতাংশ টাকা দেবে কেন্দ্রীয় সরকার এবং ৪০ শতাংশ টাকা দেবে রাজ্য সরকার | রাজ্য সরকার এই টাকা দিতে চায় না বলেই এই বিমার বিরোধিতা করছেন, বলেই এদিন মন্তব্য করেন বিজেপি সভাপতি | উল্লেখ্য, ২০১৮-১৯ সালের বাজেট পেশের দিন আয়ুষ্মান স্বাস্থ্য বীমা প্রকল্পের ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। এই প্রকল্প অনুযায়ী, আর্থ-সামাজিক ভাবে পিছিয়ে পড়া শ্রেণি এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন। ‘আয়ুষ্মান ভারত স্বাস্থ্য’ যোজনায় ১০ কোটি পরিবারের প্রায় ৫০ কোটি মানুষকে এই স্বাস্থ্যবীমার সুবিধা দেওয়া হবে। এতে ৫ লক্ষ টাকার স্বাস্থ্যবীমার সুবিধা পাবে প্রতিটি পরিবার। এই প্রকল্পের মাধ্যমে স্বাস্থ্যক্ষেত্রে খরচে কোনও টাকা দিতে হবে না। সরকারি হাসপাতালের সাথে বেসরকারি হাসপাতালেও এই সুবিধা পাওয়া যাবে। অন্যদিকে লোকসভা নির্বাচনের আগে দলের অন্দরে গোষ্ঠীকোন্দল কোনওভাবে বরদাস্ত করা হবে না বলে তৃণমূল কংগ্রেসের নদিয়া জেলার নেতাদের এমনই বার্তা দিলেন তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার কৃষ্ণনগরে কন্যাশ্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিলান্যাস করতে এসে এক সভায় জেলার নেতাদের উদ্দেশ্যে কড়া বার্তা দিলেন তিনি। নদিয়ায় গিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। প্রশাসনিক থেকে দলীয় বৈঠক, সর্বত্র নেতাদের সতর্ক করে দিলেন তিনি। এর আগে শান্তিপুরের দুই যুযুধান নেতা, পুরসভার চেয়ারম্যান অজয় দে ও বিধায়ক অরিন্দম ভট্টাচার্যকে নাম করে বার্তা দেন তিনি। এদিন বার্তা দিয়ে বলেন, এখনই শুধরে না নিলে দলে সমস্যায় পড়তে হবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘তোমরা নিজেরা শোধরাও। আমি কিন্তু রাফ অ্যান্ড টাফ। আমি সব খবর পাই।’ জানা গিয়েছে, দলের জেলা সভাপতি গৌরীশংকর দত্তর কাজ নিয়ে এদিন ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। মন্ত্রী উজ্জ্বল বিশ্বাসের কথাও বাদ দেননি তিনি। যুব সভাপতি তথা বিধায়ক সত্যজিত্ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে সরাসরি নেত্রী ক্ষোভ উগরে দেন। তাকে নির্দেশ দেন লক্ষ্মণ ঘোষকে ব্লক সভাপতি করার জন্য। নাকাশিপাড়ার বিধায়ক কল্লোল খানের এলাকায় বিজেপির বাড়বাড়ন্ত নিয়ে বিধায়ককে সতর্ক করে দেন। তাঁকে জনসংযোগ বাড়ানোর পরামর্শ দেন দলনেত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন স্পষ্ট জানিয়ে দেন, দলে কোনও গোষ্ঠীবাজি বরদাস্ত করবেন না। দলের পুরনো লোকজনকে সম্মান করতে হবে বলেও দলীয় বৈঠকে তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন। হিন্দুস্থান সমাচার/রক্তিমা /সঞ্জয়
image