Hindusthan Samachar
Banner 2 मंगलवार, अप्रैल 23, 2019 | समय 11:50 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

বিনিয়োগ নিয়ে বিশদ তথ্য দিতে নারাজ রাজ্য, ক্ষুব্ধ রাজনীতিকরা

By HindusthanSamachar | Publish Date: Feb 7 2019 10:36AM
বিনিয়োগ নিয়ে বিশদ তথ্য দিতে নারাজ রাজ্য, ক্ষুব্ধ রাজনীতিকরা
কলকাতা, ৭ ফেব্রুয়ারি (হি.স.) : এক বছরে এ রাজ্যে কত টাকার বিনিয়োগ হয়েছে? রাজ্য সরকার যে আর্থিক সমীক্ষা বিধানসভায় পেশ করেছে, তাতে শিল্প দফতর এর কোনও স্পষ্ট উত্তর দেয়নি। তারা দাবি করেছে, এ রাজ্যে যে শিল্প পার্ক বা তালুকগুলি আছে, সেখানে চলতি আর্থিক বছরে এখনও পর্যন্ত ১ হাজার ৮০৩ কোটি ৫৬ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ প্রস্তাব এসেছে। এই পার্কগুলিতে জমি নিয়ে ১০টি সংস্থা লগ্নি করতে চায়। সরকারের দাবি জমি নয়, পার্কের মধ্যে ছাউনির নীচে জায়গা নিয়ে শিল্প গড়ার প্রস্তাব এসেছে, এমন সংস্থার সংখ্যা তিনটি। সেখানে বিনিয়োগ প্রস্তাব এসেছে ১৬ কোটি ৪০ লক্ষ টাকার। এ ছাড়াও রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে থাকা ইন্ডাস্ট্রিয়াল গ্রোথ সেন্টারে ৩১৪ কোটি টাকার লগ্নি করতে চায় চারটি সংস্থা। আরও ২১টি সংস্থা লগ্নির প্রস্তাব দিলেও, সেই সংক্রান্ত প্রশাসনিক কাজ চলছে বলে জানিয়েছে শিল্প দফতর। অর্থাৎ সরকারি দাবিমত রাজ্যের শিল্প তালুকগুলিতে এক বছরে প্রায় ২ হাজার ১৩৪ কোটি টাকার শিল্প প্রস্তাব এসেছে। এ রাজ্যে বড় শিল্পের বিনিয়োগ প্রস্তাব এবং তার বাস্তবায়নের অঙ্ক সম্পর্কে খুব স্পষ্ট করে ধারণা দিতে নারাজ রাজ্য সরকার। এ ব্যাপারে সরব হয়েছেন শিলিগুড়ি পুরসভার মেয়র তথা রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী অশোক ভট্টাচার্য। বৃহস্পতিবার তিনি ‘হিন্দুস্থান সমাচার’-কে বলেন, “আপনারা জানেন, আমি সদ্য বিধানসভায় বাজেট আলোচনায় এ নিয়ে প্রতিবাদ করেছি। বিনিয়োগের ব্যাপারে যে সব তথ্য সরকারের তরফে দাবি করা হচ্ছে, তার বিন্দুমাত্র সত্যতা নেই। আমার কাছে রাজ্যে কোথায়, কী বিনিয়োগ হয়েছে, তার তালিকা আছে। তাতে উত্তরবঙ্গ তো বটেই, গোটা রাজ্যের কোথাও বিনিয়োগের বাস্তব ছবি দেখতে পাবেন না। চটকলগুলি তো প্রায় সবই বন্ধ হয়ে গিয়েছে। রাজ্যে ক‘টা নতুন কারখানা হয়েছে, ক’টা বন্ধ কারখানা খুলেছে— এ সব তো দাবি বা না-দাবির ব্যাপার নয়! লোকে নিজেরাই দেখতে পারছে।“ বিগত কয়েক বছর ধরে রাজ্য যে আর্থিক সমীক্ষা পেশ করে, সেখানে এই সম্পর্কিত তথ্য খুব স্পষ্ট করে থাকে না। এবারের সমীক্ষায় সরকার জানিয়েছে, বিগত চার বছর ধরে বেঙ্গল গ্লোবাল বিজনেস সামিট হয়েছে, সেখানে প্রস্তাবিত বিনিয়োগের অন্তত ৪০ শতাংশ বাস্তবায়ন হতে শুরু হয়েছে। প্রসঙ্গত, সরকারের দাবি, গত বছর বেঙ্গল গ্লোবাল বিজনেস সামিট থেকে রাজ্য সরকার বিনিয়োগ প্রস্তাব পেয়েছিল ২ লক্ষ ১৯ হাজার ৯২৫ কোটি টাকার। সেবার অবশ্য বিনিয়োগ প্রস্তাবের সিংহভাগ দখলে রেখেছিল উৎপাদন ও নির্মাণ শিল্প। সেই অঙ্ক ছিল ১ লক্ষ ৫৬ হাজার ৮১১ কোটি টাকার। এর পরই ছিল ছোট ও মাঝারি শিল্প। সেখানে প্রস্তাব আসে ৫২ হাজার ৯৫২ কোটি টাকা বিনিয়োগের। খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ, মৎস্য এবং প্রাণি সম্পদ বিকাশের মতো ক্ষেত্রগুলি মিলিয়ে সামগ্রিক বিনিয়োগ প্রস্তাব ছিল মাত্র ১ হাজার ৫১৮ কোটি টাকার। এবার আর্থিক সমীক্ষায় সরকার দাবি করেছে, রাজ্য শিল্পোন্নয়ন নিগম ইতিমধ্যেই হাওড়ায় দু’টি ফুড পার্ক চালু করেছে। সাঁকরাইলে তৃতীয় পর্যায়ের ফুড পার্কটি তৈরির উদ্যোগ শুরু হয়েছে। এছাড়াও বজবজে তৈরি হতে চলেছে গার্মেন্ট পার্ক, যেখানে ৯.৮৫ একর জায়গা জুড়ে ৭.২ লক্ষ বর্গফুটের পরিকাঠামো গড়ে তোলা হবে। সেটিও করছে শিল্পোন্নয়ন নিগম। গোয়ালতোড়ে ৯৫০ একর জমিতে যে শিল্পতালুক গড়ার প্রস্তাব ছিল, সেটি তৈরি করতে পূর্ত দফতরকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে রাজ্য। এছাড়াও হরিণঘাটায় ৩৫৮ একরের শিল্প তালুক গড়া হবে বলে জানিয়েছে তারা। হিন্দুস্থান সমাচার/ অশোক
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image