Hindusthan Samachar
Banner 2 शनिवार, फरवरी 23, 2019 | समय 16:12 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

আপডেট : ভিন রাজ্যে কাজে গিয়ে নির্মমভাবে খুন বাঙালি যুবক

By HindusthanSamachar | Publish Date: Feb 9 2019 7:32PM
আপডেট : ভিন রাজ্যে কাজে গিয়ে নির্মমভাবে খুন বাঙালি  যুবক
দুর্গাপুর, ৯ ফেব্রুয়ারি (হি. স.) : ফের ভিন রাজ্যে কাজে গিয়ে রহস্যজনক ভাবে খুন হল বাঙালি যুবক। ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিস্তর চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পুর্ব বর্ধমানের জসমালপুরে। মৃত যুবকের নাম সামসুদ্দিন আলি সেখ ( ৪৩)। পূর্ব বর্ধমানের জামালপুর থানার সাহাপুর গ্রামের বাসিন্দা । গত বুধবার সুরাট শহরের খাটোড্রা থানার পুলিশ এক মন্দিরের উল্টোপিঠের সড়কপথে পড়ে থাকা সামসুদ্দিন আলির রক্তাত্ব মৃতদেহ উদ্ধার করে। এবং সুরাট মেডিকেল কলেজের নিউ সিভিল হাসপাতালের মর্গে মৃতদেহের ময়নাতদন্ত হয়। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে চিকিৎসক উল্লেখ করেছেন, “ধারাল কিছুর আঘাতে হৃৎপিণ্ড ও বাম ফুসফুস থেকে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারনেই যুবকের মৃত্যু হয়েছে। ” শনিবার সাহাপুর গ্রামের বাড়িতে পৌছায় ওই যুবকের মৃতদেহ । যুবককে খুন করা হয়েছে বলে দাবি করেছে তার পরিবার সদস্যরা। যদিও কি কারণে যুবক খুন সেবিষয়ে এখনও তাঁর পরিবার সদস্যরা সম্পূর্ণ অন্ধকারে। মৃতর ভাই সেখ রফিক আলি জানান, "সুরাটে একই রুমে আমি ও দাদা সামসুদ্দিন থাকতাম । বুধবার সকাল ৬ টার সময়ে সামসুদ্দিন ডিউটিতে বেরিয়ে যায়। বেলা ১১ টা নাগাদ তিনি ডিউটি ধরার জন্য রওনা দিই। তার কিছু সময় পরই জানতে পারি দাদা সামসুদ্দিন খুন হয়েছেন। পাশে পড়ে ছিল দাদার সাইকেলটি।" তিনি আরও বলেন, " ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর একপ্রকার নিশ্চিত দাদাকে খুনই করা হয়েছে।" রফিক দাবি করেন," দাদার বুকের অংশের একাধিক জায়গায় ধারাল অস্ত্রের আঘাত রয়েছে । তা দেখার পর মনে হয়েছে , সামসুদ্দিন কাজে যাবার পথে ৫-৬ জনের আঁততায়ী দল তার পথ আটকেছিল । ওই আঁততায়ীরাই এলোপাতাড়ি ধারাল অস্ত্র চালিয়ে দাদাকে খুন করেছে। রফিক জানান," দুস্কৃতীরা দাদার পকেটে থাকা মোবাইল ফোন , টাকা পয়সা , আধার কার্ড সব কিছুই নিয়ে পালিয়ে যায়। সেই কারণে পুলিশ প্রথম অজ্ঞাত পরিচয় হিসাবেই তাঁর দাদার দেহ উদ্ধার করে। পরে দাদার পকেট থেকে রুমের একটি ইলেকট্রিক বিল পায়। সেই বিলের সূত্র ধরেই পুলিশ দাদার পরিচয় উদ্ধার করে।" এখন প্রশ্ন কে বা কারা খুন করল? কেনইবা খুন? প্রশ্ন উঠেছে। রফিক বলেন ,"সুরাটে আমাদের সঙ্গে কারও কোন শত্রুতা ছিল না । কি কারণে দাদাকে খুন হতে হল সেবিষয়ে সম্পূর্ণ অন্ধকারে রয়েছি।" তবে মৃতের স্ত্রী আঙ্গুরা বিবি যদিও জানিয়েছে , "তাঁর স্বামী আট বছর ধরে সুরাটে এমব্রয়ডারি কাজে যুক্ত ছিলেন। বছর খানেক আগে সুরাটের যে বিল্ডিংয়ে ভাড়া থাকতাম। সেখানের এক প্রতিবেশীর সঙ্গে সামসুদ্দিনের ঝামেলা হয়। তখন ওই প্রতিবেশী ব্যক্তি খুনের হুমকি দিয়েছিল।" আঙ্গুরা বিবি আরও বলেন, "ওই প্রতিবেশী হুমকি দিয়ে বলেছিল , লোক লাগিয়ে তারা আমার স্বামীকে খুন করাবে। যদিও তারপর থেকে একবছর আর কোন অশান্তি হয় নি।" আঙ্গুরা জানান, " সন্তানের জন্মের পর সুরাট থেকে জামালপুরের সাহাপুর গ্রামের বাড়িতে চলে আসি। তার পর থেকে সামসুদ্দিন ও তার ভাই রফিক সুরাটে থাকতেন।" ওই প্রতিবেশী যে হুমকি দিয়েছিলেন সেটাই বাস্তবে করে দেখালেন কিনা সেই প্রশ্নই এখন বড় হয়ে দেখা দিয়েছে মৃতের পরিবারের কাছে । প্রসঙ্গত, ভিন রাজ্যে কাজে গিয়ে গত এক বছরে এই নিয়ে রহস্যজনক মৃত্যু হল জামালপুরের তিন যুবকের।" হিন্দুস্থান সমাচার / জয়দেব
लोकप्रिय खबरें
चुनाव 2018
image