Hindusthan Samachar
Banner 2 शुक्रवार, मार्च 22, 2019 | समय 13:27 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

দুই তৃণমূল নেতার ‘হুমকি’, রাজ্যের নির্বাচনকর্তারা জানাচ্ছেন কমিশনকে

By HindusthanSamachar | Publish Date: Mar 11 2019 7:57PM
দুই তৃণমূল নেতার ‘হুমকি’, রাজ্যের নির্বাচনকর্তারা জানাচ্ছেন কমিশনকে
কলকাতা, ১১ মার্চ (হি. স.) : অনুব্রত মন্ডল এবং ববি হাকিম প্রচ্ছন্ন হুমকি দিচ্ছেন বলে পশ্চিমবঙ্গের বিরোধী দলগুলোর তোলা অভিযোগ কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনে জানাবেন রাজ্যের নির্বাচনী আধিকারিকরা। এদিন বিরোধী নানা দলের প্রতিনিধিরা কলকাতায় নির্বাচনী আধিকারিকদের সঙ্গে একটি ‘সর্বদলীয়’ বৈঠক করেন। পরে সন্ধ্যায় একথা জানান সহকারী মুখ্য নির্বাচনী অফিসার অমিতজ্যোতি ভট্টাচার্য। বেশ ক‘দিন ধরে অনুব্রত মন্ডল বিরোধীদের কড়া স্বরে ’পাঁচন’ দেওয়ার কথা বলছেন। রবিবার ভোট ঘোষণার পরেও তিনি প্রকাশ্যে এই মন্তব্য করেন। অন্যদিকে, ভোটে কেন্দ্রীয় বাহিনী এলেও তারা চলে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন ববি হাকিম। তাঁর বক্তব্য, এরপর তো কলকাতা ও রাজ্য পুলিশই দায়িত্বে থাকবে। রাজ্যের বিরোধীদের মতে, শাসক নেতাদের এ রকম মন্তব্য হুমকির সামিল। এদিন কংগ্রেস ও বিজেপি-র তরফে রাজ্যের নির্বাচনী আধিকারিকের কাছে এ নিয়ে অভিযোগ করা হয়। পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে অমিতজ্যোতিবাবু বলেন, “আমরা বিষয়টি কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনকে জানাব। প্রয়োজনে ভিডিও রেকর্ডিং পাঠানো হবে।” ভোটে অভিযুক্ত প্রার্থীকে এবার নিজের খরচে প্রচারমাধ্যমে ঘোষণা করতে হবে তাঁর বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগে মামলা থাকলে সেটি কোন পর্যায়ে আছে। দৈনিকে এ ব্যাপারে তাঁকে বিজ্ঞাপন দিতে হবে। প্রচার করতে হবে টেলিভিশনের দৃশ্যমান চ্যানেলেও। এদিন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের বিষয়টি জানিয়ে দেন রাজ্যের নির্বাচন আধিকারিকরা। বিভিন্ন সরকারি ভবন থেকে নির্বাচনী প্রচার সরিয়ে দিতেও বলা হয়েছে রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের। ব্যক্তিগত ভবনে মালিকের আপত্তি থাকলে সেখানে লিখন বা প্রচার চলবে না। নির্বাচন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, এসব নিয়ে কারও কোনও নির্দিষ্ট বক্তব্য বা অভিযোগ টোলমুক্ত ১৯৫০ নম্বরে জানিয়ে দিলে অভিযোগকারী মোবাইলে সঙ্গে সঙ্গে তার প্রাপ্তিস্বীকার পেয়ে পাবেন। পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচনী বিধি মেনে পুলিশের নানা পর্যায়ে বদলি কার্যকরী হলেও অনেক অনিয়ম আছে বলে বিরোধী নেতারা আজ অভিযোগ তুলেছেন। এই নেতাদের দাবি খতিয়ে দেখা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন অমিতজ্যোতিবাবু। যদিও তিনি দাবি করেছেন, এ ব্যাপারে লিখিতভাবে কোনও অভিযোগ কমিশনের কাছে আসেনি। প্রশাসনের তরফে আগে ঘোষণা করা হয়েছিল, ভোট ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে ‘সিটিজেন ভিজিল’ অ্যাপটি চালু হয়ে যাবে। তা হয়নি। এ নিয়েও এ রাজ্যের বিরোধী দলগুলি ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। সাংবাদিকরা এ নিয়ে প্রশ্ন করলে অমিতজ্যোতিবাবু বলেন, “আমরা বিষয়টি নির্বাচন কমিশনের নজরে আনছি।” এদিন তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও সুব্রত বক্সি, সিপিএমের রবীন দেব, বিজেপি-র জয়প্রকাশ মজুমদার, কংগ্রেসের দেবব্রত বসু ও প্রশান্ত দত্ত, সিপিআইয়ের প্রদীপ দে মুখ্য নির্বাচনী অফিসারের সর্বদলীয় বৈঠকে অংশ নেন। হিন্দুস্থান সমাচার / অশোক
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image