Hindusthan Samachar
Banner 2 शुक्रवार, अप्रैल 19, 2019 | समय 06:33 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

শিলচরে সিধু, ভাষণের আগাগোড়া ছিল মোদীর ওপর হামলা

By HindusthanSamachar | Publish Date: Apr 12 2019 9:15PM
শিলচরে সিধু, ভাষণের আগাগোড়া ছিল মোদীর ওপর হামলা
শিলচর (অসম), ১২ এপ্রিল (হি.স.) : চিরাচরিত নিজস্ব ভঙ্গিতে ''শায়েরি''র মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ওপর হামলা করে কংগ্রেস প্রার্থীর হয়ে ভোট চেয়ে গেলেন পঞ্জাবের পর্যটন, সংস্কৃতি বিভাগের মন্ত্রী নবজোৎসিং সিধু। শুক্রবার কাছাড় জেলা সদর শিলচরের ইটখলা খেলার মাঠে এক নির্বাচনি জনসভায় অংশ নিয়ে চৌকিদারের চুরি রুখতে জনসাধারণের কাছে আবেদন রাখেন সিধু। নবজোৎসিং সিধুর বক্তব্যের আগাগোড়াই ছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে টার্গেট করে। তিনি বলেন, মোদীজি চৌকিদারের নামে চুরি করছেন। আগামীতে যদি তাঁকে পুনরায় জনতা প্রধানমন্ত্রীর গদিতে বসান তা-হলে দেশ খতম হয়ে যাবে। দেশের জন্য তিনি অশনি সংকেত বলে মনে করেন সিধু। তিনি অভিযোগ করে বলেন, চৌকিদার গরিবের ঘরে থাকে না, ঝুপড়িতেও থাকে না, চৌকিদার থাকে ধনীদের ঘরে। তিনি মোদীকে চোরের চৌকিদার বলে অভিহিত করেছেন। দর্শকদের মধ্যে উৎসাহ বাড়াতে রাহুল গান্ধীর আদলে জনসাধারণের সঙ্গে স্লোগান দেন, ''গলি গলি-মে শোর হ্যায়, দেশ কে চৌকিদার চোর হ্যায়''। জোড়ালো গলায় সিধু বলেন, মোদীজি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর ৩৮৪টি সংকল্প নিয়েছিলেন। কিন্তু একটিও সম্পূর্ণ হয়নি। দেশের প্রতিটি নাগরিকের খাতায় কি ১৫ লক্ষ টাকা করে জমা পড়েছে? ভ্রষ্টাচার কি শেষ হয়েছে? বুলেট ট্রেনও চলেনি দেশে। মিথ্যা প্রতিশ্রুতিতে দেশবাসীকে বোকা বানানো হয়েছে। তিনি চ্যালেঞ্জ জানিয়ে একটি সংকল্প পূরণ হয়েছে দেখাতে পারলে রাজনীতি থেকে তিনি সন্ন্যাস নিয়ে নেবেন বলে ঘোষণা করেন সিধু। কথার মধ্যে মধ্যে শায়েরির আন্দাজে উপস্থিত দর্শকদের কাছে করতালির আবেদনও রাখেন তিনি। তাঁর দাবি, মোদীর সরকার গঠন হওয়ার পর থেকে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য, রোজগার খতম হয়ে গেছে। সিবিআই-এর মতো সংস্থাকে পঙ্গু করে দেওয়া হয়েছে। দেশের সর্বোচ্চ আদালতের গরিমা নীচে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে। লাভবান হয়েছেন কেবল আম্বানির মতো পুঁজিপতিরা। আম্বানি দেশের ৫০ হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন, অথচ খবর পাননি দেশবাসী। গত ৪৫ বছরের মধ্যে কেবল গত পাঁচ বছরে দেশের বেকারত্ব হু হু করে বেড়েছে দেশে, দাবি করে সিধুর অভিযোগ, বিজেপি ধর্মের নামে মানুষের মধ্যে বিভাজনের রাজনীতি করছে। আজকের সমাবেশে তিনি বলেন, হিমালয়কে যেমন হেলানো অসম্ভব, পৃথিবীকে যেমন ওঠানো যাবে না, সাগরের জলকে কেউ শুকাতে পারবে না, তেমনি শিলচর আসন থেকে কংগ্রেস প্রার্থী সুস্মিতা দেবকেও কেউ টলাতে পারবে না। টেনেটোনে হাজার চার-পাঁচের সমাবেশে সাংসদ-প্রার্থী সুস্মিতা দেবও মোদী সরকারকে বিভিন্ন দিক থেকে আক্রমণ করেন। বলেন, মোদীজি আপাদমস্তক একজন মিথ্যাবাদী। তাঁর কথার কোনও দাম নেই। তিনি স্মরণ করিয়ে বলেন, বরাক উপত্যকায় এসে যে-সব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, একটিও কি পূর্ণ করেছেন তিনি? তা জানতে চান বিজেপি-র কর্মকর্তাদের কাছে। বলেন, কোথায় গেল কাছাড় কাগজ কলকে পুনরুজ্জীবিত করার প্রতিশ্রুতি? কোথায় গেল বছরে দুই কোটি বেকারকে কর্মসংস্থান দেওয়ার প্রতিশ্রুতি? বরাক উপত্যকায় সম্প্রতি যে-সব উন্নয়নমূলক কাজের ফলকে বিজেপির নেতা মন্ত্রীরা নাম লিখিয়েছেন সে-সবের শুরু হয়েছিল কংগ্রেস আমলেই। নোট বন্দি করে দেশের মধ্যে যে অস্থিরতার বাতাবরণের সৃষ্টি হয়েছিল এতে কোনও লাভ হয়নি দেশের। ফায়দা হয়েছে কেবল শিল্পপতিদের, দাবি সুস্মিতার। বরাক উপত্যকার মানুষকে আর মিথ্যা প্রতিশ্রুতিতে ঠকানো যাবে না বলে আশা ব্যক্ত করেছেন সুস্মিতা দেব। রাজ্যের প্রক্তন মন্ত্রী তথা উধারবন্দের প্রাক্তন বিধায়ক অজিত সিং দাবি করেন, এবারের লোকসভা নির্বাচনে ২০১৪ সালের ভোট থেকেও বেশি ভোটে জিতবেন সুস্মিতা দেব। সকল সম্প্রদায়ের সমান হারে ভোট কংগ্রেসের পক্ষে যাবে বলে তিনি আশাবাদী। এদিনের নির্বাচনি জনসভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বড়খলার প্রাক্তন বিধায়ক রুমি নাথ, সোনাইয়ের প্রাক্তন বিধায়ক কুতুব আহমেদ মজুমদার, জেলা কংগ্রেস সভাপতি প্রদীপকুমার দে, কংগ্রেস নেতা সঞ্জীব রায়-সহ অনেকে। প্রসঙ্গত, দ্বিতীয় দফায় ১৮ এপ্রিল শিলচর আসনে ভোট। হিন্দুস্থান সমাচার / পুলক / এসকেডি/ সঞ্জয়
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image