Hindusthan Samachar
Banner 2 शुक्रवार, अप्रैल 19, 2019 | समय 10:40 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

টাওয়ার গ্রুপ নিয়েও জিজ্ঞাসাবাদ রাজীব কুমারকে

By HindusthanSamachar | Publish Date: Feb 11 2019 6:26PM
টাওয়ার গ্রুপ  নিয়েও জিজ্ঞাসাবাদ রাজীব কুমারকে
কলকাতা, ১১ ফেব্রুয়ারি (হি.স.): শুধুমাত্র সারদা বা রোজভ্যালি নয়, টাওয়ার গ্রুপ নিয়েও সোমবার সিবিআই জিজ্ঞাসাবাদ করছে কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে। রবিবারই শিলংয়ে এগারো ঘণ্টা ধরে রাজীব কুমারের বয়ান রেকর্ড করে সিবিআই। রোজ ভ্যালি কাণ্ডে সোমবার ফের তাকে ডাকা হয়। বেআইনি অর্থলগ্নি সংস্থার টাওয়ার গ্রুপ দুই কর্ণধার রামেন্দু চট্টোপাধ্যায় এবং আশিস চট্টোপাধ্যায়-র কাছ থেকে যে নথি উদ্ধার করেছিল সিট সে সংক্রান্ত বিষয় সিবিআই দ্বিতীয় দফায় প্রশ্ন করে রাজীব কুমারকে। জিজ্ঞাসাবাদ চলাকালীন হঠাৎই রাজীব কুমারের ঘরে আনা হয় কুণাল ঘোষকে। দু’জনকে মুখোমুখি বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে দেয় কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। চিটফান্ড তদন্তে বহু প্রশ্নের উত্তর ওই দু’জনের থেকে এখনও মেলেনি৷ সেইসব উত্তর পেতেই কুণাল ও রাজীবকে মুখোমুখি বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়৷ কুণাল ঘোষের অভিযোগ ছিল, তিনি অনেক গুরুত্বপূর্ণ নথি, তথ্যপ্রমাণ রাজ্য সরকার গঠিত সিট-এর হাতে তুলে দিয়েছিলেন। কিন্তু, সেগুলো কাজে লাগানো হয়নি। কেন তা কাজে লাগানো হয়নি৷ মুখোমুখি বসিয়ে সিটের প্রধান রাজীব কুমারকে তা জিজ্ঞাসা করে সিবিআই৷ সোমবার সকাল ১০টা নাগাদ তৃণমূলের রাজ্যসভার প্রাক্তন সাংসদ কুণাল ঘোষ ওকল্যান্ডের সিবিআই দফতরে এসে পৌঁছন। তার এক ঘণ্টা পরে ১১ টা নাগাদ সিবিআই দফতরে পৌঁছন রাজীব কুমার। রবিবারই রোজভ্যালি তদন্তের তদন্তকারী মহিলা সিবিআই অফিসার শোজোম শেরপাকে ডেকে পাঠানো হয় শিলংয়ে। এদিন সকালে প্রচুর নথিপত্র নিয়ে তিনিও সিবিআই দফতরে পৌঁছন। বেলা ৪ টে নাগাদ ত্রিপুরা ক্যাসেলে লাঞ্চ করতে যান রাজীব কুমার। কিছুক্ষনের মধ্যেই ফিরে আসেন। সিবিআই সূত্রে জানা গেছে , সোমবার লাঞ্চের আগে মূলত রোজভ্যালি নিয়ে রাজীব কুমারের সঙ্গে প্রশ্নোত্তর পর্ব চালান পারে সিবিআই অফিসাররা। সিবিআইয়ের অভিযোগ, দুর্গাপুরে রোজ ভ্যালি নিয়ে একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছিল। পরবর্তী কালে রোজ ভ্যালি সংক্রান্ত নথিপত্র সিবিআইয়ের হাতে তুলে দেওয়ার সময়ে সেই মামলার কথা উল্লেখ করেনি সিট। যার ফলে, তাদের রোজ ভ্যালি নিয়ে মূল মামলা ভুবনেশ্বরে করতে হয়েছে সিবিআইকে। সিবিআই সূত্রের দাবি, শনিবার ও রবিবার রাজীব কুমারকে জেরা করে তাঁরা খুব সন্তুষ্ট তা নয়। বরং চিটফান্ড কাণ্ডের তদন্তে তিনি সক্রিয় ভাবে যুক্ত ছিলেন না বলেই নাকি তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদের সময় বারবার জানিয়েছেন রাজীব কুমার। সিবিআইয়ের ওই সূত্র জানাচ্ছে, রাজীব কুমার তাঁদের জানিয়েছেন, চিটফান্ড কাণ্ডের তদন্তে স্পেশাল ইনভেস্টিগেটিং টিম তথা সিট গঠন করা ছিল একটি প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত। তিনি সিটের প্রধান ছিলেন ঠিকই, কিন্তু যাবতীয় তদন্ত থানা স্তরে হয়েছে। তদন্তে খুবই পারদর্শিতার সঙ্গে কাজ করেছিলেন তৎকালীন বিধাননগর কমিশনারেটের গোয়েন্দা প্রধান অর্ণব ঘোষ। তা ছাড়া তাঁর উর্ধ্বতন কিছু অফিসারেরও ভূমিকা ছিল। তদন্তের সময় অর্ণব ঘোষ তাঁর কাছে পরামর্শ চাইলে তিনি তা মাঝে মধ্যে দিয়েছেন। কিন্তু বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার হিসাবে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বজায় রাখাই ছিল তাঁর মূল দায়িত্ব। তাতেই বেশি ব্যস্ত ছিলেন তিনি। এই পরিস্থিতিতে সিবিআইযের তরফে পাল্টা প্রশ্ন করা হয়, চিটফান্ড কাণ্ডে সিবিআই তদন্তের দাবি করে যখন সুপ্রিম কোর্টে মামলা হয়েছিল, তখন রাজ্য সরকার সর্বোচ্চ আদালতে হলফনামা দিয়ে বলেছিল, সিট খুবই দক্ষতার সঙ্গে তদন্তের কাজ এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। ফলে সিবিআই তদন্তের প্রয়োজন নেই। যার অর্থ একটাই রাজীব কুমারের নেতৃত্বেই তদন্তের কাজ এগোচ্ছিল। কলকাতার পুলিশ কমিশনারের পাশাপাশি চিটফান্ড কাণ্ডে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য অনেক আগেই অর্ণব ঘোষকে নোটিশ পাঠিয়েছিল সিবিআই। ওই নোটিশ নিয়ে প্রশ্ন তুলে ওই পুলিশ কর্তা হাইকোর্টে আবেদন করেছিলেন। তার পর অর্ণব ঘোষের বিরুদ্ধে ১৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কোনও পদক্ষেপ না করার নির্দেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট। কাল মঙ্গলবার কলকাতা হাইকোর্টে ফের মামলাটি ওঠার কথা। সিবিআই সুত্রে জানা গেছে, সুপ্রিম কোর্টের মতই হাইকোর্ট যদি অর্ণব ঘোষকে সিবিআইয়ের সঙ্গে সহযোগিতা করার নির্দেশ দেয়, তা হলে শিগগির তাঁকেও ডাকা হবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য। কলকাতার পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে তাঁকে মুখোমুখি বসিয়েও জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে। হিন্দুস্থান সমাচার / হীরক/ সঞ্জয়
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image