Hindusthan Samachar
Banner 2 शुक्रवार, अप्रैल 19, 2019 | समय 09:51 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

কেশপুরে গোষ্ঠী সংঘর্ষে মৃত ১ , আহত ২

By HindusthanSamachar | Publish Date: Feb 11 2019 2:04PM
কেশপুরে গোষ্ঠী সংঘর্ষে মৃত ১ , আহত ২
কেশপুর, ১১ ফেব্রুয়ারি (হি. স.) : জমি সংক্রান্ত বিবাদকে ঘিরে পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুরে তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ ৷ রবিবার রাত সাড়ে এগারোটা নাগাদ ঘটনাটি ঘটেছে কেশপুর থানার কোনার গ্রামে ৷ তৃণমূলের স্থানীয় প্রাক্তন বুথ সভাপতি সহ তার পরিবারের সকলকে বেধড়ক পেটানো হয় ৷ যার জেরে মৃত্যু হয়েছে প্রাক্তন বুথ সভাপতির দাদা নন্দ পন্ডিত(৫৮)এর ৷ বাকি জখম হয়েছেন নন্দবাবুর ভাই অজিত পন্ডিত ও মৃতের ছেলে সঞ্জয় পন্ডিত ৷ তাদের ভর্তি করা হয়েছে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ৷ পুলিশের দাবি –জমি সংক্রান্ত বিবাদের জেরে এই ঘটনা ঘটেছে ৷ এলাকায় মোতায়েন রয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী ৷ ঘটনাটি কেশপুর থানার কোনার গ্রামে ৷ এই গ্রামের তৃণমূলের দুটি গোষ্ঠীর সমস্যা বেশ কয়েকবছর ধরেই ৷ বর্তমানে তৃণমূলের স্থানীয় কতৃত্বে থাকা নেতা কর্মীরা স্থানীয় ধল পরিবারের জমির ধান কেটে নিয়েছিল ৷ দলের পক্ষ থেকে শাস্তি স্বরুপ এই ধান কেটে নেওয়াছিল বলে ধল পরিবার জানায় ৷ তার প্রতিবাদে তারা পুলিশে অভিযোগ দায়েরও করেছিল ৷ এতেই ক্ষুব্ধ স্থানীয় তৃণমূলের নেতারা ধল পরিবারের শ্রীমন্ত ধল ও রাম ধল –দুই ভাইকে মারধোর করে বলে অভিযোগ ৷ সেখান থেকে জানতে পারে এই পুলিশে অভিযোগ করার পেছনে নাকি রয়েছে স্থানীয় তৃণমূলের অপর গোষ্ঠীর প্রাক্তন বুথ সভাপতি অজিত পন্ডিত ৷ সেই মতো তারা রবিবার রাত সাড়ে এগারোটা নাগাদ গ্রামের একটি মন্দিরে ধরে ফেলে অজিত পন্ডিতকে ৷ চলে বেধড়ক মার ৷ কাকাকে মারতে দেখে ভাইপো সঞ্জয় পন্ডিত ছুটে এলে তাকেও মারপিট শুরু হয় ৷ তখনই সঞ্জয়ের বাবা নন্দ পন্ডিত তাদের উদ্ধার করতে এলে তাকেও পড়ে থাকা একটি কাঠ নিয়ে মাথায় মারে আক্রমনকারীরা ৷ সেই মারে সকলেই লুটিয়ে পড়ে ৷ তাদের উদ্ধার করে রাতেই মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিত্সকরা নন্দ পন্ডিত(৫৮) কে মৃত বলে ঘোষনা করেন ৷ ঘটনার পরই সেখানে ছুটে যায় কেশপুর থানার পুলিশ ৷ এলাকায় উত্তেজনা থাকায় বাহিনী মোতায়েন রাখতে হয়েছে সেখানে ৷ পুলিশের দাবি – জমি সংক্রান্ত বিবাদের জেরে এই ঘটনা ঘটেছে ৷ তদন্ত শুরু হয়েছে ৷ তবে মৃতের ভাই তথা তৃণমূলের প্রাক্তন বুথ সভাপতি অজিত পন্ডিত বলেন “ রাজনৈতিক গোষ্ঠী শত্রুতা থেকেই এই আক্রমন হয়েছে ৷ আমি নিজেও তৃণমূলের কর্মী ,আক্রমণকারীরাও তৃণমূলের ৷ আমরা এই জমির সঙ্গে কোনো ভাবেই জড়িত নই ৷ আমরা সকলের নাম উল্লেখ করে অভিযোগ করেছি ৷” অজিতবাবুর মেয়ে মানসী পন্ডিত বলেন “ রাজনৈতিক গষ্ঠী সংঘর্ষের কারনেই আমার বাবা ও কাকাকে মারা হল ৷ দিদি এটা দেখুন৷ দোষীদের শাস্তি চাইছি আমরা ৷” তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি এই সমস্ত অস্বীকার করে বলেন “এই ঘটনার সঙ্গে রাজনৈতিক বিন্দু মাত্র সম্পর্ক নেই ৷ পুরোটাই পারিবারিক বিবাদে হয়েছে ৷ পুলিশকে নিরপেক্ষ ভাবে তদন্ত করে ব্যাবস্থা নিতে বলেছি আমরা ৷” হিন্দুস্থান সমাচার/ হেনা
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image