Hindusthan Samachar
Banner 2 शनिवार, जनवरी 19, 2019 | समय 13:30 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

শুক্রবার উদ্বোধন হবে সম্প্রীতি সেতুর

By HindusthanSamachar | Publish Date: Jan 11 2019 2:01PM
শুক্রবার উদ্বোধন হবে সম্প্রীতি সেতুর
কলকাতা, ১১ জানুয়ারি (হি. স.) : অবশেষে শুক্রবার বিকেলে চালু হচ্ছে সম্প্রীতি সেতুর। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রিন্সেপ ঘাট থেকে এর ফিতে কাটবেন। জিঞ্জিরাবাজারে থাকবেন সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং রাজ্যের মন্ত্রী তথা কলকাতা পুরসভার মেয়র ববি হাকিম। এই উড়ালপুল চালু হলে দক্ষিণ শহরতলির বিস্তীর্ণ এলাকার মানুষের যোগাযোগের ক্ষেত্রে খুব সুবিধা হবে। তারাতলা থেকে বজবজ যেতে এক ঘণ্টার বেশি লাগে। লরির জটে ওষ্ঠাগত অবস্থা হয়। এই উড়ালপুল উদ্বোধন হয়ে গেলে ২০-২৫ মিনিটে পৌঁছে যাবেন যে কেউ। দক্ষিণ কলকাতার সঙ্গে বাটানগর, পুজালি, বজবজের যোগাযোগ অনেক সহজ হয়ে যাবে। এই উড়ালপুলটি জেএনএনইউআরএম প্রকল্পে অনুমোদন হয়েছিল। ঠিক হয়েছিল, উড়ালপুল তৈরির মোট খরচের এক-তৃতীয়াংশ দেবে কেন্দ্রীয় সরকার। বাকি দুই-তৃতীয়াংশ দেবে একটি বেসরকারি সংস্থা। কিন্তু নরেন্দ্র মোদি সরকার আসার পর জেএনএনইউআরএম প্রকল্প বাতিল করে দেওয়া হয়। তখন ঠিক হয়, ওই টাকা দেবে রাজ্য সরকার। সেই মতো উড়ালপুলটি তৈরিতে খরচ হয়েছে ৩৫০ কোটি টাকা। প্রয়োজনীয় অর্থের মধ্যে ৮৭ কোটি টাকা দেয় রাজ্য সরকার। বাকি টাকা খরচ করে একটি বেসরকারি সংস্থা। তারা টোল বসিয়ে সেই টাকা তুলে নেবে, এটাই সিদ্ধান্ত হয়। এই নিয়ে অনেক জটিলতা ছিল। পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, টু হুইলার বা ছোট গাড়িকে টোল দিতে হবে না। সেই টাকা রাজ্য সরকার দেবে। বড় ট্রাক ও লরি থেকে টোল নেওয়া হবে। গত অক্টোবর মাসে এর নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে।কেএমডিএ সূত্রের খবর, উড়ালপুল তৈরি হওয়ার পরে টোল আদায় নিয়ে প্রাথমিক ভাবে সমস্যা হয়েছিল। পরে নির্মাণকারী সংস্থার সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা মেটে। ওই সংস্থার সঙ্গে যে শর্তে কেএমডিএ কর্তৃপক্ষের চুক্তি হয়েছিল, আপাতত তাতেই স্থির থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। নগরোন্নয়ন দফতরের দাবি, উড়ালপুলের নির্মাণ-খরচ সংশ্লিষ্ট সংস্থাকে বরাদ্দ করার ক্ষেত্রে রাজ্যের আর্থিক অসুবিধা আছে। সে কারণে প্রথমে টোল নেওয়ার বিরোধিতা করা হলেও পরে তা থেকে সরে আসা হয়। প্রাথমিক ভাবে ঠিক হয়েছে, চুক্তি অনুযায়ী ওই উড়ালপুল দিয়ে চলাচলকারী ভারী যানবাহনকে টোল দিতে হবে। তবে মোটরবাইক বা ছোট গাড়ির থেকে টোল আদায় করা হবে না। প্রায় সাত কিলোমিটার দীর্ঘ এই উড়ালপুলটি যোগ করেছে জিঞ্জিরাবাজার ও বাটানগরকে। দুই লেনের এই উড়ালপুল চালু হলে কম সময়ে যেমন কলকাতা থেকে বজবজ পৌঁছনো যাবে, তেমন কলকাতার দিকেও আসা যাবে সহজে। প্রাথমিক ভাবে এই প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছিল ২২৫ কোটি টাকা। পরে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৩০ কোটিতে। উন্নয়ন সংস্থা যৌথ সংগ্রাম কমিটির সাধারণ সম্পাদক প্রাণবন্ধু নাগ বলেন, ‘‘নিবেদিতা সেতুতে তো টোল নেওয়ার রেওয়াজ বহু দিন থেকে রয়েছে। তবে আশা করব, নাগরিকদের কথা ভেবে নতুন উড়ালপুলে কম টাকা টোল নেওয়া হবে।’’ হিন্দুস্থান সমাচার / অশোক
image