Hindusthan Samachar
Banner 2 शुक्रवार, मार्च 22, 2019 | समय 14:16 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

অসমে তিন দফায় ভোট দেবেন ২১,৭৬০,৬০৪ জন, বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ সিইও মুকেশ সাহুর

By HindusthanSamachar | Publish Date: Mar 11 2019 6:28PM
অসমে তিন দফায় ভোট দেবেন ২১,৭৬০,৬০৪ জন, বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ সিইও মুকেশ সাহুর
গুয়াহাটি, ১১ মার্চ (হি.স.) : সপ্তদশ লোকসভা নিৰ্বাচনে অসমে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হবে তিন দফায় ভোট। ভারতের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরা ঘোষিত নির্বাচনি নির্ঘণ্টের পরিপ্রেক্ষিতে আজ সোমবার অসমের মোট ১৪টি সংসদীয় আসনে ভোট পর্বের যাবতীয় তথ্য দিয়েছেন রাজ্যের নির্বাচন আধিকারিক মুকেশ সাহু। আজ জনতা ভবনে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে নির্বাচন আধিকারিক জানান, তিন দফায় যথাক্রমে ১১, ১৮ এবং ২৩ এপ্ৰিল ভোট গ্রহণ হবে অসমে। ভোটাধিকার সাব্যস্ত করবেন সর্বমোট ২১,৭৬০,৬০৪ জন। প্ৰথম দফায় ১১ এপ্রিল তেজপুর, কলিয়াবর, যোরহাট, লখিমপুর এবং ডিব্ৰুগড়ে ভোটের জন্য ১৮ মাৰ্চ থেকে শুরু হবে মনোনয়নপত্র দাখিল। মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন ২৫ মাৰ্চ। মনোনয়নপত্র পরীক্ষা হবে ২৬ মাৰ্চ। এর পর ২৮ মার্চ মনোনয়ন প্ৰত্যাহার শেষ দিন হিসেবে ধার্য করা হয়েছে। অনুরূপভাবে দ্বিতীয় দফার ভোট হবে ১৮ এপ্ৰিল। দ্বিতীয় দফায় করিমগঞ্জ (তফশিলি জাতি সংরক্ষিত), শিলচর, হাফলং ও কারবি আংলংকে নিয়ে ডিফু (উপজাতি সংরক্ষিত), মঙ্গলদৈ এবং নগাঁও-এর জন্য ১৯ মাৰ্চ থেকে ২৬ মাৰ্চ পর্যন্ত দাখিল করা যাবে মনোনয়ন। ২৭ মাৰ্চ মনোনয়নপত্রগুলি পরীক্ষা করা হবে। দ্বিতীয় দফার ভোটপ্রার্থীদের মনোনয়ন প্ৰত্যাহারের শেষ দিন ২৯ মাৰ্চ। ২৩ এপ্ৰিল ধুবড়ি, কোকরাঝাড়, বরপেটা এবং গুয়াহাটি আসনে অনুষ্ঠেয় তৃতীয় দফার ভোটের জন্য ২৮ মাৰ্চ থেকে দাখিল করা যাবে মনোনয়নপত্র। ৪ এপ্ৰিল মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন। মনোনয়নপত্রগুলো পরীক্ষা করা হবে ৫ এপ্ৰিল এবং তা প্ৰত্যাহারের জন্য ৮ এপ্ৰিলকে ধার্য করা হয়েছে। এ তথ্য দিয়ে নির্বাচন আধিকারিক মুকেশ সাহু জানান, প্ৰথম দফায় মোট ভোটারের সংখ্যা ৭৫,১৬,২৮৪। ৯,৫৭৪টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ হবে। এভাবে দ্বিতীয় দফায় মোট ভোটা রয়েছেন ৬৮,৩৬,৪৯৬টি। ভোট কেন্দ্ৰের সংখ্যা ৮,৯৯২। তৃতীয় দফায় মোট ভোটার ৭৪,০৭,৮২৪জন। ভোট গ্রহণ হবে ৯,৫৭৭টি কেন্দ্ৰে। এর মধ্যে স্পৰ্শকাতর ভোট কেন্দ্ৰ ১,৯১৩টি এবং ৩,৬৬৩টিকে অতি স্পৰ্শকাতর হিসেবে কেন্দ্ৰ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। স্পৰ্শকাতৰ ভোট কেন্দ্ৰগুলিতে বিশেষ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানান নিৰ্বাচন আধিকারিক। আরও জানান, এবারের ভোট পর্ব ওয়েব কাস্টিং ব্যবস্থার মাধ্যমে পৰ্যবেক্ষণ করা হবে। এই ব্যবস্থায় মুখ্য নির্বাচনি কাৰ্যালয়ে বসে সরাসরি ভোট গ্রহণ পর্ব দেখা যাবে। তাছাড়া জেলা নিৰ্বাচন আধিকারিকের কাৰ্যালয়েও এই ব্যবস্থায় ভোটগ্ৰহণের যাবতীয় পর্ব দেখা যাবে বলে জানান তিনি। নির্বাচন আধিকারিক মুকেশ জানান, অন্যবারের মতো এবারও প্ৰাৰ্থীদের ব্যয়ের ওপর বিশেষ নজর রাখবে নিৰ্বাচন কমিশন। সার্ভিস ভোটাররা ইলেকট্রনিক্যালি ট্র্যানসমিটেড পোস্টাল ব্যালটের মাধ্যমে ভোট দিতে পারবেন বলে জানিয়ে মুখ্য নির্বাচন আধিকারিক জানান, ইন্টারনেটের মাধ্যমে সাৰ্ভিস ভোটারদের পাঠানো হবে ব্যালট। এছাড়া, cVigil মোবাইল অ্যাপ-এর মাধ্যমে নিৰ্বাচনি আচরণবিধি ভঙ্গ সংক্রান্ত অভিযোগ কমিশনের কাছে যে কেউ জানাতে পারবেন বলে জানান তিনি। এছাড়া অপরাধজনিত ঘটনার সঙ্গে জড়িত প্ৰাৰ্থীদের ক্ষেত্ৰেও কিছু নয়া নিৰ্দেশিকার তথ্যও দিয়েছেন সাহু। তিনি জানান, এই প্রথম মনোনয়ন প্ৰত্যাহারের সময়সীমার পর সংশ্লিষ্ট অপরাধের সঙ্গে জড়িত প্রার্থীকে তাঁর মামলা সম্পর্কে সংবাদ মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিয়ে সর্বসাধারণকে জানাতে হবে। অন্তত তিনবার সংবাদপত্র এবং বৈদ্যুতিন মাধ্যমে তাঁর মামলার বিস্তারিত তথ্য সম্প্রচারিত করতে হবে তাঁকে। কেবল প্রার্থীকেই নয়, সংশ্লিষ্ট প্ৰাৰ্থীর দলকেও তাঁর মামলার সবিশেষ তথ্য তাদের ওয়েবসাইটে আপলোড করতে হবে। হিন্দুস্থান সমাচার / এসকেডি / কাকলি
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image