Hindusthan Samachar
Banner 2 मंगलवार, फरवरी 19, 2019 | समय 23:03 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

আপডেট...জনকল্যাণমুখি বহু প্রকল্পে ভরপুর ১১৯৩.০৪ কোটি টাকার করমু্ক্ত বাজেট সৰ্বানন্দ সরকারের

By HindusthanSamachar | Publish Date: Feb 6 2019 8:24PM
আপডেট...জনকল্যাণমুখি বহু প্রকল্পে ভরপুর ১১৯৩.০৪ কোটি টাকার করমু্ক্ত বাজেট সৰ্বানন্দ সরকারের
গুয়াহাটি, ৬ ফেব্রুয়ারি (হি.স.) : শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, সমবায়, উদ্যোগ-সহ সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্ৰে আমূল পরিবৰ্তনের লক্ষ্যে সৰ্বানন্দ সনোয়াল নেতৃত্বাধীন জোট সরকারের চতুৰ্থ তথা তৃতীয় পূর্ণাঙ্গ বাজেট আজ বুধবার অসম বিধানসভায় পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা। মহাপুরুষ শ্ৰীমন্ত শংকরদেবকে প্ৰণিপাত জানিয়ে গুরুদেব বিরচিত অসমিয়া সমাজ এবং আধ্যাত্মিক জীবনের অক্ষয় প্রদীপস্বরূপ পবিত্ৰ গুণমালার পদ ও সংস্কৃত শ্লোক-কবিতা এবং বেদ উপনিষদের মন্ত্রোচ্চারণের মাধ্যমে ১১১ এবং পরিশিষ্ট ৫১, মোট ১৬২ পৃষ্ঠার বাজেট ভাষণ শুরু করেন হিমন্তবিশ্ব শর্মা। বাজেট ভাষণে উপনিষদের দৰ্শন, জগদগুরু মহাপুরষ শ্ৰীমন্ত শংকরদেবের আদৰ্শ ও দৰ্শন, রূপকোঁওর জ্যোতিপ্ৰসাদ আগরওয়ালা, সাহিত্যরথী লক্ষ্মীনাথ বেজবরুয়ারকে স্মরণ করে অর্থমন্ত্ৰী ড. হিমন্তবিশ্ব শৰ্মা ২০১৯-২০ অর্থবর্ষের এক করমুক্ত ঘাটতি বাজেট দাখিল করেছেন। আজ দাখিলকৃত সৰ্বানন্দ সনোয়ালের তৃতীয় পূৰ্ণাঙ্গ বাজেটে বিভিন্ন খাতে যেমন কনটিনজেন্সি ফান্ডের সৰ্বমোট ৯৯,৪১৮.৯১ কোটি টাকা ব্যয়ের প্ৰস্তাব তুলে ধরা হয়েছে। তিন ঘণ্টার বেশি সময়ের বাজেট ভাষণে অর্থমন্ত্রী জানান, ২০১৯-২০ অর্থবৰ্ষে রাজ্যের কনটিনজেন্সি তহবিলের রাজস্ব খাতের ৮৩,১৪৭.৯৯ কোটি টাকা এবং মূলধন খাতের ১৫,১৯১.০৬ কোটি টাকা-সহ মোট ৯৮,৩৩৯.০৫ কোটি টাকা প্ৰাপ্তি প্ৰদৰ্শন করা হয়েছে। অন্যদিকে পাবলিক অ্যাকাউন্ট খাতে ১,৯৬,৫৪২.০৮ কোটি টাকা এবং উপনিমিত্ত তহবিলের ১০০ কোটি টাকা আদায়ের পর সৰ্বমোট আদায়ের পরিমাণ হবে ২,৯৪,৯৮১.১৩ কোটি টাকা। এর বিপরীতে ২০১৯-২০ অর্থবৰ্ষে রাজস্ব খাতে ৭৯,৭৪২.২৬ কোটি টাকা এবং মূলধন খাতে ১৯,৬৭৬.৬৫ কোটি টাকা-সহ রাজ্যের কনটিনজেন্সি ফান্ড থেকে মোট ব্যয়ের পরিমাণ ৯৯,৪১৮.৯১ কোটি টাকা ব্যয় হওয়ার অনুমান করা হয়েছে। পাশাপাশি পাবলিক অ্যাকাউন্ট খাতে ব্যয়ের ১,৯৪,৮৫৫.৪২ কোটি টাকা এবং উপনিমিত্ত তহবিলের ১০০ কোটি টাকা করে বছরের মোট প্ৰাক্কলিত ব্যয়ের পরিমাণ হবে ২,৯৪,৩৭৪.৩৩ কোটি টাকা। এভাবে বছরের শেষে লেনদেন বাবদ আনুমানিক ৬০৬.৯৯ কোটি টাকা হবে। কিন্তু এর সঙ্গে ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের শুরুতে ১,৭৯৯.৮৪ কোটি টাকার ঘাটতির হিসাব মেলালে ২০১৯-২০ অর্থবৰ্ষের শেষে ঘাটতির পরিমাণ হবে ১,১৯৩,০৪ কোটি টাকা। অর্থমন্ত্ৰী ড. হিমন্তবিশ্ব শৰ্মার ২০১৯-২০ অর্থবৰ্ষের বাজেটে কোনও নতুন কর আরোপের প্ৰস্তাব নেই। ক্ষুদ্ৰ চা চাষিদের ক্ষুদ্ৰ চা কৃষকদের স্বস্তি প্ৰদান করে কাঁচা পাতার উপকর সম্পূৰ্ণরূপে রেহাই দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি অসমের চা শিল্পের পরিবর্ধন এবং পুনরুজ্জীবন দিতে অসম কর আরোপ আইন ১৯৯০-এর অধীনে সবুজ চা পাতার ওপর আরোপিত এবং প্রদেয় কর ব্যবস্থা চলতি ২০১৯ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত কাৰ্যকরী হওয়ার উপযোগী তিন বছরের জন্য স্থগিত রাখার কথা ঘোষণা করা হয়েছে বাজেটে। সমাজের সকল শ্ৰেণিকে অন্তর্ভুক্ত করে অর্থমন্ত্ৰী সর্বজনীন অর্থ ব্যবস্থাপনার সংস্কার, সুসংহতকরণ এবং সবলীকরণ, সর্বজনীন পরিকাঠামো উন্নয়ন এবং শহরাঞ্চল ও বৃত্তিমুখী বিদ্যালয়, মহাবিদ্যালয়, উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ওপর গুরত্ব আরোপ, কৃষক, যুবসমাজ, মহিলা ও দিব্যাঙ্গদের কল্যাণসাধন, গ্ৰামোন্নয়ন, দক্ষতা বৃদ্ধি তথা নিয়োগ সৃষ্টির লক্ষ্যে একত্ৰীকরণ, সম্প্ৰসারণ ও উত্তরণের ওপর বাজেটে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। হিন্দুস্থান সমাচার / মনোজ / এসকেডি/ সঞ্জয়
लोकप्रिय खबरें
चुनाव 2018
image