Custom Heading

আমাদের সম্পর্কে
আমাদের সম্পর্কে
পরিচয়
হিন্দুস্থান সমাচার ভারতের প্রথম ও একমাত্র বহুভাষী জাতীয় সংবাদ সংস্থা। ১৯৪৮ সালের ১০ এপ্রিল কো-অপারেটিভ সোসাইটি হিসেবে হিন্দুস্থান সমাচার সংবাদ সংস্থার পথচলা শুরু হয়েছিল। বর্তমানে হিন্দুস্থান সমাচার-এর সদর দফতর দিল্লিতে অবস্থিত। দেশের বিভিন্ন রাজ্যে হিন্দুস্থান সমাচার-এর ২২টি ব্যুরো কার্যালয় রয়েছে। বর্তমানে ৬০০টি স্থানে হিন্দুস্থান সমাচার-এর সংবাদ সূত্র রয়েছে, যাঁরা ২৪ ঘন্টা নিরন্তর নিজেদের সেবা প্রদান করে চলেছেন।
ব্যাপক ও বিস্তৃত নেটওয়ার্কের পাশাপাশি হিন্দুস্থান সমাচার ভারতের সর্বাধিক সাবস্ক্রাইব করা সংবাদ সংস্থা হিসেবে শীর্ষে রয়েছে। দৈনিক সংবাদপত্রের পাশাপাশি সাপ্তাহিক পত্রিকা, নিউজ পোর্টাল, নিউজ চ্যানেলও আমাদের গ্রাহক। স্ক্যান সার্ভিসের মাধ্যমে শতাধিক সংস্থাকে আমরা সংবাদ সেবা প্রদান করছি। বিভিন্ন ভারতীয় ভাষায় দ্রুত গতিতে খবর পৌঁছে দেওয়াই আমাদের প্রচেষ্টা। হিন্দি ও উর্দুর পাশাপাশি বাংলা, অসমীয়া, ওড়িয়া, মারাঠি, গুজরাটি, কন্নড়, তেলেগু, পঞ্জাবি, নেপালি প্রভৃতি ভাষায় আমাদের সংবাদ পরিষেবা কার্যরত। দেশের সর্ববৃহৎ সম্প্রচারিত খ্যাতনামা চ্যানেল 'ডিডি নিউজ' ও 'আকাশবাণী'-কে ৬টি ভাষায় আমরা নিজেদের সেবা প্রদান করে চলেছি। নেপালি ভাষার কিছু পত্রিকাও আমাদের গ্রাহক।
অনেক প্রতিকূলতা সত্ত্বেও সংবাদ জগতে আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে দাঁড়িয়ে রয়েছি, ভবিষ্যতেও এমনই থাকব। সম্পূর্ণ সত্যতার সঙ্গে সংবাদ প্রস্তুত করা আমাদের ধর্ম। বিগত ৭৩ বছর ধরে আমরা আমাদের সাংবাদিকতা কর্তব্য ও ধর্ম অনুসরণ করে চলেছি ও ভবিষ্যতে তা জারি থাকবে। সংবাদ সংস্থার জগতে আমাদের বিশ্বাসযোগ্যতা রয়েছে।
সাংবাদিকতার মূল্যবোধের পাশাপাশি গণতন্ত্রকে পরিমার্জিত করার ক্ষেত্রে যতটা সম্ভব আমরা নিজেদের ভূমিকা পালন করেছি। জরুরি অবস্থার সময় গণতন্ত্র রক্ষায় হিন্দুস্থান সমাচার যে ভূমিকা পালন করেছিল তা আমাদের সোনালী ইতিহাস। নির্ভীক ও নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার কারণে হিন্দুস্থান সমাচার ক্ষমতাসীন প্রতিষ্ঠানের ক্রোধের শিকারও হয়েছিল।
আমাদের অন্যান্য সেবা-
হিন্দুস্থান সমাচার প্রবন্ধ, ফিচার, ছবি পরিষেবাও প্রদান করে থাকে। আধুনিক প্রযুক্তির কথা মাথায় রেখে আমরা নিউজ স্ক্যানের পরিষেবাও প্রদান করছি। হিন্দুস্থান সমাচার দ্বারা বার্ষিকীও প্রকাশিত হয়। প্রতিবছরের গুরুত্বপূর্ণ তথ্যে ভরপুর ইতিহাসের দৃষ্টিভঙ্গি বিকশিত করার জন্য বার্ষিকীর যথেষ্ট খ্যাতি রয়েছে। 'যথাবত' হিন্দুস্থান সমাচার গ্রুপের একটি হিন্দি পাক্ষিক পত্রিকা। এই পত্রিকা পাঠকদের মধ্যে স্বাধীন ও শক্তিশালী পরিচয় তৈরি করেছে। এছাড়াও 'যুগবার্তা' (হিন্দি সাপ্তাহিক), 'নবোত্থান' (হিন্দি ও বাংলা মাসিক)-পত্রিকাও প্রকাশিত করা হয়। করোনা-মহামারী পরিস্থিতিতে আপাতত 'য্থাবত' পত্রিকা প্রকাশিত হচ্ছে।
ভারতীয় নববর্ষ (চৈত্র প্রতিপদা) উপলক্ষ্যে প্রতি বছর হিন্দুস্থান সমাচার-এর পক্ষ থেকে দৈনন্দিনী প্রকাশিত হয়, যেখানে ভারতীয় তিথির পাশাপাশি ইংরেজি দিনাঙ্কও থাকে। ভারতীয় কালানুক্রমিক ভিত্তিক এই দৈনন্দিনী দারুণ কাজে আসে।
আমাদের প্রতিষ্ঠাতা
পাশ্চত্য প্রভাবের মধ্যেই ভারতীয় চিন্তাধারার উর্বরভূমি তৈরির স্বার্থে বিশিষ্ট চিন্তাবিদ (স্বর্গীয়) শিবরাম শঙ্কর আপটে হিন্দুস্থান সমাচার সংবাদ সংস্থার প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। দেবনাগরী লিপিতে 'টেলিপ্রিন্টার' আবিষ্কারের শ্রেয় স্বর্গীয় শ্রী শিবরাম শঙ্কর আপটেরই (দাদা সাহেব আপটে), এবং (স্বর্গীয়) বালেশ্বর আগরওয়ালের যশস্বী সম্পাদনা ও পরিচালনার মাধ্যমে হিন্দুস্থান সমাচার দেশের সবচেয়ে নিপুন ও স্বনামধন্য সংবাদ সংস্থা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।
একটি সময় এমনও এসেছিল, যখন হিন্দুস্থান সমাচার-কে নিজের অস্তিত্বের জন্য সংগ্রাম করতে হয়েছিল। তখন জাতির উদ্দেশে নিবেদিত (স্বর্গীয়) শ্রীকান্ত জোশি হিন্দুস্থান সমাচার-কে নতুন জীবন দান করেছিলেন। হিন্দুস্থান সমাচার সংবাদ সংস্থার মূল মন্ত্র হল-সত্য, সংবাদ, সেবা ও সহযোগিতা। এই বার্তা ও লক্ষ্য নিয়ে হিন্দুস্থান সমাচার এগিয়ে চলেছে।
 rajesh pande