Hindusthan Samachar
Banner 2 रविवार, मार्च 24, 2019 | समय 21:17 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

তিলোত্তমা হোক ধোঁয়ামুক্ত

By HindusthanSamachar | Publish Date: Mar 12 2019 4:52PM
তিলোত্তমা হোক ধোঁয়ামুক্ত
কলকাতা, ১২ মার্চ (হি.স.): ‘তামাক স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক’, সিগারেটের প্যাকেট থেকে শুরু করে সিনেমার শুরুতে এই বিজ্ঞাপন সবসময়ই চোখে পরে আমাদের | কিন্তু তাতে কতটা সচেতন হচ্ছে সমাজ ! তাই এবার কলকাতাকে তামাক মুক্ত করার জন্য, কলকাতার নামী হাসপাতালের ডাক্তার ও চিত্র পরিচালকদের যৌথ প্রয়াশ লক্ষ করা গেল শহরের বুকে | আজ ১২ মার্চ ‘নো স্মোকিং ডে’ তে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় কলকতা প্রেস ক্লাবে | এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণা সুপার স্পেসালিস্ট হাসপাতালের সিনিয়র হেড ও নেক সার্জেন সৌরভ দত্ত ও হর্ষ ধর, নারায়ণা হেলথের পূর্বাঞ্চলীয় ডিরেক্টর আর ভেঙ্কটেশ এবং আইডিএ পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য শাখার সচিব ডাক্তার রাজু বিশ্বাস | এছাড়াও এদিন উপস্থিত ছিলেন, চিত্র পরিচালক শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় | সমবন্ধ হেলথ ফাউন্ডেশন, নারায়ণা সুপার স্পেসালিস্ট হাসপাতাল ও উইন্ডোজ ফিল্ম প্রযোজনার যৌথ উদ্যোগে আয়জিত হয় এদিনের অনুষ্ঠান | মঙ্গলবার, নারায়ণা সুপার স্পেসালিস্ট হাসপাতালের সিনিয়র হেড ও নেক সার্জেন সৌরভ দত্ত বলেন, ‘বর্তমানর পশ্চিমবঙ্গে ২.৩ কোটি মানুষ ধোঁয়াযুক্ত বা ধোঁয়াহীন তামাক ব্যবহার করেন । প্রায় প্রত্যেক বছর তামাক সংক্রান্ত রোগের কারণে প্রায় ১.৫ লক্ষ মানুষ মারা যাচ্ছেন । তার কথায় তাই ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে বাঁচানোর জন্য পশ্চিমবঙ্গকে ''তামাক মুক্ত’ করা প্রয়োজন। আর তার জন্যই প্রয়োজন সঠিক প্রচার | এদিন তিনি জানান, এই প্রচারের জন্যই ইতিমধ্যেই সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছেন তারা | চলতি বছরের ২ জানুয়ারি থেকেই শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিধাননগর থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এই তামাক বিরোধী উদ্যোগ গ্রহণ করেন তারা | এদিন চিত্র পরিচালক শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় বলেন, একজন দায়িত্ববান মানুষের কাজে সবসময়ই একটি বার্তা থাকা উচিত | সেই নিয়মই বরাবর অনুসরণ করে এসেছেন তিনি | এবার আবারও তার প্রকাশ ঘটতে চলেছে, শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের নতুন ছবি ''কন্ঠ'' তে | যা খুব শিগ্রই প্রকাশ পেতে চলেছে বড় পর্দায় | এই ছবির মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কাছে তামাকের বিরুদ্ধে সচেতনার বার্তাই পৌছে দিতে চেয়েছেন চিত্র পরিচালক | তার কথায়, প্রথম শিক্ষা মানুষ গ্রহণ করেন স্কুল থেকেই | তাই তামাকের বিরুদ্ধে সচেতনতার অভিযান প্রথম শুরু হয়েছে স্কুল থেকেই | এদিন নারায়ণা হেলথের পূর্বাঞ্চলীয় ডিরেক্টর আর ভেঙ্কটেশ জানান, ‘পশ্চিমবঙ্গে প্রতিদিন প্রায় ৪৩৮ টি শিশু তামাক সেবন শুরু করে। একইভাবে এদিন নারায়ণা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের হেড ও নেক সার্জেন ডাঃ হর্ষ ধর বলেন, ‘ যে সমস্ত মানুষরা মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে ৫০% মানুষ তামাক ব্যবহার করতেন | এমনকি ধূমপানের কারণে ক্যান্সার, দীর্ঘস্থায়ী ব্রঙ্কাইটিস, এমফিসমা, হৃদরোগ, স্ট্রোক ইত্যাদি রোগের ঝুঁকি বেড়ে যায়। পরোক্ষ ধূমপানে ক্যান্সার, ফুসফুসের রোগ, হাঁপানি ও বাচ্চাদের মধ্যে কানের সংক্রমণের ঝুঁকি দেখা যায় । অন্যদিকে, আইডিএ পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য শাখার সচিব ডাঃ রাজু বিশ্বাস বলেন, ধূমপান ছাড়াও ধোঁয়াবিহীন তামাকের ব্যবহারও মুখের স্বাস্থ্যের পক্ষে ঝুঁকির । তাহলে কেন ব্যান করে দেওয়া হচ্ছেনা তামাক দ্রব্যকে ? এই প্রশ্নের উত্তরে আর ভেঙ্কটেশ বলেন, রোগ প্রতিরোধ সবসময়ই রোগ সারানোর থেকে বেশি গুরুতবপূর্ণ । তাই স্কুল ছাত্রদের থেকেই তামাক ব্যবহার রোধ করতে আমরা উদ্যোগ নিয়েছি | ডাঃ রাজু বিশ্বাসের কথায়, তামাক মুক্ত স্কুলের ভাবনা, শিশুদের এবং তাদের বাবা-মা ও শিক্ষকদের মধ্যেও তামাক ব্যবহার প্রতিরোধে সহায়তা করবে। উল্লেখ্য, গ্লোবাল অ্যাডাল্ট টোবাকো সার্ভে (২০১৬-১৭) এর তথ্য অনুযায়ী, পশ্চিমবঙ্গে ১৫ বছরের বেশি বয়স্কদের মধ্যে ৩৩.৫ শতাংশ মানুষ, যা কিনা মোট জনসংখ্যার প্রায় ২.৩ কোটি, যে কোনও মাধ্যমে তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার করে। এর মধ্যে ৪৮.৫% পুরুষ ও ১৭.৯% মহিলা। এর মধ্যে ধোঁয়াযুক্ত তামাক ব্যবহার করেন ১৬.৭% মানুষ (৩১.৭% পুরুষ, ০.৯% মহিলা) ও ধোঁয়াহীন তামাক ব্যবহার করেন ২০.১% (২২.৮% পুরুষ, ১৭.২% মহিলা) । এই সমীক্ষা থেকে এও দেখা যাচ্ছে যে, পাবলিক প্লেস বা জনস্থানে পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হন ২২.৫% মানুষ। বাড়িতে বা ঘরের ভিতরে পরোক্ষ ধূমপানের দ্বারা আক্রান্ত হন ৫৬.১% মানুষ এবং কর্মক্ষেত্রে আক্রান্ত হন ৫৭.৫% মানুষ। বিড়ি (১৪.৪%) সবথেকে বেশি ব্যবহৃত তামাকজাত দ্রব্য। পশ্চিমবঙ্গে বিড়ি সেবনকারীরা খরচা করেন মাসে প্রায় ৩৯০.৫০ টাকা। হিন্দুস্থান সমাচার / রক্তিমা / কাকলি
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image