Hindusthan Samachar
Banner 2 रविवार, मार्च 24, 2019 | समय 20:38 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

আধুনিক জীবনাচরণ ও মোবাইল কেড়ে নিচ্ছে ঘুম, বাড়ছে জটিলতা

By HindusthanSamachar | Publish Date: Mar 12 2019 6:37PM
আধুনিক জীবনাচরণ ও মোবাইল কেড়ে নিচ্ছে ঘুম, বাড়ছে জটিলতা
কলকাতা, ১২ মার্চ (হি. স.): রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে গৃহবধূ মৌসুমীর রীতিমত অভ্যাস ইউ টিউব দেখার| স্বামীর বারন এক লহমায় উড়িয়ে দিয়ে বলেন, “এক দম দাদাগিরি করবে না! রাতে এই সময়টা আমার নিজের| ইউ টিউব না দেখলে ঘুম হবে না!” মঙ্গলবার চিকিৎসকরা রীতিমত সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়ে দিলেন, এ কিন্তু মোটেই ভাল লক্ষণ নয়| এখনই এই অভ্যাস দূর না করলে ভবিষ্যতে কিন্তু মুস্কিল! আজ ছিল বিশ্ব ঘুম দিবস| ১২ বছর ধরে পালিত হচ্ছে দিবসটি| দুই চিকিৎসক সৌরভ দাস এবং উত্তম অগ্রবাল এ দিন কলকাতা প্রেস ক্লাবে একটি সচেতনতা শিবির করেন| তাঁরা বলেন, “নানা রকম অসুখের নেপথ্যে রয়েছে ঘুমের জটিলতা ও অনিদ্রা| এর অন্যতম কারণ, আধুনিক জীবনাচরণ| ‘আর্লি টু বেড, আর্লি টু রাইজ ’ পুরনো এই প্রবাদটা আজও ভীষণ রকম সত্যি| অনেকে ঘুম বিষয়টাকে ততটা গুরুত্ব দেন না| বিমানবন্দরের বাসচালকের অথবা বৈঠকে মন্ত্রীর ঘুমিয়ে পড়ার খবর বা ছবি আমাদের আনন্দ দিতে পারে, কিন্তু এগুলি নিয়েও ভাবার দরকার আছে|” চিকিৎসকরা জানান, “রাতে প্রাপ্তবয়স্কদের কমবেশি ৮ ঘন্টা ঘুম দরকার| ঘুম ঠিকমত না হলে সহজে ওষুধ খাবেন না| ঘুম- বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা নানা জিনিস খতিয়ে বোঝার চেষ্টা করবেন, কেন ঘুম ঠিকমত হচ্ছে না| সেই বুঝে প্রয়োজনে ওষুধ দেবেন| ওষুধের ওপর নির্ভরশীল হয়ে গেলে ভবিষ্যতে কিন্তু ভাল চেয়ে মন্দ বেশি হবে|” সৌরভ দাস এবং উত্তম অগ্রবাল এ দিন বলেন, “দিন-রাত্রির বিভেদ মুছে যাচ্ছে বলে শরীরের জৈব ঘড়ি ঠিকমত কাজ করতে পারছে না| আমাদের অজান্তেই এমন অনেক কিছু করি, যাথে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটার আশঙ্কা থাকে| সতর্কতা হিসাবে তাঁরা, রাতে মোবাইল ঘাটা কমানোর পাশাপাশি বিকেলের পর থেকে চা-কফি-পানীয় কম পান, বাথরুমের কাজ করে ঘুমোতে যাওয়া প্রভৃতির উল্লেখ করেন|” চিকিৎসকদের মতে, ঘুম মানুষের একটি অত্যাবশ্যকীয় শরীরতান্ত্রিক প্রক্রিয়া। পরিমিত ঘুম সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করে। হৃদ্‌রোগসহ নানা রোগের ঝুঁকিও কমায়। নির্দিষ্ট এই ঘুম হলে প্রতিদিন সকালে আমরা সুস্থ অনুভূতি দিয়ে দিন শুরু করতে পারি। নয়তো অনিদ্রা শরীরে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়। নিদ্রাহীনতার ফলে স্বাস্থ্যহানীর শিকার হন বিশ্বের জনসংখ্যার ৪৫% মানুষ! সুনিদ্রার প্রয়জনীয়তা তুলে ধরতে ২০০৮ সাল থেকে ওয়ার্ল্ড স্লিপ সোসাইটি ‘বিশ্ব নিদ্রা দিবস’ পালন করার সিদ্ধান্ত নেয়। প্রতি বছর মার্চ মাসে মহাবিষুবের আগে এ দিনটি পালন করা হয়। এ দিনটির মূল লক্ষ্য হচ্ছে সুস্থ্যতার জন্য সুনিদ্রার প্রয়োজনীয়তা এবং নিদ্রাহীনতা ও এর চিকিৎসা, নিবারণ, শিক্ষা জনসমক্ষে তুলে ধরা। বিশ্ব নিদ্রা দিবসের মাধ্যমে প্রতি বছর ওয়ার্ল্ড স্লিপ সোসাইটি ঘুমের প্রয়োজনীয়তা এবং সমাজে এর প্রভাবের ব্যপারে জনসচেনতা সৃষ্টি করে। হিন্দুস্থান সমাচার/ অশোক / কাকলি
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image