Hindusthan Samachar
Banner 2 शनिवार, फरवरी 23, 2019 | समय 17:16 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

বারুইপুরে দেনার দায়ে আত্মঘাতী কৃষক

By HindusthanSamachar | Publish Date: Feb 8 2019 7:23PM
বারুইপুরে দেনার দায়ে আত্মঘাতী কৃষক
বারুইপুর, ৮ ফেব্রুয়ারি (হি.স.) : দেনা শোধ করতে না পেরে কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যা করলেন এক কৃষক। মৃতের নাম কৃষ্ণ দেয়াসী(৪৭)। দক্ষিণ ২৪ পরগণার বারুইপুর থানার বৃন্দাখালী গ্রামের বাসিন্দা কৃষ্ণ দেয়াসীর দেহ শুক্রবার সকালে উদ্ধার হয় তার বাড়ি থেকে। পরিবারের লোকেদের দাবি, চাষের জন্য ব্যাঙ্ক থেকে লোন নিয়েছিলেন। এছাড়া বাজার থেকে চড়া সুদে কিছু টাকা ধার নিয়েছিলেন। তা পরিষোধ করার জন্য নিয়মিত চাপ আসছিল। সেই টাকা শোধ করতে না পেরে তিনি আত্মহত্যার পথ বেছে নেন বলে দাবী মৃতের পরিবারের। দিন দিন চাষের খরচ বাড়ছে। আর সেই কারণে নিজের জমিতে রোয়া ধানের সঠিক যত্ন নিতে পারছিলেন না ওই চাষি। আগেই চাষের জন্য বাজার থেকে ও একটি বেসরকারি ব্যঙ্ক থেকে প্রায় ত্রিশ হাজার টাকা লোণ নিয়েছিলেন। সেই টাকা শোধ করার জন্য রীতিমত চাপ আসছিল কৃষ্ণবাবুর উপরে। এর পাশাপাশি চাষ কড়া ধানের জন্য কীটনাশক কিনতে পারছিলেন না বলে ও দাবী তার আত্মীয়দের। এই চরম অভাব অনটনের মধ্যে পড়ে কার্যত আত্মহত্যার পথ বেছে নেন তিনি। কীটনাশক খেয়েই মৃত্যু বরণ করেন। মৃতের আত্মীয় বাবুরাম দোলুই জানিয়েছেন, “দিন দিন চাষের খরচ বাড়ছে। ধান চাষ করার জন্য এখন চড়া দামে সার, কীটনাশক কিনতে হয়। সেসব কিনতে গিয়েই বাজারে প্রচুর ধার করেছিলেন কৃষ্ণ। তাছাড়া বন্ধন ব্যাঙ্ক থেকে তিরিশ হাজার টাকা লোন নিয়েছিলেন। সেই টাকাও শোধ করতে পারেননি।তাই হতাশায় দেনার চাপে উনি আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন”। স্থানীয় সূত্রে খবর, কৃষ্ণর স্ত্রী ছাড়াও দুটি ছেলে আছে। বড় ছেলে একাদশ শ্রেণিতে আর ছোট ছেলে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে। অভাবের সংসারে দুবেলা দু মুঠো ভাত জোগাড় করতে তাঁর স্ত্রী ববি দেয়াসী বিড়ি বাঁধার কাজ করেন। এদিন সকালে স্ত্রী দোকানে বিড়ি দিতে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে বাড়িতে ফিরে দেখেন স্বামী অচেতন হয়ে ঘরের মধ্যে পড়ে আছেন, মুখ দিয়ে গ্যাঁজলা বেরোচ্ছে। তড়িঘড়ি বারুইপুর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষনা করেন। যদিও চাষবাসের জন্য দেনার দায় নয়, পারিবারিক বিবাদের জেরেই ঐ চাষি আত্মঘাতী হয়েছেন বলে দাবী স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বের। এ বিষয়ে বারুইপুর পঞ্চায়েত সমিতির সহ সভাপতি তথা স্থানীয় তৃণমূল নেতা শ্যামসুন্দর চক্রবর্তী বলেন, “আমরা খবর নিয়ে জেনেছি উনি পারিবারিক অশান্তির জন্য আত্মহত্যা করেছেন। এর সঙ্গে চাষ–বাসের কোন সম্পর্ক নেই”। হিন্দুস্থান সমাচার / প্রসেনজিত
लोकप्रिय खबरें
चुनाव 2018
image