Hindusthan Samachar
Banner 2 रविवार, अप्रैल 21, 2019 | समय 02:03 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

ঝাড়গ্রামে দলমা দলের আতঙ্কে মানুষজনেরা

By HindusthanSamachar | Publish Date: Apr 13 2019 6:12PM
ঝাড়গ্রামে দলমা দলের আতঙ্কে মানুষজনেরা
ঝাড়্গ্রাম, ১৩ এপ্রিল ( হি. স.) : দলমা দলের আতঙ্কে বাসন্তী মেলা দেখতে যেতে পারছেন না মানুষজনেরা। পাশাপাশি ধান জমির ও করলা চাষের ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি করছে দাঁতালের দল। তার উপরে গ্রামের একটি অংশে বিদ্যুতের ট্রান্সফারমার বিকল যার ফলে গোটা গ্রাম ডুবে থাকে অন্ধকারে। যার ফলে আতঙ্ক আরও বেশি করে গ্রাস করেছে বাসিন্দাদের। বনদফতর ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে ঝাড়্গ্রাম জেলার জাম্বনী ব্লকের ঘুটিয়ে, ফুলবেড়িয়া, বাঁকড়া ও বালিডিহা এলাকায় প্রায় তিনটি হস্তি শাবক সহ মোট ১২ টি হাতি রয়েছে। জানা গিয়েছে কালবৈশাখীর দাপটের পাশাপাশি বজ্রপাতের কারণে ঘুটিয়া গ্রামের একটি অংশে বিদ্যুতের ট্রান্সফারমার বিকল হয়ে গিয়েছে। তারপর থেকে গোটা গ্রাম অন্ধকারে রয়েছে। এই ঘুটিয়া গ্রামে বাসন্তী পুজো উপলক্ষে বিশাল মেলা বসেছে। এলাকায় হাতি থাকার কারণে বাসন্তী মেলায় পাশাপাশি গ্রামের মানুষজনেরা মেলায় আসতে পারছেন না হাতির ভয়ে। শনিবার সকাল আটটা নাগাদ রাজ্য পার হয়ে ঝাড়খণ্ড সীমান্তবর্তী এলাকার দিকে যাতে দেখেন বাসিন্দারা। বাসিন্দাদের অভিযোগ হাতি গুলি দীর্ঘ দিন ধরে এই এলাকায় রয়েছে। বনদফতর হাতিগুলিকে তাড়ানোর কোনও উদ্যোগ নেয়নি। ঘুটিয়া বাসন্তী পূজো কমিটির কোষাধ্যক্ষ প্রশান্ত বেরা, সদস্য দেবব্রত বেরারা বলেন " হাতি থাকার কারণে পাশাপাশি গ্রামের মানুষজনেরা মেলা দেখতে আসতে পারেনি। তাই মেলা কমিটি ও গ্রামবাসীরা উদ্যোগ নিয়েছে হাতি গুলিকে একেবারে ঝাড়খন্ডের দিকে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। অন্যদিকে লালগড়ের দিক থেকে প্রায় ৪০ টি হাতিকে ঝাড়খন্ডের দিকে ড্রাইভ করানোর চেষ্টা করছে বনদফতরের কর্মীরা। বনদফতর সুত্রে জানা গিয়েছে লালগড়ের কমলাশোল, ডিএম বাঁধ, রাঙামেটিয়া, প ডিহা, হয়ে লালগড়ে কংসাবতী নদী পার করিয়ে ধামরো, চন্দ্রপুর, শিলাপাড়া, রানারানী, কুসুমডান্ডা হয়ে কুশবিনীর জঙ্গলে প্রবেশ করে। পরে এদিন দুপুরে হাতির দলটিকে মালাবতীর জঙ্গেলর দিকে ড্রাইভ করিয়েছে বনদফতরের কর্মীরা। বনদফতর মনে করছে যেহেতু হাতি গুলির মুভমেন্ট ঝাড়খন্ডের দিকে রয়েছে। এবিষয়ে ঝাড়্গ্রাম বনবিভাগের ডিএফও বাসব রাজ হেলোচ্চি বলেন, "জাম্বনী ব্লকের বেশ কয়েকটি গ্রামে হাতি তান্ডব চালিয়েছে। হাতি গুলিকে ঝাড়খন্ডের দিকে তাড়ানোর ব্যাবস্থা করছে বন কর্মীরা। যে সব কৃষকদের ফসল নষ্ট করেছে তারা সরকারি নিয়ম অনুযায়ী ক্ষতিপূরণ পাবেন। অন্য দলটিকেও ঝাড়খন্ডের দিকে তাড়ানোর ব্যাবস্থা করা হচ্ছে।"হিন্দুস্থান সমাচার / গোপেশ
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image