Custom Heading

বীর সাভারকর জাতীয় ঐক্যের সূত্র দিয়েছেন : সরসংঘচালক মোহন ভাগবত
নয়াদিল্লি, ১৩ অক্টোবর (হি.স) : জাতীয় নিরাপত্তা এবং সামাজিক সংস্কারের ক্ষেত্রে বীর সাভারকারের ধারণা
বীর সাভারকর জাতীয় ঐক্যের সূত্র দিয়েছেন : সরসংঘচালক মোহন ভাগবত


নয়াদিল্লি, ১৩ অক্টোবর (হি.স) : জাতীয় নিরাপত্তা এবং সামাজিক সংস্কারের ক্ষেত্রে বীর সাভারকারের ধারণাগুলি আজ আরও প্রাসঙ্গিক বলে মনে করেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস) সারসংঘচালক মোহন ভাগবত। তিনি বলেন, বীর সাভারকারের সর্বাত্মকভাবে তাঁর ধারণা গ্রহণের দিন এসেছে। ডঃ ভাগবত বলেন, দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে বীর সাভারকরকে বদনাম করার জন্য প্রচার চালানো হয়েছিল।

তথ্য কমিশনার উদয় মাহুরকার এবং চিরায়ু পণ্ডিতের সাম্প্রতিক বই বীর সাভারকার, দ্য ম্যান হু কুড প্রিভেন্ট পার্টিশন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে একটি বেসরকারি চ্যানেলে কথোপকথনের সময় সরসংচালক মোহন ভাগবত বলেন, বীর সাভারকর জাতীয় ঐক্যের সূত্র দিয়েছেন। মোহন ভাগবতের স্পষ্ট দাবি, তিনি ছিলেন দেশের ঐক্য ও অখণ্ডতার প্রতীক। দেশভাগের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বীর সাভারকর এই দেশভাগ বন্ধ করার চেষ্টা করেছিলেন। বিভক্তের ধারণা ভারতীয়ত্বের ঠিক বিপরীত। ভারতীয়তা বলে আমরা এক, আমাদের এক হতে হবে। আলাদাভাবে থাকাটা ঠিক নয়। দেশভাগের সময়ও একই কথা বলা উচিত ছিল। বীর সাভারকর সে সময় এই কথা বলেছিলেন। কিন্তু সাভারকরজিকে বদনাম করার চেষ্টা করা হয়েছিল। এটা ব্রিটিশদের বিভাজন নীতির অধীনে গবেষণা এবং শিক্ষার মাধ্যমে করা হয়েছিল। অনেক মহাপুরুষের অবদান সম্পূর্ণভাবে অনুপস্থিত। ডাঃ হেডগেওয়ারও স্বাধীনতা আন্দোলন থেকে বেরিয়ে এসেছিলেন কিন্তু পাঠ্যসূচিতে তা দেখা যায় না। তাই পাঠ্যক্রমেরও পরিবর্তন দরকার। ডঃ ভাগবত বলেন, সাভারকরজির জাতীয়তাবাদে প্রত্যেকের সমান অধিকারের চিন্তা-ভাবনা রয়েছে। এর মধ্যে কোন লেনদেন নেই। দেশ যদি আমাদের সবকিছু দেয়, আমাদেরও দেশকে তা দিতে হবে, এমনকি যদি না দেয়, আমাদেরও দিতে হবে - এমনই সাভারকরজি'র জাতীয়তাবাদে ত্যাগের কথা রয়েছে। আজ আনন্দের কথা যে সরকারেরও এই নীতির সমর্থন পাওয়া যায়।

সংঘ প্রধান মোহন ভাগবত হিন্দুত্বের উপর ক্রমাগত আক্রমণের বিষয়ে বলেন, ব্রিটিশদের ভাঙা ও শাসনের নীতি যারা সমাজকে ঐক্যবদ্ধ করেছিল, তাদের দমন করে তাকে খলনায়ক বানানোর চেষ্টা করেছিল। কিন্তু আমাদের ধারণা সত্যমেব জয়তে এবং সত্য সবসময় সামনে আসবে। তিনি আরও বলেন, মহাপুরুষদেরও বিভক্ত করার ষড়যন্ত্র ছিল। যেখানে আমাদের দেশের মহাপুরুষরা ছিলেন খুবই উদার এবং গণতান্ত্রিক মূল্যবোধে বিশ্বাসী মানুষ। বাবাসাহেব ডঃ ভীমরাও আম্বেদকর এবং বীর সাভারকরের মধ্যে এমন বিভেদমূলক ভিত্তিহীন বলা হয়েছিল। যা সত্য নয়। মতের পার্থক্য থাকতে পারে কিন্তু একে অপরের প্রতি কোন বিদ্বেষ ছিল না। আমরা সবাই এখানে স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণ করেছি। ব্রিটিশরাজত্বে জেলা আধিকারিকরা সংঘের শাখার কথা উল্লেখ করে লিখেছিলেন যে তারা খুব বিপজ্জনক। সত্যি কথা হচ্ছে, সংঘের দেশপ্রেমের কারণে এটা বলা হয়েছিল। বীর সাভারকর আগে থেকেই সংগ্রামে জড়িত ছিলেন। ডঃ হেডগেওয়ার এই শাখা ছেড়ে স্বাধীনতা আন্দোলনে নেমেছিলেন। বাবসাহেব ভীমরাও আম্বেদকরের সঙ্গে গুরুজির যোগাযোগ ছিল। আম্বেদকর জিও শাখায় এসেছিলেন, গুরুজির সঙ্গে খাবারও খেয়েছিলেন।

সরসংঘচালক বলেন, আজও বিভাজন ও শাসনের অধীনে ইতিহাসকে ভুল পথে রাখার ষড়যন্ত্র অব্যাহত রয়েছে। এটি ঠিক করার জন্য, পাঠ্যপুস্তকে পরিবর্তনগুলি খুব প্রয়োজনীয়। ডঃ ভাগবত আরও বলেন, সরকারের সামাজিক দায়বদ্ধতাও রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ তিনি সংবিধান থেকে ৩৭০ ধারা বাতিল এবং রাম জন্মভূমি নির্মাণের পথ সুগম করার উদাহরণ দিয়েছেন। তিনি বলেন, ৩৭০ ধারার বিলুপ্ত এবং রাম মন্দির নির্মাণের পথ সুগম করতে সুপ্রিম কোর্টের ভূমিকা রয়েছে। পাশাপাশি সমাজকে এই বিভক্তিকরণের ষড়যন্ত্রের প্রকাশ সামনে আনতে হবে।

হিন্দুস্থান সমাচার/সঞ্জয়


 rajesh pande