Hindusthan Samachar
Banner 2 शुक्रवार, अप्रैल 19, 2019 | समय 06:43 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

সিএবি এবং দেশের সুরক্ষার খাতিরে বিজেপি প্রার্থীকে ভোট দিয়ে মোদীর হাত শক্ত করার আহ্বান রূপা গাঙ্গুলির

By HindusthanSamachar | Publish Date: Apr 13 2019 10:33PM
সিএবি এবং দেশের সুরক্ষার খাতিরে বিজেপি প্রার্থীকে ভোট দিয়ে মোদীর হাত শক্ত করার আহ্বান রূপা গাঙ্গুলির
করিমগঞ্জ (অসম), ১৩ এপ্রিল (হি.স.) : নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (সিএবি) আমাদের জন্যে। আমার পূর্বপুরুষরাও ধর্মীয় নির্যাতনের শিকার হয়ে ভিটেমাটি হারিয়ে এ-দেশে আশ্রয় নিয়েছিলেন। আপন করে নিয়েছিলেন ভারতবর্ষের আকাশ, বাতাস, মাটি, মানুষ। আজ করিমগঞ্জ জেলার চার স্থান যথাক্রমে রামকৃষ্ণনগর, বাজারিছড়া, বদরপুর ও করিমগঞ্জ শহরে আয়োজিত নির্বাচনি জনসভায় বক্তব্য পেশ করতে গিয়ে এভাবেই নিজের আবেগ প্রকাশ করেছেন, মহাভারত সিরিয়ালের দ্রৌপদীখ্যা ত তথা রাজ্যেসভার সদস্য রূপা গাঙ্গুলি। রূপা বলেন, দীর্ঘ ৫৫ বছরের শাসনকালে কংগ্রেস নাগরিকত্ব বিল নিয়ে শরণার্থীদের সঙ্গে প্রতারণা করে এসেছে। একমাত্র প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যিনি এই বিল সংসদে পেশ করার সাহস দেখাতে পেরেছেন। কিন্ত ক্ষমতালোভী কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূল কংগ্রেস-সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাদের বাধার কারণে আমার এবং আপানাদের মতো উদ্বাস্তুদের রক্ষাকবচ এই বিল রাজ্যআসভায় আটকে যায়। তাই এবার একটি ভোট‌ও নষ্ট না করে দলীয় প্রার্থী কৃপানাথ মালাহের মাধ্যামে নরেন্দ্র মোদীর হাতকে শক্ত করতে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান রূপা গাঙ্গুলি। তিনি বলেন, আমরা সংসদে যাই জনগণের স্বার্থজড়িত বিল পাস করার জন্যে। আর কংগ্রেস, ত্ণমূল, সিপিএম দলের সাংসদরা যান শুধু বিলের বিরোধিতা করতে। এবার আপনারা এত বেশি করে ভোট দিন যাতে আমাদের মতো উদ্বাস্তুদের রক্ষাকবচ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাস করতে সংসদে বিরোধীরা বাধা প্রদান করার সাহস দেখাতে না পারে। মুখ্যেমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র আক্রমণ করে রূপা বলেন, পশ্চিমবঙ্গে এখন স্বৈরাচারী শাসন ব্যতবস্থা চলছে। পশ্চিমবঙ্গে মমতার রাজত্বে মানুষ নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। স্বেচ্ছাচারী মমতা বঙ্গে হিটলারের রাজত্ব কায়েম করেছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের মাধ্যনমে সারা দেশের গরিব জনগণ উপকৃত হচ্ছেন, ব্য্তিক্রম পশ্চিমবঙ্গ। মুখ্যরমন্ত্রী মমতার জন্যপ রাজ্যেযর গরিব জনগণ এই প্রকল্পের সুবিধা থেকে বঞ্চিত। স্বেচ্ছাচারী মমতা আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প পশ্চিমবঙ্গে বাস্তবায়িত করতে দেননি। নরেন্দ্র মোদী সরকার পাঁচ বছরের শাসনকালে সমগ্র দেশে প্রধানমন্ত্রী আবাস প্রকল্পের মাধ্যচমে ৯ কোটি ঘর বানিয়ে দিয়েছেন। এক্ষেত্রে তো কে হিন্দু, কে খ্রিষ্টান, কে ইসাই, কে বৌদ্ধ, কে মুসলমান বলে কারোর জাত-ধর্ম দেখা হয়নি। কারণ নরেন্দ্র মোদী সরকার "সব-কা সাথ সব-কা বিকাশ" এই মন্ত্রে বিশ্বাসী। কংগ্রেস এত বছর ধরে দেশে শুধু জাতপাতের নামে বিভাজন সৃষ্টি করে রাজনৈতিক মুনাফা লোটেছে। পিসির পায়ে হাওয়াই চটি, আর ভাইপো আরবপতি। এই হল মমতার নীতি। রূপা বলেন, মমতা মধ্যেপ মধ্যেভ তাঁর কিছু পোষা চেলাদের অসমে পাঠিয়ে এখানকার শান্তি ভঙ্গ করার চেষ্টা করেন। আপনারা এই সকল মুখোশধারী নেতাদের থেকে সাবধানে থাকবেন। এদেরকে এখান থেকে ঝেঁটিয়ে বিদায় করবেন। পশ্চিমবঙ্গে দিদির আসন টলছে। এটা বুঝতে পেরে মমতা রাজ্যগবাসীর মন অন্যট দিকে ঘুরিয়ে দেওয়ার জন্যে বরাকবাসী বাঙালির প্রতি মেকি দরদ দেখাতে শুরু করেছেন। আপনারা দুষ্ট লোকের মিষ্ট কথায় ভুলবেন না। শনিবার দুপুরে লামডিঙে এক জনসভায় যোগ দিয়ে হেলিকপ্টার যোগে বরাকে আসেন রূপা গাঙ্গুলি। এদিন তিনি করিমগঞ্জ জেলার রামকৃষ্ণনগর, বাজারিছড়া, বদরপুর ও করিমগঞ্জে অনুষ্ঠিত প্রতিটি জনসভায় উপস্থিত বিশালসংখ্যাক জনতার কাছে করজোরে প্রার্থনা করেছেন, "এক ভারত শ্রেষ্ঠ ভারত" গড়তে নরেন্দ্র মোদার হাতকে শক্ত করতে। ভারতকে বিশ্বগুরুর আসনে বসাতে নরেন্দ্র মোদীর মতো একজন প্রধানমন্ত্রীর খুব‌ই প্রয়োজন। জনতার উদ্দেশে বলেন, সবার আত্মীয়-স্বজন, ভাই-বন্ধু দেশের যে প্রান্তেই থাকুন না-কেন, সবাইকে এই সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানান তিনি। আজকের প্রতিটি জনসভায় তাঁর সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন রাজ্যে্র পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়নমন্ত্রী নবকুমার দোলে। হিন্দুস্থান সমাচার / জন্মজিৎ / এসকেডি
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image