Hindusthan Samachar
Banner 2 रविवार, मार्च 24, 2019 | समय 00:00 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

অস্ত্রের ঝনঝনানিতে ত্রস্ত শিল্পাঞ্চল, নির্বাচনের আগে বেআইনী অস্ত্র উদ্ধারের দাবীতে সরব বিজেপি ও বামেরা

By HindusthanSamachar | Publish Date: Mar 11 2019 4:47PM
অস্ত্রের ঝনঝনানিতে ত্রস্ত শিল্পাঞ্চল, নির্বাচনের আগে বেআইনী অস্ত্র উদ্ধারের দাবীতে সরব বিজেপি ও বামেরা
দুর্গাপুর, ১১ মার্চ (হি. স.) : আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে প্রকাশ্যে শুটআউটের ঘটনায় ত্রস্ত হয়ে উঠেছে শিল্পাঞ্চল। ট্রাক চালক থেকে পার্কি ব্যাবসায়ী, শাসক- বিরোধী সব দলের কর্মীদের আক্রান্তের ঘটনা ঘটছে। আর তার জেরে আতঙ্কিত গোটা পশ্চিম বর্ধমানের দুর্গাপুর শিল্পাঞ্চল। প্রশ্ন উঠেছে পুলিশের ভূমিকায়। নির্বাচনের আগে বেআইনী অস্ত্র বাজেয়াপ্ত করার দাবীতে সরব হল বিজেপি ও বামেরা। উল্লেখ্য, গত ৯ মার্চ রাতে দুর্গাপুর ইস্ওাতনগরীর আকবর রোডে গ্যাং ওয়ারে গুলিবিদ্ধ হয় রাহুল সিং নামে এক যুবক। আশঙ্কাজনক অবস্থায় শহরের বেসরকারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এধরনের শুটআউট নতুন কিছু নয়। ইতিহাস ঘাটলে এখনও আঁতকে ওঠেন অনেকে। গত ২০১৪ সালে লাউদোহার মাধাইপুর গ্রামে দুপুরে বাড়ী থেকে বেরিয়ে দুস্কৃতীদের গুলিতে খুন হয় শেখ সেলিম নামে কয়লা মাফিয়া। ২০১৫ সালে ঈদের নামাজ পড়ে বেরতোই দুস্কৃতীদের গুলিতে খুন হয় শেখ আমিন নামে এক কয়লা মাফিয়া। ২০১৬ সালে ২৩ অক্টোবর দুর্গাপুর শহরে এসবিএসটিসির সদর দফতর এলাকায় একটি পেট্রোল পাম্পে দিনদুপরে শুটআউটে মৃত্যু হয় মদন চৌহান নামে এক লরি চালক। ওই একই পাম্পে ২০১৮ সালে মে মাসে একই কায়দায় শুটআউটে খুন হয় বিষ্ণু থাপা নামে এক পার্কিং ব্যাবসায়ী। ২০১৮ সালের ১১ সেপ্টম্বর অন্ডালের বেনিয়াডিহিতে দিনদুপরে শুটআউটে খুন হয় সুপ্রকাশ বন্দ্যোপাধ্যায় নামে এক ব্যাঙ্কমিত্র। তারপর কাঁকসার মলানদীঘিতে মিটিং সেরে বাড়ি ফেরার পথে দুস্কৃতীদের গুলিতে খুন হয় সন্দীপ ঘোষ নামে এক বিজেপি কর্মী। তার কয়েকদিন পর দুর্গাপুর ১৪ নং ওয়ার্ডে হামলার শিকার হয় শহরের মেয়র পারিষদ রাখি তেওয়ারী। ঘটনায় জনতার হাতে ধরা পড়া যুবকের কাছে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার হয়। তারপর এদিনের ঘটনায় আতঙ্কে আতঙ্কে শহরবাসী। বিজেপির পশ্চিম বর্ধমান জেলা সভাপতি লক্ষন ঘড়ুই জানান," ২০১১ সালে বিধান সভা নির্বাচনের আগে লাউদোহা, অন্ডাল, পন্ডবেশ্বরে প্রচুর অত্যাধুনিক অস্ত্র উদ্ধার করেছিল পুলিশ। পরিবর্তনের জামানায় তার থেকেও বেশী অস্ত্র মজুত হয়েছে। গোটা রাজ্য বারুদের স্তুপে। তাই নির্বাচন কমিশনের কাছে অর্জি অশান্তি, সন্ত্রাস ঠেকাতে এসব বেআইনী অস্ত্র বাজেয়াপ্ত করা হোক। এবং সমাজবিরোধীদের গ্রেফতার করা হোক।" সিপিএম নেতা পঙ্কজ রায় সরকার জানান," শহরের আইনশৃঙ্খলা এখন সমাজবিরোধীদের হাতে। বেআইনী অস্ত্র উদ্ধার ও মজুতকারীকে গ্রেফতারের দাবীতে বামফ্রন্টের পক্ষে নির্বাচন কমিশনে ডেপুটেশন দেওয়া হবে।" যদিও তৃণমূলের পশ্চিম বর্ধমান জেলা সভাপতি ভি শিবদাসন জানান," রাজনৈতিক রং না দেখে আইনানুগ ব্যাবস্থা নিতে পুলিশকে বলেছি। পুলিশ তদন্ত করছে।" আসানসোল- দুর্গাপুর পুলিশ কমিশনার লক্ষীনারায়ন মিনা জানান," ঘটনার তদন্ত চলছে। সারা বছরই বেআইনী অস্ত্র উদ্ধারের অভিযান হয়। কিছুদিন আগেও আসানসোলে বেশ কিছু আগ্নেয়াস্ত্র বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।" হিন্দুস্থান সমাচার / জয়দেব
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image