Hindusthan Samachar
Banner 2 शनिवार, मार्च 23, 2019 | समय 09:47 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

স্বামীকে বাঁচাতে কিডনি দেবেন স্ত্রী, আবেদন সাহায্যের

By HindusthanSamachar | Publish Date: Mar 12 2019 4:02PM
স্বামীকে বাঁচাতে কিডনি দেবেন স্ত্রী, আবেদন সাহায্যের
শিলিগুড়ি, ১২ মার্চ (‌হি.‌স)‌:‌ দুটি কিডনিই বিকল হতে বসেছে শিলিগুড়ি পুরনিগমের ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা দেবাশীষ চক্রবর্তীর (‌৩৯)‌। বাড়িতে স্ত্রী ও সাড়ে তিন বছরের শিশু পুত্র রয়েছে। পুজার্চনা করে চলছিল সংসার। কিন্তু বছর তিনেক আগে সংসারে নেমে আসে অন্ধকার। অস্ত্রোপচার করতে ভিন রাজ্যে যেতে বলেছে ডাক্তার। তারজন্য প্রয়োজন অর্থের। ছোট ছেলেকে নিয়ে দিশাহারা চক্রবর্তী পরিবার। এমন অবস্থায় স্বামীকে বাঁচিয়ে তুলতে নিজের কিডনি দেবেন বলে স্ত্রী চৈতালী চক্রবর্তীর অঙ্গিকারবদ্ধ হয়েছেন। ছোট ছেলে আর্য যেন তাঁর বাবাকে হারিয়ে না বসে তারজন্য চৈতালীদেবী স্বামীর সঙ্গে ভিন রাজ্যে যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন। এদিকে, পেশায় পুরোহিত দেবাশীষবাবুর এহেন দুদর্শার দিনে পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন এলাকার মানুষ। তাঁরা ছাপিয়েছেন কুপন। যা দিয়ে অর্থ সংগ্রহও শুরু করেছেন। কিন্তু প্রয়োজন আরও অর্থের। শহরের সহৃদয় ব্যক্তিদের কাছে সাহায্যের আবেদন করেছেন চক্রবর্তী পরিবার। অর্থের জোগান হলেই কিডনির চিকিৎসা করাতে পাড়ি দেবেন ভিন রাজ্যে। প্রসঙ্গত, ওয়ার্ডের ৩ নম্বর বরো কার্যালয়ের সামনে বাড়ি দেবাশীষবাবুর। বাড়িতে তিন ভাই রয়েছে। বৃদ্ধ মা–ও আছেন। বাড়িতে বাড়িতে পুজো করে কোনওরকমে চলছিল সংসার। হঠাৎ ৩ বছর আগে দেখা দেয় সমস্যা। প্রথমে শহরের একাধিক নার্সিংহোম, হাসপাতালে চিকিৎসা করিয়ে বহু টাকা ব্যয় করে ফেলেছেন তাঁরা। পরে হায়দরাবাদে গিয়েও চিকিৎসা করিয়ে আসেন। ৩ মাস অন্তর অন্তর যেতে হয় সেখানে। কিন্তু এক সপ্তাহ আগে দেবাশীষবাবু গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে ফের তাঁকে ভর্তি করা হয় শহরের একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে। তাঁর দুটো কিডনির ৭০ শতাংশ বিকল। ভিন রাজ্যের ডাক্তারদের সঙ্গে কথা বলেছেন। কিডনি প্রতিস্থাপন করার কথা বলেছে। দেবাশীষবাবুর ছোট ভাই শুভাশীষ চক্রবর্তী বলেন, ‘‌বৌদি ঠিক করেছেন কিডনি দেবেন বলে। আমরা এতদিন চিকিৎসা করাতে করাতে সর্বশান্ত। এলাকার মানুষ পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। কুপন বানিয়ে মানুষের কাছে সাহায্যের আবেদন করছি। আমাদের আশা শহরের শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষ আমাদের পাশে এসে দাঁড়াবেন।’‌ চৈতালী চক্রবর্তী বলেন, ‘‌ছেলে খুবই ছোট। সে যেন বাবাকে না হারায় তারজন্য আমি কিডনি দেব। প্রাথমিকভাবে কথাবার্তা হয়েছে। অর্থের জোগান হলেই ভিন রাজ্যে পাড়ি দেব। একইসঙ্গে তিনি শহরবাসীর কাছে সাহায্যের আবেদন করেছেন। অন্যদিকে, সূর্যনগর সমাজকল্যাণ সংস্থার সদস্য তমাল সরকার, সমাজসেবী পুলক দত্ত–সহ পাড়া–প্রতিবেশীরা চক্রবর্তী পরিবারের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। সবার একটাই আবেদন দেবাশীষ ফিরে পাক সুস্থ স্বাভাবিক জীবন। হিন্দুস্থান সমাচার / প্রভাস /কাকলি
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image