Hindusthan Samachar
Banner 2 बुधवार, मार्च 27, 2019 | समय 02:10 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

৫১ দিন পর টিমনহাবি চা বাগানের ম্যানেজার নোমলচন্দ্ৰকে মুক্তি আলফা (স্বা)-এর

By HindusthanSamachar | Publish Date: Jan 11 2019 9:25PM
৫১ দিন পর টিমনহাবি চা বাগানের ম্যানেজার নোমলচন্দ্ৰকে মুক্তি আলফা (স্বা)-এর
সোনারি (অসম), ১১ জানুয়ারি, (হি.স.) : উজান অসমের চড়াইদেও জেলার অন্তর্গত সোনারির টিমনহাবি চা বাগানের ম্যানেজার নোমলচন্দ্ৰ বরুয়াকে মুক্তি দিয়েছে আলফা (স্বাধীন)। আজ শুক্রবার ভোরে নাগাল্যান্ডের লাংওয়াবস্তিতে নোমল বরুয়াকে ছেড়ে গেছে উগ্রপন্থীরা। পরে তাঁকে নাগাল্যান্ডের সীমান্তে মোতায়েন আসাম রাইফেলস তাঁদের হেফাজতে নিয়ে চড়াইদেওয়ের পুলিশ সুপারকে খবর দেওয়া হয়। খবর পাঠানো হয় নোমল বরুয়ার পরিবারকে। এর পর তাঁর পরিবারের লোকজনকে সঙ্গে নিয়ে আধাসেনা ও পুলিশের দল নিয়ে আসম রাইফেলস-এর কাছ থেকে নোমল বরুয়াকে সমঝে নিয়ে আসেন। জঙ্গলের ধকল সয়নি। ফলে শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন নোমল। তাঁর চিকিৎসা শুরু হয়েছে। প্রসঙ্গত, গত ২০ নভেম্বর রাত প্রায় ৭.৩০টায় চরাইদেও জেলার বরহাট থানার অন্তর্গত বরুয়ানগরে অবস্থিত বিষ্ণুপুর চা বাগানের ফাঁড়ি টিমনহাবির ম্যানেজার নোমলচন্দ্ৰ বরুয়াকে চারজনের অস্ত্রধারী আলফা-স্বাধীনের দল অপহরণ করেছিল। এদিন বাগানের কাজ শেষে তিনি অন্যদিনের মতো তাঁর বংলোয় ফেরেন। পত্নী এবং একমাত্র ছেলের সঙ্গে বসে সান্ধ্য চা পান যখন করছিলেন, তখন তাঁর বাংলোর কলিংবেল বাজে। দরজা খোলামাত্র সেনা-পোশাক পরিহিত অস্ত্রধারী চার যুবক তাদের আলফা বলে পরিচয় দিয়ে তাঁর ঘরে ঢোকে বসে। তার পর তারা ম্যানেজারের সব কয়টি মোবাইল ফোন নিয়ে সেগুলো থেকে সিমকার্ড খুলে দিয়ে তাঁকে জোতা, জ্যাকেট, টুপি ইত্যাদি পরতে নির্দেশ দেয়। নির্দেশ মোতাবেক তিনি তৈরি হলে আগন্তুকরা বরুয়াকে নাকি বলে, তাঁর সঙ্গে আলফার কোনও বিবাদ নেই, যা কথা তা বাগানের মালিকের সঙ্গে হবে। তাই তাঁকে তাঁদের সঙ্গে যেতে হবে। এ কথা শুনে ম্যানেজার নোমলচন্দ্র এবং তাঁর পত্নী ননীমা বরুয়া কথিত আলফা ক্যাডারদের আকুতি জানিয়ে বলেন, আগামী ২৬ তারিখ (নভেম্বর) তাদের একমাত্র ছেলের পরীক্ষা। তাই তার কথা ভেবে রেহাই দিতে তাদের পায়ে-হাতে ধরেন। নছোড় আলফা ক্যাডারদের ভাব দেখে পত্নী ননীমা তাদের কাছে আর্জি জানান, তাঁর স্বামীকে যেন তারা সুস্থভাবে ফিরিয়ে দেয়। স্বামী নোমলচন্দ্রকে সুস্থভাবে ফিরিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাঁকে নিয়ে পায়ে হেঁটে কছারিপথারের দিকে চলে যায় সশস্ত্র আলফা ক্যাডার বলে পরিচয় প্রদানকারীরা। পরের দিন বুধবার পত্নী ননীমা বরুয়া ঘটনার খবর পুলিশকে দেন। পুলিশ সেনাবাহিনীর সহায়তা নিয়ে স্নিফার ডগ নিয়ে চিরুনি তালাশি অভিযান শুরু করেও তাঁর হদিশ পায়নি পুলিশ বা সেনাবাহিনী। নোমলচন্দ্ৰ বরুয়াকে নিঃশর্তে মুক্তির দাবিতে টিমনহাবি চা বাগানের শ্ৰমিকরা অবস্থান ধরনায় বসেছিলেন। প্রসঙ্গত, বরহাট থানার অন্তর্গত বরুয়ানগরে অবস্থিত বিষ্ণুপুর চা বাগানের স্বত্বাধিকারী গুয়াহাটির এলএন চৌধুরী এবং যোরহাটের প্রদীপ সিংঘাল। টিমনহাবি বিষ্ণুপুরের ফাঁড়ি বাগান। হিন্দুস্থান সমাচার / অমল / এসকেডি
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image