Hindusthan Samachar
Banner 2 गुरुवार, मार्च 21, 2019 | समय 15:03 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বামীজীর জন্ম জয়ন্তী পালনে বাধা দেওয়ার অভিযোগ বামপন্থী ছাত্রদের বিরুদ্ধে

By HindusthanSamachar | Publish Date: Jan 11 2019 4:24PM
প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বামীজীর জন্ম জয়ন্তী পালনে বাধা দেওয়ার অভিযোগ বামপন্থী ছাত্রদের বিরুদ্ধে
কলকাতা, ১১ জানুয়ারি (হি. স.): স্বামী বিবেকানন্দর জন্ম জয়ন্তী উপলক্ষ্যে শুক্রবার প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিঘ্ন । অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের আভিযোগ অতি-বামপন্থী ও কিছু নকশাল পড়ুয়া এসে অনুষ্ঠানটি বন্ধ করার হুমকি দেয়। অধ্যাপকদের হেনস্থা করা হয় । এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা দেখা দেয়। এই প্রথমবার প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ স্ট্রিট ক্যাম্পাসে স্বামী বিবেকানন্দর জন্ম জয়ন্তী পালন করা হচ্ছিল। স্বামী বিবেকানন্দর জন্ম জয়ন্তী উপলক্ষ্যে শুক্রবার প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত ওই অনুষ্ঠানে বিঘ্ন ঘটে । অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের এক সমর্থক জানান, সেখানে হঠাৎ করে অতি-বামপন্থী ও কিছু নকশাল এসে অনুষ্ঠানটি বন্ধ করার হুমকি দেয়। স্বাগত অধ্যাপকদের হেনস্থার মুখে পড়তে হয়। অভিযোগ, তাঁদের কাপড় ধরে টানাটানি করে কিছু বামপন্থী পড়ুয়া| গোপাল গয়াল নামে অনুষ্ঠানে উপস্থিত এক ছাত্র ‘হিন্দুস্থান সমাচার’-কে জানান, বক্তৃতায় অতি-বামপন্থী কিছু ছাত্র ব্যাঘাত ঘটালেও কর্মসূচি অনুযায়ী গরিবদের বস্ত্র বিতরণ করা সম্ভব হয়েছে। দেবাশীষ চৌধুরী (বঙ্গবাসী মর্নিং কলেজ) নামে এক অধ্যাপক অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দিতে গিয়ে জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বামীজীর মূর্তি স্থাপনে সেখানকার কিছু বামপন্থী পড়ুয়ার বাধা দেওয়ার সমালোচনা করেন। বলেন, স্বামীজীই এ দেশে সাম্যবাদের প্রবক্তা। এই মন্তব্যের পরেই এ দিন কিছু ছেলে ওই অধ্যাপককে চ্যালেঞ্জ করে হুমকি দিতে থাকে। তাঁকে অপমান করে চলে যেতে বাধ্য করা হয়। দেবাশিষবাবু ‘হিন্দুস্থান সমাচার’-কে বলেন, “আমাদের লক্ষ্য করে অশ্রাব্য নানা ভাষা প্রয়োগ করা হয়। আমাকে এবং আদিত্য দাসকে রীতিমত হেনস্থা করা হয়। আমাদের ঘেরাও করে রাখা হয় দীর্ঘক্ষণ।" সিটি কলেজের বানিজ্য বিভাগের অধ্যাপক আদিত্য দাস এই প্রতিবেদকের কাছে অভিযোগ করেন, “এ রকম অবস্থার পড়তে হবে ভাবিনি। অর্থনীতিবিদ কৌশিক বসুর তত্ব দিয়ে আমি অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও স্বামীজীর ভাবনা নিয়ে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দিয়েছিলাম। হামলাকারীদের হাত থেকে কোনওক্রমে নিষ্কৃতি পেয়েছি। দুর্গাঠাকুর-কালী ঠাকুর-স্বামী বিবেকানন্দর নামে খারাপ খারাপ কথা বলেছে| আমরা উত্তেজিত না হয়ে এ সব শুনতে বাধ্য হয়েছি|" এ দিনের অনুষ্ঠানের অন্যতম উদ্যোক্তা ইতিহাসের প্রথম বর্ষের ছাত্র মৃদুল বণিক বলেন, “এ রকম অবস্থার মধ্যে আমাদের অনুষ্ঠান করতে হল | এর মধ্যে ৪০ জন হাতরিক্সা চালককে বস্ত্র এবং ৫০জন ফুটপাথবাসী শিশুকে খাবারের প্যাকেট দিতে পেরেছি|” অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অধ্যাপকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আদিত্য দাস (সিটি অফ কমার্স কলেজ) ও পাপিয়া মৈত্র (সুরেন্দ্রনাথ কলেজ-মহিলা)। এ দিনের ঘটনায় তাঁরাও রীতিমত অস্বস্তিতে পড়েন| হিন্দুস্থান সমাচার/ অশোক / কাকলি
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image