Hindusthan Samachar
Banner 2 शुक्रवार, अप्रैल 19, 2019 | समय 06:20 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

নির্বাচনে দশভূজা, বিজেপি প্রর্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী

By HindusthanSamachar | Publish Date: Apr 13 2019 2:20PM
নির্বাচনে দশভূজা,  বিজেপি প্রর্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী
মালদা, ১৩ এপ্রিল (হি. স.) : দক্ষিণ মালদা কেন্দ্রে বিজেপি আগামী লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী করেছেন শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরীকে। তাঁর ছোটবেলা কেটেছে মালদাতেই। নির্ভয়া কাণ্ডের পর মনমোহন সিং সরকার নারীদের নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়গুলি খতিয়ে দেখতে যে কমিটি গড়েছিল, শ্রীরূপা ছিলেন তার চেয়ারপার্সন। স্বামী রামকৃষ্ণ মিত্র ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের যুগ্ম সচিব। অবসরের পরেও নিযুক্ত রয়েছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকেই। গত লোকসভা ভোটে শ্রীরূপা তৃণমূলের টিকিটে লড়েছিলেন দক্ষিণ দিল্লি কেন্দ্র থেকে। যদিও সুবিধা করতে পারেননি। পরে যোগ দেন বিজেপিতে। কখনও কংগ্রস, কখনও তৃণমূল আবার কখনও বা বিজেপির সঙ্গে শ্রীরূপার ঘনিষ্ঠতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। তাঁকে প্রার্থী করায় জেলায় বা দলের অন্দরে ক্ষোভ ছিল। প্রার্থী ঘোষণার পাঁচদিন পরে মালদহে যান শ্রীরূপা। নেতা-কর্মীদের ক্ষোভ সামাল দিতে প্রচারে নেমে পড়ার আগে প্রথমে বৈঠক শুরু করেন। তার পরে ভোট প্রচার শুরু করেন তিনি। ধন্দের নিরসনের চেষ্টায় তাঁর সমর্থনে ইতিমধ্যে নির্বাচনী প্রচার করেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। গত শনিবার সাতসকালে মালদা শহরের গৌড়রোড মোড় এলাকা থেকে পদযাত্রা করে নির্বাচনী প্রচার করেন দিলীপবাবু। মিছিল শেষ হয় নেতাজি মোড় এলাকায়। দিলীপবাবু এবং শ্রীরূপা ছাড়াও এই মিছিলে অংশ নেন বিজেপির জেলা সভাপতি সঞ্জীব মিশ্রসহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা। দলীয় সূত্রের খবর, এখন পরিস্থিতি অনেকটাই ইতিবাচক হয়ে উঠেছে। কখনও ভোর পাঁচটা থেকে ঘুম থেকে উঠে প্রাতঃভ্রমণকারীদের সঙ্গে জনসংযোগে জোর দিচ্ছেন। তারপরে সকালে হয়ত ইংরেজবাজার শহরের ফোয়ারা মোড়ে যোগ দিচ্ছেন চায়ের আড্ডায়। ওই চত্বরে থাকা শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের মূর্তির চারপাশে সাফাই অভিযান করেছেন শ্রীরূপা। শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী ছোট ছোট কর্মিসভা থেকে গ্রামের হাটেও প্রচার সারছেন। চলছে প্রাতঃভ্রমণে পথ চলতি মানুষের সঙ্গে কথা, চায়ের ঠেকে আড্ডা। রবিবার ছুটির দিনও সেই অভ্যেস বদলাননি দক্ষিণ মালদহের বিজেপি প্রার্থী। সকালে পুজো করে সামান্য চিড়ে খেয়ে প্রচারে বেরিয়ে পড়ছেন তিনি। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চষে ফেলার চেষ্টা করছেন ইংরেজবাজার শহরের তৃণমূল পরিচালিত ওয়ার্ডগুলো। তাঁর প্রচারে মানুষের সাড়া নেই বলে কটাক্ষ করেছেন তৃণমূল নেতারা। এটা এক ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে শ্রীরূপা দাবি করেছেন, প্রচারে বেরিয়ে সর্বত্রই ভাল সাড়া মিলছে। বৈষ্ণবনগর থেকে জেলায় প্রথম প্রচার শুরু করেছিলেন তিনি। গত, বিধানসভা নির্বাচনে ওই কেন্দ্র থেকে জয়ী হয়েছিল বিজেপি। এর পর শহর এলাকায় প্রচারে জোর দিলেন শ্রীরূপা। প্রচারে বেরিয়ে পথ চলতি মানুষকে প্রণাম করছেন কখনও। কখনও আবার সাধারন মানুষের বাড়িতে ঢুকে পড়ছেন। সকালে একপ্রস্থ প্রচারের পর বাড়ি ফিরে স্নান সেরে পুজোয় ব্যস্ত হয়ে পড়েন।ইংরেজবাজার শহরের বালুচর এলাকার বাড়ির সামনে দলীয় কর্মী, সমর্থকদের ভিড় জমতে শুরু করে। তড়িঘড়ি জল দিয়ে চিড়ে ভিজিয়ে খেয়ে ফের বেড়িয়ে পড়তে হচ্ছে প্রচারে। ২০০৯ সালে তৈরি হয় দক্ষিণ মালদা লোকসভা কেন্দ্র। এর পর দুটি লোকসভা নির্বাচনেই কংগ্রেসের আবু হাসেম খান চৌধুরী বিপুল ভোটে জয়ী হন। এ বারও তিনি ওই কেন্দ্র থেকে কংগ্রেস প্রার্থী। সিপিএম দাঁড় করিয়েছে ডাক্তার মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেনকে। ২০০৯-এ এই কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী পেয়েছিলেন প্রদত্ত ভোটের ৫ দশমিক ৩০ শতাংশ। ২০১৪-তে তা বেড়ে হয় ১৯ দশমিক ৭৯ শতাংশ। সে বার বিজেপি প্রার্থী বিষ্ণুপদ রায় সিপিএম এবং তৃণমূল প্রার্থীকে পিছনে ফেলে উঠে আসেন দ্বিতীয় স্থানে। এ বার ভোট কাটাকাটিতে শ্রীরূপা কোনওভাবে কি কেল্লা ফতে করতে পারেন? অনেকে আশা করছেন সে রকমই। আশাবাদী বিজেপি প্রার্থী নিজেও। মানিকচক, ইংলিশবাজার, মোথাবাড়ি, সুজাপুর, অশোকনগর, ফারাক্কা, সামশেরগঞ্জ— এই সাত বিধানসভা কেন্দ্রের অলিগলি চষে ফেলার চেষ্টা করছেন লক্ষ্যপূরণের আশায়।হিন্দুস্থান সমাচার/ অশোক
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image