Hindusthan Samachar
Banner 2 शनिवार, जनवरी 19, 2019 | समय 16:55 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

শালবনীতে নাবালিকাকে ধর্ষণ করে খুন, আজীবন সশ্রম কারাদণ্ড যুবকের

By HindusthanSamachar | Publish Date: Jan 11 2019 3:37PM
শালবনীতে নাবালিকাকে ধর্ষণ করে খুন,  আজীবন সশ্রম কারাদণ্ড যুবকের
মেদিনীপুর, ১১ জানুয়ারি (হি. স.) : কাকার মেয়েকে পড়ানোর নাম করে বাড়িতে ডেকে ধর্ষণ করে খুন করেছিল যুবক। দুপুরবেলা এই কাণ্ড করে দেহ বস্তায় ভরে বাড়ির খাটের তলায় রেখেছিল। পরে খোঁজ করে নাবালিকার পরিবার জানতে পেরেছিল সেই বিষয়। সেই ঘটনায় অভিযুক্ত যুবককে আজীবন সশ্রম কারাদণ্ডের নির্দেশ দিল মেদিনীপুর আদালত। বিচারক জানিয়ে দেন -যতদিন বাঁচবে জেলের মধ্যে থাকতে হবে তাকে। ২০১৫ সালের ১৮ ই মার্চ এই ঘটনাটি ঘটেছিল পশ্চিম মেদিনীপুরের শালবনী থানার অন্তর্গত ঢ্যাঙাশোল গ্রামে। এই গ্রামের মেধাবী ছাত্রী পূজা মাহাতো শালবনি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী ছিল। ভালো পড়াশোনার জন্য সকলের সুনজরে ছিল সে। পূজার বাড়ির উল্টো দিকে একটি মাটির বাড়িতে বাস করতো তারই জেঠুর ছেলে বাপ্পাদিত্য মাহাতো।বিবাহিত বাপ্পাদিত্য পূজাকে বোন বলে ডাকত। ১৮ ই মার্চ দুপুর বেলা পূজাকে বাড়িতে একা পেয়ে বাপ্পাদিত্য বলে তোর পড়ার যেগুলো বুঝতে অসুবিধা তুই আমার বাড়িতে চলে আয় বুঝিয়ে দেবো। সরল মনে পূজা দাদার বাড়িতে বই নিয়ে চলে গিয়েছিল। বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে বাপ্পাদিত্য পূজাকে বাড়ির মধ্যে ধর্ষণ করে, পরে প্রমাণ লোপাট করতে শ্বাসরোধ করে খুন করে। এরপর তার দেহটি একটি বস্তার মধ্যে ভরে বাড়ির খাটের তলায় রেখে দিয়েছিল। ইতিমধ্যে পরিবারের লোকজন পূজার খোঁজ শুরু করেছিল। পূজা কে খোঁজার ভান করছিল বাপ্পাদিত্য নিজেও। বিকেল পর্যন্ত না খোঁজ পাওয়ার পর সন্দেহবশত ওই যুবকের বাড়ি পরীক্ষা করতে গিয়ে বস্তায় ভরা দেহ দেখতে পেয়েছিল বাবা মা। এরপরই ফেরার হয়ে যায় বাপ্পাদিত্য। শালবনী থানার পুলিশ ঘটনার তদন্তে নেমে কয়েক দিন পর বাপ্পাদিত্যকে গ্রেফতার করেছিল মেদিনীপুর শহর থেকে। জেল হেফাজতে থেকে মামলা চলার পর বৃহস্পতিবার মেদিনীপুর আদালত বাপ্পাদিত্যকে দোষী সাব্যস্ত করে। শুক্রবার মেদিনীপুর আদালতের বিচারক বাপ্পাদিত্যকে আজীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেন। সেই সঙ্গে আরো কয়েকটি ধারায় ৭ বছরের জেল, অন্য একটি ধারায় এক মাসের জেল ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য করেন। এই রায় শোনার পর পূজার বাবা প্রদীপ মাহাতো বলেন-বাপ্পাদিত্য আমার ভাইপো, কিন্তু তা হলেও ওর ফাঁসি হলে অনেক বেশি শান্তি পেতাম।তবু আদালত যা রায় দিয়েছেন তাতে খানিকটা স্বস্তি। এই কান্ডের সাজা শোনার জন্য মেদিনীপুর আদালত চত্বরে ভীড় করেছিলেন শালবনীর অনেক বাসিন্দাই ৷ হিন্দুস্থান সমাচার/ হেনা
image