Custom Heading

যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত প্রজাতন্ত্র দিবস, দিল্লির রাজপথে কুচকাওয়াজ দেখল দেশ
নয়াদিল্লি, ২৬ জানুয়ারি (হি.স.): যথাযোগ্য মর্যাদায় দেশে পালিত হল ৭৩ তম প্রজাতন্ত্র দিবস। এই দিনই ভারত
কুচকাওয়াজ দেখল দেশ


নয়াদিল্লি, ২৬ জানুয়ারি (হি.স.): যথাযোগ্য মর্যাদায় দেশে পালিত হল ৭৩ তম প্রজাতন্ত্র দিবস। এই দিনই ভারতের সংবিধান কার্যকর হয়েছিল। প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষ্যে এদিন দিল্লিতে কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং-সহ বিশিষ্টরা। কোভিডবিধি মেনে কম সংখ্যক দর্শকের উপস্থিতিতে সমস্ত অনুষ্ঠান হয়েছে। সকাল সাড়ে ১০টা থেকে প্যারেড শুরু হয়। এরপর একে একে বিভিন্ন মন্ত্রক ও রাজ্যের ট্যাবলো প্রদর্শিত হয়। প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষ্যে রাজধানী দিল্লিকে কড়া নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয়েছিল।

কোনও বিদেশি অতিথিকে এবারের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। তবে এই প্রথম অভ্যাগতদের তালিকায় ছিলেন অটোচালক, স্যানিটাইজেশন কর্মী, নির্মাণকর্মী ও ফ্রন্টলাইন কর্মীরা, যা অভূতপূর্ব। ৬৯ বছর আগে তৈরি অশ্বারোহী দলের কুচকাওয়াজ দেখল এবার দিল্লির রাজপথ। পোশাকি নাম সিক্সটি ওয়ান ক্যাভালরি। নেতৃত্ব দেন মেজর মৃত্যুঞ্জয় সিং চৌহান। কেন্দ্রীয় পূর্ত মন্ত্রকের তৈরি ট্যাবলোতে দেখা যায় নেতাজি ও আজাদ হিন্দ ফৌজকে। দিল্লিতে বাতিল হয়েছিল বাংলার নেতাজি ট্যাবলো। অথচ দিল্লির রাজপথে কুচকাওয়াজে কেন্দ্রীয় পূর্ত মন্ত্রকের তৈরি ট্যাবলোতে দেখা গেল নেতাজি ও আজাদ হিন্দ ফৌজকে। শোনা গেল কদম কদম বাড়ায়ে যা। প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেডে প্রদর্শিত হয়েছে সি-১৩০ জে সুপার হারকিউলিস।

গুজরাটের ট্যাবলোয় উঠে এসেছে সেই রাজ্যের আদিবাসী আন্দোলনের কথা। পঞ্জাবের ট্যাবলোয় ভগত সিং, রাজগুরু এবং সুখদেবের অবদান-কথা উঠে এসেছে। সেঞ্চুরিয়ন ট্যাঙ্ক প্রদর্শিত হয়েছে দিল্লির রাজপথে। কুচকাওয়াজে কার্গিলে ব্যবহৃত ধনুষ কামান দেখা গিয়েছে। দেখা গেল যে কোনও পরিস্থিতিতে নদী বা খাদ ডিঙিয়ে যেতে উপযোগী ভারতীয় সেনাবাহিনীর নিজস্ব সর্বত্র ব্রিজবাহন যান। শুধু রাজপথে নয়, চমক ছিল আকাশেও। উড়ল ধ্রুব কপ্টার বাহিনী। কুচকাওয়াজে দেখা গেল টাইগার ক্যাট ও আকাশ ক্ষেপণাস্ত্র। রাজপথে প্রদর্শিত হয় উত্তর-পূর্বের সাত রাজ্যের ট্রুপের। সেঞ্চুরিয়ান ট্যাঙ্ক, পিটি-৭৬, এমবিটি অর্জুন এমকে-I, এবং এপিসি টোপাজ প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে অংশগ্রহণ করে। রাজপথে প্রদর্শন অসম রেজিমেন্ট কন্টিনজেন্টের। এতে আছে উত্তর পূর্ব ভারতের ৭ রাজ্যের ট্রুপই।

রাষ্ট্রপতি ২১টি তোপধ্বনির মধ্যে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। এরপর সকাল সাড়ে ১০টা থেকে শুরু হয়কুচকাওয়াজ। তার আগে ন্যাশনাল ওয়ার মেমোরিয়ালে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন প্রধানমন্ত্রী। ২১টি তোপধ্বনির মধ্যে দিয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এদিনের অনুষ্ঠানে দেওয়া হয় অশোক চক্র, পরমবীর চক্র।

হিন্দুস্থান সমাচার। রাকেশ।


 rajesh pande