পূর্ণদাস বাউলের জমি জবর দখলের অভিযোগ
ইলামবাজার, ২৪ জানুয়ারি (হি. স.) : রাঙামাটির বাউলভূমে 'বাউল সম্রাট' পূর্ণদাস বাউলের জমি জবর দখলের অ
পূর্ণদাস বাউলের জমি জবর দখলের অভিযোগ


ইলামবাজার, ২৪ জানুয়ারি (হি. স.) : রাঙামাটির বাউলভূমে 'বাউল সম্রাট' পূর্ণদাস বাউলের জমি জবর দখলের অভিযোগ। মুখ্যমন্ত্রীর বীরভূম সফরের আগে শাসক দল মদতে জমি দখল হয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন বর্ষীয়ান এই বাউল শিল্পী৷

এদিন, তিনি তাঁর পরিবারকে নিয়ে ইলামবাজারের কামারপাড়ায় জবর দখল হওয়া জমিতে যান৷ খবর পেয়ে ইলামবাজার ভূমি ও ভূমি সংস্কার দপ্তরের আধিকারিকেরা এসে সেই জমি মাপঝোঁক করেন৷ শেষ জীবনে এই জমিতে তিনি একটি বাউল আখড়া বানাতে চান, কিন্তু প্রায় ৪ বিঘা জমি দখল করে কংক্রিটের নির্মাণ শুরু হয়ে গিয়েছে দেখা যায়৷ উল্লেখ, জমি মাফিয়াদের দৌরাত্ম্য অভিযোগ বীরভূম বরাবরের।

বাউল গানকে বিশ্বের দরবারে প্রসার ও প্রচারের জন্য 'বাউল সম্রাট' বলা হয় পূর্ণদাস বাউলকে৷ বাউলভূম হিসাবে পরিচিত এই বীরভূম জেলা৷ এই জেলাতেই জন্ম বাউল শিল্পী পূর্ণদাস বাউলের৷ ২০১৩ সালে বাউল গানে তাঁর বিশেষ অবদানের জন্য 'পদ্মশ্রী' সম্মানে ভূষিত হয়েছে। একদা প্রখ্যাত মার্কিন সুরকার বব ডিলানের সঙ্গে বহু গানে সুর বেঁধেছেন পূর্ণদাস বাউল। এবার সেই বাউলের জমি জবর দখলের অভিযোগ উঠল।

বীরভূমের ইলামবাজার থানার কামারপাড়ায় রাস্তার ধারে ১০ বিঘার বেশি জমি রয়েছে বাউল শিল্পীর। অভিযোগ, গত দেড় দশক ধরে অল্প অল্প করে সেই জমি জবর দখল হয়ে যাচ্ছে৷ বর্তমানে বাউল শিল্পীর জমিতে কোথাও কংক্রিটের নির্মাণ হচ্ছে, কোথাও বা কাঁটা তার-পিলার দিয়ে ঘিরে নেওয়া হয়েছে। ভুয়ো কাগজপত্র বানিয়ে জমি বিক্রি করে দিয়েছে জমি মাফিয়ারা। এই মর্মে একাধিকবার বীরভূম জেলা শাসক, বোলপুর মহকুমা শাসক, জেলা ও ব্লক ভূমি ও ভূমি সংস্কার দফতরে লিখিত অভিযোগ করেছেন খোদ বাউল সম্রাট। কিন্তু, কোন ফল হয়নি৷ এমনকি, তাঁর অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এই বিষয়ে চিঠি দিয়েও কোন সুরাহা মেলেনি। এদিন প্রায় ৯০ বছর বয়সী পূর্ণদাস বাউল তাঁর ছেলে সহ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নিজের জমিতে আসেন। খবর পেয়ে ইলামবাজার থানার পুলিশ ও ইলামবাজার ব্লক ভূমি ও ভূমি সংস্কার আধিকারিকেরা আসেন কামারপাড়ায়। মানচিত্র দেখে বাউল শিল্পীর জমি মাপঝোঁক করেন। ইলামবাজার ব্লক ভূমি ও ভূমি সংস্কার দপ্তরের শূল্ক বিভাগের আধিকারিক বিপদতারণ হাজরা বলেন, অভিযোগ পেয়ে আমরা সরকারি মানচিত্র দেখে মাপঝোঁক করলাম৷ এই বিষয়ে এখনই কিছু বলব না। আমি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে এই রিপোর্ট জমা দেব।

প্রসঙ্গত, বীরভূমের ইলামবাজারের অজয় নদ, শান্তিনিকেতনের কোপাই নদীর তীরবর্তী এলাকা দিন দিন জমি মাফিয়াদের দখলে চলে যাচ্ছে৷ এই অভিযোগ দীর্ঘ দিনের৷ জমি দখল করে গড়ে উঠছে রিসর্ট, আবাসন, হোটেল, রেস্তোরাঁ। বাউল সম্রাট পূর্ণদাস বাউল বলেন, আমার জমি দখল হয়ে গিয়েছে দেখছি। আমি পৃথিবী ঘুরে আমার দেশের সংস্কৃতিকে প্রচার করেছি। আমার জমি দখল করে নেবে এটা মানতে পারছি না। শাসক দলের মতদ ছাড়া এটা সম্ভব নয়৷ মুখ্যমন্ত্রীকেও জানিয়েছি৷ কোন উত্তর পাইনি৷ আমি চাই আমার জমি উদ্ধার করে দেওয়া হোক। একই কথা বলেন বাউল শিল্পীর ছেলে দিব্যেন্দু দাস বাউল। তিনি বলেন, জমি মাফিয়ারা যুক্ত এর সঙ্গে৷ আর শাসক দলের মত ছাড়া সম্ভব নয়৷ এখন দেখছি জমির ম্যাপ পর্যন্ত বদল করে দেওয়া হয়েছে। অথচ আমাদের কাছে সমস্ত দলিল রয়েছে।

হিন্দুস্থান সমাচার / হেমাভ




 

 rajesh pande