Hindusthan Samachar
Banner 2 शनिवार, मार्च 23, 2019 | समय 10:37 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

জল্পনার অবসান, রাম মাধবের মধ্যস্থতায় ফের বিজেপির সঙ্গে গাঁটছড়া অগপ-র

By HindusthanSamachar | Publish Date: Mar 13 2019 7:37PM
জল্পনার অবসান, রাম মাধবের মধ্যস্থতায় ফের বিজেপির সঙ্গে গাঁটছড়া অগপ-র
গুয়াহাটি, ১৩ মার্চ (হি.স.) : যাবতীয় জল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে ফের বিজেপি-র সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়েছে রাজ্যের আঞ্চলিক দল অসম গণ পরিষদ (অগপ)। আসন্ন সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে দুই দল জোট বেঁধে একযোগে লড়াই করার অঙ্গীকার নিয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বিজেপি-র সর্বভারতীয় সভাপতি রাম মাধবের মধ্যস্থতায় গুয়াহাটিতে পঞ্চতারকা হোটল রেডিসন ব্লু-তে অনুষ্ঠিত দফায় দফায় বৈঠকে বিজেপি-র সঙ্গে ফের জোট গঠন করতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন অগপ-র কেন্দ্রীয় সভাপতি অতুল বরা, কার্যনির্বাহী সভাপতি কেশব মহন্তরা। রাত প্রায় বারোটা নাগাদ অগপ সভাপতি অতুল বরা, কেশব মহন্ত, নর্থ-ইস্ট ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স (নেডা)-এর আহ্বায়ক হিমন্তবিশ্ব শর্মাকে দু পাশে নিয়ে সাংবাদিকদের কাছে জোট বন্ধনের ঘোষণা করেছেন রাম মাধব। তবে রাজ্যের ১৪ আসনে কতটি আসন অগপকে ছাড়া হবে সে ব্যাপারে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়নি কোনও দল। উল্লেখ্য, লোকসভায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল ২০১৬ পাশ হলে গত ৭ জানুয়রি বিজেপি জোট থেকে বেরিয়ে গিয়েছিল অসমের আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল অগপ। এর পর দিল্লি থেকে ফিরে ৯ জানুয়ারি মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেছিলেন অসম গণ পরিষদের তিন বিধায়ক যথাক্রমে দলের সভাপতি অতুল বরা, কার্যনির্বাহী সভাপতি কেশব মহন্ত এবং ফণীভূষণ চৌধুরী। ওই দিন রাত প্রায় সাড়ে সাতটা নাগাদ মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়ালের সরকারি আবাসে গিয়ে তাঁরা তাঁদের পদত্যাগপত্র তুলে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্ৰীর হাতে। সেই সঙ্গে ছেড়েছিলেন সরকারি গাড়ি ও নিরাপত্তারক্ষীও। এর পর জল বহু গড়িয়েছে। সদ্যসমাপ্ত পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপি এবং অগপ পৃথক পৃথক ভাবে এককশক্তিতে লড়েছিল। পঞ্চায়েতে প্রায় সাফ হয়ে যায় অগপ। তখনই রাজ্যবাসীর কাছে দলের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে নানান প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। পরবর্তীতে বিজেপি-র সঙ্গে ফের জোট গড়ার প্রশ্নে বিস্তর জল ঘোলা হয় রাজ্য রাজনীতিতে। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশে বিজেপি যেখানে তাদের অবস্থানে অটল, সেখানে অগপও বিলের বিরুদ্ধাচরণ করে তা বাতিলের দাবিতে অনড় ছিল। জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর কংগ্রেস, বামপন্থী কৃষক মুক্তি সংগ্রাম সমিতি, আসু থেকে সব বিরোধীরা অগপকে খোলা হাতে সমর্থন করে তাদের এই দৃঢ় পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছিল। অগপ-র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি তথা প্রাক্তন মু্খ্যমন্ত্রী প্রফুল্লকুমার মহন্তও দলের ভিতরে এবং বাইরে আজ পর্যন্ত নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতা করে যাচ্ছেন। এদিকে মঙ্গলবার পর্যন্ত বিজেপির বিভিন্ন নেতা বলছিলেন, অগপ যদি তাদের অবস্থান পালটায়, অর্থাৎ নারকিত্ব সংশোধনী বিল ২০১৬-এর সমর্থন করে তা-হলে তাঁরা জোট সম্পর্কে ভেবে দেখতে পারেন। এমতাবস্থায় গতকালের ম্যারাথন বৈঠকে কিসের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল-এর সমর্থক বিজেপির সঙ্গে অগপ ফের গাঁটছড়া বেঁধেছে তা অবশ্য জানা যায়নি। অবশ্য জানা গেছে, রাজ্যের ১৪-এর মধ্যে তিন আসন অগপ-এর জন্য ছেড়ে দেবে বিজেপি। তিন আসনগুলি এখনও খোলসা না হলেও ধারণা করা হচ্ছে, নিম্ন অসমের ধুবড়ি, বরপেটা এবং মধ্য অসমের কলিয়াবর অগপ-এর জন্য ছেড়ে দেবে বিজেপি। গতকালের বৈঠকে ছিলেন, মুখ্যমন্রীজে সর্বানন্দ সনোয়াল, নেডা আহ্বায়ক হিমন্তবিশ্ব শর্মা, বিজেপির প্রদেশ সভাপতি রঞ্জিতকুমার দাস, মণিপুর এবং মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী যথাক্রমে নংথমবাম বীরেন সিংহ ও কনরাড কে সাংমা-সহ উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বিজেপি ও শরিক দলের বিশিষ্ট বেশ কয়েকজন নেতা। হিন্দুস্থান সমাচার / এসকেডি
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image