Hindusthan Samachar
Banner 2 रविवार, अप्रैल 21, 2019 | समय 01:58 Hrs(IST) Sonali Sonali Sonali Singh Bisht

নববর্ষ মানেই গোলুইয়ের স্মৃতি, বাংলা নববর্ষের স্মৃতিচারণ বিশিষ্ট লেখক শ্যামলকান্তি চক্রবর্তীর

By HindusthanSamachar | Publish Date: Apr 15 2019 9:13AM
নববর্ষ মানেই গোলুইয়ের স্মৃতি, বাংলা নববর্ষের স্মৃতিচারণ বিশিষ্ট লেখক শ্যামলকান্তি চক্রবর্তীর
কলকাতা, ১৫ এপ্রিল (হি.স.): আমি পদ্মাপাড়ের মানুষ। পয়লা বৈশাখ এলে চোখের সামনে ভেসে ওঠে পালং গ্রামের কোঠাবাড়ির ছবিটা। আমাদের বিশাল ‘কাশ্যপবাড়ি’, ৫টি পুকুর, কাত্যায়নী মন্দির। সব যেন মিলে মিশে ঢেকে যেত আনন্দের চাদরে। ছেলেবেলায় এই দিনটা অন্য রূপ নিত। বাংলা নববর্ষের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে জাতীয় গ্রন্থাগারের এবং ভারতীয় জাদুঘরের প্রাক্তন অধিকর্তা, ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের প্রাক্তন সচিব তথা লেখক-গবেষক ডঃ শ্যামলকান্তি চক্রবর্তী এ ভাবেই ব্যক্ত করলেন প্রায় ৭০ বছর আগের আজকের দিনের স্মৃতি। তাঁর কথায়, “বাংলা নববর্ষে বাড়ির কাছে মেলা বসত। ওটাকে বলত গোলুই। ঠাকুরদা ফুটো পয়সা দিতেন ওখান থেকে কিছু কেনার জন্য। পরে বাবার কাছ থেকে সিকি পয়সা পেয়েছি এ কারণে। কী আনন্দ হত!” ঠাকুরদা শশীভূষণ চক্রবর্তীর নামে রাস্তা আছে কোঠাবাড়িতে। বাবারা এ পার বাংলায় চলে আসেন ১৯৩৬ নাগাদ। বাংলা নববর্ষে সেই গোলুইয়ের স্মৃতি কিন্তু রয়ে যায় মনের গহিনে। পরে কলকাতায় নানা রকম বই লেখার সুবাদে প্রকাশকদের কাছ থেকে ১ বৈশাখের সম্মেলন বা সাহিত্যসভার নিয়মিত আমন্ত্রণ পেয়েছি বা পাই। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বদলে যায় অনেক কিছু। কিন্তু গোলুইয়ের স্মৃতি আমার মনে থেকে গিয়েছে একই ভাবে। ক‘দিন আগে আমার কিছু আত্মীয় গিয়েছিলেন পদ্মাপাড়ের কাশ্যপবাড়িতে। ওঁদের কাছে শুনলাম কাত্যায়ণীর মন্দিরটা নাকি ভেঙে নতুন করে তৈরি হবে। শুনেই চোখের সামনে ভেসে উঠছিল ওই মন্দির আর বাংলা নববর্ষে সংলগ্ন গোলুইয়ের কথা। সেই পয়লা বৈশাখ যায়নি। সেই নববর্ষ ঘুরে ফিরে আসে চেতন-অবচেতনে। গোলুইয়ের স্মৃতি মিশে গিয়েছে আমার অস্থিমজ্জার সঙ্গে।-হিন্দুস্থান সমাচার/ অশোক
लोकप्रिय खबरें
फोटो और वीडियो गैलरी
image